সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন) ৩৬০৮ টি হাদিস ইসলামিক ফাউন্ডেশন সম্পূর্ণ হাদিস গ্রন্থটি একসাথে পড়ুন
অধ্যায় ও পরিচ্ছেদ তালিকা সর্বমোট হাদিস | হাদিসের ব্যাপ্তি
১/ পবিত্রতা ( كتاب الطهارة عن رسول الله ﷺ) ১৪৮ টি | ১-১৪৮ পর্যন্ত 1/ The Book on Purification
  • তাহারাত ব্যাতিরেকে সালাত কবুল হয় না।
  • তাহারাতের ফযীলত।
  • সালাতের চাবি হল তাহারাত।
  • পায়খানা প্রবেশের দু'আ।
  • পায়খানা থেকে বের হওয়ার দু'আ।
  • পেশাব-পায়খানাকালে কিবলামুখী হওয়া নিষিদ্ধ।
  • উক্ত বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • দাঁড়িয়ে পেশাব করা নিষেধ।
  • উক্ত বিষয়ের অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • পেশাব বা পায়খানার সময় আড়ালে যাওয়া।
  • ডান হাতে শৌচকর্ম মাকরূহ।
  • পাথর দ্বারা ইস্তিঞ্জা করা।
  • ইস্তিঞ্জায় দু'টি পাথর ব্যবহার করা
  • যে সব বস্তু দিয়ে ইস্তিঞ্জা মাকরূহ।
  • পানির দ্বারা ইস্তিঞ্জা করা।
  • ইস্তিঞ্জার প্রয়োজন হলে রাসুল (ﷺ) অনেক দূরে চলে যেতেন।
  • গোসল করার স্থানে পেশাব করা অপছন্দনীয়।
  • মিসওয়াক করা।
  • নিদ্রাভঙ্গের পর হাত না ধুয়ে পানির পাত্রে প্রবেশ না করানো।
  • উযু করার সময় বিসমিল্লাহ্‌ বলা।
  • কুলি করা ও নাকে পানি দেওয়া।
  • একই কোষে কুলি করা ও নাকে পানি দেওয়া।
  • দাঁড়ি খিলাল করা।
  • মাথা মাসেহের সময় সামনে থেকে শুরু করে পিছনের দিকে যেতে হবে।
  • মাসেহ মাথার পিছন থেকে শুরু করা প্রসঙ্গে।
  • একবার মাথা মাসেহ করা।
  • মাথা মাসহের জন্য নতুন পানি লওয়া প্রসঙ্গে।
  • কানের সম্মুখ ও পিছন উভয় দিক মাসেহ করা।
  • কানের বিধান মাথার সাথে সম্পৃক্ত।
  • আঙ্গুলী খিলাল করা।
  • উযুতে যাদের গোড়ালি ভিজেনি তাদের জন্য জাহান্নামের শাস্তি।
  • উযুতে প্রতি অঙ্গ একবার একবার করে ধোয়া
  • উযুতে প্রতি অঙ্গ দুইবার করে ধোয়া।
  • উযুতে প্রতি অঙ্গ তিনবার করে ধোয়া।
  • একবার করে, দুইবার করে ও তিনবার করে ধুয়ে উযু করা।
  • উযুতে কিছু অঙ্গ দুইবার করে আর কিছু অঙ্গ তিনবার করে ধোয়া।
  • নবী (ﷺ) এর উযু কেমন ছিল।
  • উযুর পর কিছু পানি ছিটিয়ে দেওয়া।
  • পরিপূর্ণভাবে উযু করা।
  • উযুর পর রুমাল ব্যবহার করা
  • উযু করার পর দু'আ।
  • এক মুদ পরিমান পানি দিয়ে উযু করা।
  • উযুর মধ্যে পানির অপচয় পছন্দনীয় নয়।
  • প্রতি সালাতের জন্য উযু করা।
  • এক উযুতে একাধিক সালাত আদায় করা।
  • পুরুষ ও নারীর একই পাত্র থেকে উযু করা।
  • মহিলা কর্তৃক তাহারাতের জন্য ব্যবহৃত পানির অবশিষ্টাংশ ব্যাবহার মাকরূহ
  • এই বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • পানি অশুদ্ধি হয় না।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • স্থির পানিতে পেশাব করা মাকরূহ।
  • সমুদ্রের পানি পাক।
  • পেশাব সম্পর্কে কঠোরতা।
  • দুগ্ধপোষ্য শিশুর পেশাবে পানি ছিটিয়ে দেওয়া।
  • হালাল পশুর পেশাব।
  • বাতকর্মের কারণে উযু করা।
  • নিদ্রার কারণে উযু।
  • আগুনে পাকানো খাদ্য আহারে উযু করা।
  • আগুনে পাকানো খাদ্য আহারে উযু না করা।
  • উটের গোশত আহারে উযু।
  • লজ্জাস্থান স্পর্শের কারণে উযু।
  • চুম্বনের কারণে উযু না করা।
  • বমি ও নাকসিরের কারণে উযু।
  • নবীয (ফল ভিজানো পানি) দ্বারা উযু করা।
  • দুধ পান করে কুলি করা।
  • উযু ছাড়া সালামের জওয়াব দেওয়া পছন্দনীয় নয়।
  • কুকুরের উচ্ছিষ্ট।
  • বিড়ালের উচ্ছিষ্ট।
  • মোজায় মাসহ করা।
  • মুসাফির ও মুকিমের জন্য চামড়ায় মোজায় মাসেহ করা।
  • মোযার উপর ও নীচ উভয় দিকে মাসেহ করা।
  • চামড়ার মোযার উপরিভাগ মাসহে করা।
  • কাপড়ের মোযা ও চপ্পলের উপর মাসহে করা।
  • পাগড়ীতে মাসহে করা প্রসঙ্গে।
  • জানাবাতের গোসল।
  • গোসলের সময় মহিলাদের বেণী খুলতে হবে কি না।
  • প্রতিটি লোমকূপের নীচে অপবিত্রতা বিদ্যমান।
  • গোসলের পর উযু করা।
  • স্বামী-স্ত্রীর খাতনা স্থান পরস্পর মিলিত হলে গোসল ফরয।
  • বীর্যস্খলনের সাথেই গোসল ফরয হওয়ার সম্পর্ক।
  • ঘুম থেকে জেগে যদি কেউ আর্দ্রতা দেখে কিন্তু স্বপ্নদোষের কথা মনে না পড়ে তবে সে কি করবে?
  • মনী ও মযী।
  • কাপড়ে মযী লাগা।
  • কাপড়ে মনী লাগা।
  • মনী লাগার জন্য কাপড় ধোয়া।
  • জুনুবী বা অপবিত্র ব্যাক্তির গোসল না করে ঘুমানো।
  • ঘুমাতে চাইলে অপবিত্র ব্যাক্তির উযু করা।
  • অপবিত্র (জুনুবী) ব্যাক্তির সাথে মুসাফাহা করা।
  • পুরুষের মত কোন মহিলার যদি স্বপ্নদোষ হয়।
  • গোসলের পর স্ত্রীর শরীর জড়িয়ে ধরে তাপ গ্রহন।
  • পানি না পাওয়া গেলে জানাবাতবিশিষ্ট ব্যাক্তির তায়াম্মুম করা।
  • মুস্তাহাযা মহিলা প্রসঙ্গে।
  • ইস্তিহাযা আক্রান্ত মহিলার প্রত্যেক সালাতের জন্য উযু করা।
  • হায়য বিশিষ্ট মহিলার সালাত কাযা করতে হবে না।
  • হায়য বিশিষ্ট মহিলা এবং যাদের উপর গোসল ফরয তারা কুরআন তিলওয়াত করতে পারবে না।
  • হায়য বিশিষ্ট স্ত্রীর সাথে আলিঙ্গন।
  • হায়য বিশিষ্ট মহিলার সাথে একত্রে আহার করা এবং তার উচ্ছিষ্ট প্রসঙ্গে।
  • হায়য বিশিষ্ট মহিলা কর্তৃক হাত বাড়িয়ে মসজিদ থেকে কিছু লওয়া।
  • হায়য বিশিষ্ট মহিলার সাথে সঙ্গম হারাম।
  • এই ক্ষেত্রে কাফফারা প্রদান প্রসঙ্গে।
  • কাপড় থেকে হায়েযের রক্ত ধৌত করা।
  • নিফাস বিশিষ্ট মহিলাকে কত দিন সালাত ও সিয়াম থেকে বিরত থাকতে হবে।
  • এক গোসলে একাধিক স্ত্রীর সাথে মিলন।
  • জুনুবী ব্যাক্তি পুনরায় স্ত্রীর সাথে মিলিত হতে চাইলে উযু করে নিবে।
  • ইকামত হওয়ার পরও কেউ শৌচাগারে গমনের প্রয়োজন অনুভব করলে আগেই তা সেরে নিবে।
  • পথের আবর্জনা মাড়িয়ে আসার কারণে উযু।
  • তায়াম্মুম।
  • জুনুবী না হলে কোন অবস্থায় কুরআন তিলওয়াত করা যায়।
  • মাটিতে পেশাব লাগলে।
  • লজ্জাস্থান স্পর্শের কারণে উযু না করা।
  • ২/ সালাত (নামায) (كتاب الصلاة) ৩০৩ টি | ১৪৯-৪৫১ পর্যন্ত 2/ The Book on Salat (Prayer)
  • সালাতের ওয়াক্ত।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • গালাস বা আঁধারের রেশ থাকতেই ফজর আদায় করা।
  • ইসফার বা চতুর্দিকে ফর্সা হয়ে এলে ফজর আদায় করা।
  • শীঘ্র যুহরের সালাত আদায় করা।
  • গরমের দিনে বিলম্ব করে যুহর আদায় করা।
  • আসরের সালাত জলদী আদায় করা।
  • আসরের সালাত পিছেয়ে আদায় করা।
  • মাগরিবের ওয়াক্ত।
  • 'ইশার ওয়াক্ত।
  • 'ইশার সালাত বিলম্বে আদায় করা।
  • ইশার পূর্বে নিদ্রা যাওয়া এবং ইশার পর গল্প-সল্প করা মাকরূহ।
  • 'ইশার পর কথাবার্তা বলার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • প্রথম ওয়াক্তের ফযীলত।
  • আসরের ওয়াক্ত ভুলে গেলে।
  • ইমাম যদি সালাত আদায়ে বিলম্ব করেন তবে অন্যান্যদের জন্য তা শীঘ্র আদায় করা প্রসঙ্গে।
  • সালাত ভুলে ঘুমিয়ে পড়লে।
  • কারো যদি একাধিক সালাত কাযা হয়ে যায় তবে কোন সালাত থেকে তা আরম্ভ করবে?
  • "সালাতুল উসতা" হল আসরের সালাত; কেউ কেউ বলেন, এ হল যুহরের সালাত।
  • আসর ও ফজরের পর সালাত আদায় করা মাকরূহ।
  • আসরের পর সালাত।
  • মাগরিবের পূর্বে সালাত আদায় করা।
  • কেউ যদি সূর্য ডোবার আগে আসরের এক রাক'আত পায়।
  • আযানের সুচনা প্রসঙ্গে।
  • আযানে তারজী করা।
  • ইকামতের কালেমাগুলো একবার করে বলা।
  • ধীর লয়ে আযান দেওয়া।
  • আযানের সময়ে কানে আঙ্গুল প্রবেশ করানো।
  • ফজরের সালাতের জন্য তাছবীব অর্থাৎ আযানের পর পুনরাহবান।
  • যে আযান দিবে সে-ই ইকামাত দিবে।
  • উযু ছাড়া আযান দেওয়া মাকরূহ।
  • ইকামাতের বিষয়ে ইমামের হক বেশী।
  • রাত (তাহজ্জুদ) - এর আযান।
  • আযানের পর মসজিদ ছেড়ে বের হওয়া মাকরূহ।
  • সফরে আযান দেওয়া।
  • আযানের ফযীলত।
  • ইমাম হলেন যামিনদার আর মু'আযযিন হলেন আমানতদার।
  • মু'আযযিনের আযানের সময় একজন কি বলবে।
  • আযানের বিনময়ে পারিশ্রমিক গ্রহন করা মাকরূহ।
  • মু'আযযিনের আযানের পর দু'আ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • আযান ও ইকামাতের মাঝে দু'আ রদ হয় না।
  • আল্লাহ্‌ তায়ালা তাঁর বান্দাদের উপর কত ওয়াক্ত সালাত ফরয করেছেন।
  • পাঁচ ওয়াক্ত সালাতের ফযীলত।
  • জামা'আতের ফযীলত।
  • আযান শুনার পরও যদি কেউ সাড়া না দেয়।
  • একা সালাত আদায়ের পর যদি কেউ জামা'আত পায়।
  • কোন মসজিদে একবার জামা'আত হওয়ার পর পুনরায় সেখানে জামা'আত করা।
  • ইশা ও ফজরের সালাত জামা'আতে আদায় করার ফযীলত।
  • প্রথম কাতারের ফযীলত।
  • কাতার সোজা করা।
  • "তোমাদের মধ্যে যারা জ্ঞানী ও বুদ্ধিমান তারা আমার কাছে দাঁড়াবে"।
  • দুই স্তম্ভের মাঝে কাতার করা মাকরূহ।
  • কাতারের পিছনে একা দাঁড়িয়ে সালাত আদায় করা।
  • এক ব্যাক্তি সঙ্গে নিয়ে সালাত আদায় করা।
  • পুরুষ ও নারী উভয়সহ সালাত আদায় করা।
  • ইমাম হওয়ার অধিক হকদার কে?
  • তোমাদের কেউ যদি লোকদের ইমামত করে তবে সে যেন সংক্ষেপে সালাত আদায় করে।
  • যে বিষয় সালাতে অন্য জিনিস হারাম করে এবং যে বিষয় অন্য জিনিস হালাল করে সে বিষয়ের বিবরনঃ
  • তাকবীরে উলার ফযীলত।
  • সালাতের শুরুতে কি বলবে।
  • সালাতে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম জোরে না পড়া।
  • সালাতে জোরে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম পড়া।
  • সালাতে আলহামদু লিল্লাহি রাব্বিল 'আলামীন - এর মাধ্যমে কিরাআত শুরু করা।
  • ফাতিহা ব্যাতিত সালাত হয় না।
  • আমীন বলা।
  • আমীন বলার ফযীলত।
  • সালাতে দুইবার নীরবতা প্রসঙ্গে।
  • সালাতে বাম হাতের উপর ডান হাত রাখা।
  • রুকু ও সিজদার সময় তাকবীর বলা।
  • এ সম্পর্কে আর একটি অনুচ্ছেদ।
  • রুকু এর সময় হাত তোলা।
  • রুকুতে হাঁটুদ্বয়ে হাত রাখা।
  • রুকুর সময় হাত দু'টি শরীরের পার্শ্বদেশ থেকে পৃথক রাখা।
  • রুকু এবং সিজদার তাসবীহ।
  • রুকু এবং সিজদায় কিরাআত নিষিদ্ধ।
  • যদি কেউ রুকু এবং সিজদায় পিঠ স্থির না রাখে।
  • রুকু থেকে মাথা তোলার সময় কি বলবে?
  • সিজদার সময় দুই হাত রাখার পূর্বে দুই হাঁটু রাখা।
  • এই বিষয়ে আর একটি অনুচ্ছেদ।
  • সালাত আদায় করতে ভুলে গেলে।
  • মুকীম অবস্থায় দুই ওয়াক্তের সালাত একত্রে আদায় করা।
  • ইকামতের কালেমাগুলো দুই দুইবার করে উচ্চারণ করা।
  • দুই ব্যাক্তি সহ সালাত আদায় করা।
  • তাকবীর কালে হাতের অঙ্গুলীসমুহ প্রসারিত করে রাখা।
  • রাসূল (ﷺ) প্রথম বার ব্যতিত অন্য কোন সময় হাত তুলেন নি।
  • নাক ও কপালের উপর সিজদা প্রদান।
  • সিজদার সময় চেহারা কোথায় রাখবে?
  • সপ্ত অঙ্গে সিজদা প্রদান।
  • সিজদার সময় দুই হাত পার্শ্বদেশ থেকে সরিয়ে রাখা।
  • সিজদায় মধ্যমপন্থা অবলম্বন।
  • সিজদায় ভূমিতে হস্তদয় স্থাপন করা এবং দুই পা খাড়া রাখা।
  • রুকু ও সিজদা থেকে মাথা তুলে পিঠ সোজা রাখা।
  • ইমামের আগে রুকু ও সিজদায় যাওয়া মাকরূহ।
  • দুই সিজদার মাঝে নিতম্ব ভূমিতে রেখে দুই হাঁটু খাড়া করে বসা মাকরূহ।
  • এই বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • দুই সিজদার মাঝের দু'আ।
  • সিজদার সময় কিছুতে ভর দেওয়া।
  • সিজদা থেকে কিভাবে দাঁড়াবে?
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • তাশাহুদ প্রসঙ্গ।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • নিঃশব্দে তাশাহুদ পড়া।
  • তাশাহুদের সময় কিভাবে বসতে হবে?
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • তাশাহুদে ইশারা প্রসঙ্গে।
  • সালাতে সালাম ফিরানো।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ
  • সালাম ছোট করা সুন্নত।
  • সালামের পর কি বলবে।
  • ডান ও বামদিকে ফিরা।
  • সালাতের বিবরণ।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • যোহর ও আসরের কিরাআত।
  • মাগরিবের কিরাআত।
  • এশার কিরাআত।
  • ইমামের পিছনে মুকতাদীর কিরাআত পাঠ।
  • ইমাম যখন জোরে কিরাআত করেন তখন তাঁর পিছনে মুকতাদীর কিরাআত না করা।
  • মসজিদে প্রবেশের দু’আ।
  • তোমাদের কেউ যখন মসজিদে প্রবেশ করবে তখন সে যেন দুই রাকআত সালাত আদায় করে।
  • কবরস্থান এবং গোসলখানা ব্যতীত সারা যমীনই মসজিদ।
  • মসজিদ নির্মাণের ফযীলত।
  • কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ মাকরূহ।
  • মসজিদে নিদ্রা যাওয়া।
  • মসজিদে ক্রয়-বিক্রয়, হারাম বস্তু তালাশ করা এবং কবিতা পাঠ অপছন্দনীয় কাজ।
  • তাকওয়ার উপর প্রতিষ্ঠিত মসজিদ প্রসঙ্গে।
  • কুবা মসজিদে সালাত আদায়ের ফযীলত।
  • কোন মসজিদটি শ্রেষ্ঠ।
  • মসজিদে হেঁটে আসা।
  • মসজিদে বসে থাকা এবং সালাতের অপেক্ষা করার ফযীলত।
  • চাটাই-এর উপর সালাত আদায় করা।
  • হাসীর বা চাটাই বা চাটাই-এর উপর সালাত আদায় করা।
  • বিছানার উপর সালাত আদায় করা।
  • বাগানে সালাত আদায় করা।
  • মুসুল্লীর সুতরা গ্রহণ।
  • মুসুল্লীর সামনে দিয়ে যাতায়াত করা নিন্দনীয়।
  • কোন বিষয়েই মুসল্লীর সালাত বিনষ্ট করতে পারে না।
  • কুকুর, গাধা ও মহিলা ছাড়া আর কেউ সালাত বিনষ্ট করতে পারে না।
  • এক কাপড়ে সালাত আদায় করা।
  • কিবলার শুরু।
  • পূর্ব ও পশ্চিমের মাঝে হল কিবলা।
  • মেঘের কারণে কিবলা ছাড়া অন্যদিকে ফিরে সালাত আদায় করা।
  • কোথায় কোথায় এবং কিসের দিকে ফিরে সালাত আদায় করা নিষেধ।
  • উট ও ছাগল রাখার ঘরে সালাত আদায় করা।
  • সওয়ারীর উপরে যেদিকে তা ফিরে সেদিকে ফিরে সালাত আদায় করা।
  • সওয়ারী সামনে রেখে সালাত আদায় করা।
  • যদি রাতের খানা হাযির হয়ে পড়ে আর এদিকে সালাতের ইকামাত হয়ে যায়, তবে আগে খানা খেয়ে নিবে।
  • তন্দ্রাচ্ছন্ন অবস্থায় সালাত আদায় করা।
  • কোন সম্প্রদায়ের সাথে সাক্ষাৎ করতে গেলে তাদের সালাতে যেন ইমামতি না করে।
  • কেবলমাত্র নিজের জন্য দু’আ করা ইমামের জন্য মাকরূহ।
  • মুসুল্লীদের অসন্তুুষ্টিতে যদি কেউ ইমামতি করে।
  • ইমাম যদি বসে সালাত আদায় করে তোমরাও বসে সালাত আদায় করবে।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • ইমাম দুই রাকআতের পর ভূলে দাঁড়িয়ে গেলে।
  • প্রথম দু’রাকআতের পর বসার পরিমাণ।
  • সালাতে ইশারা করা।
  • পুরুষদের জন্য সুবহানাল্লাহ্ পাঠ আর মহিলাদরে ক্ষেত্রে হয় হততালি।
  • সালাতে হাই তোলা মাকরূহ।
  • বসে সালাত আদায় করার সওয়াব দাঁড়িয়ে সালাত আদায়ের অর্ধেক।
  • কেউ যদি নফল সালাত বসে আদায় করে।
  • রাসূল (ﷺ) বলেন, আমি সালাতে শিশুর কান্না শুনতে পেলে সালাত সংক্ষেপ্ত করি।
  • যে মেয়ের ঋতুবতী হওয়ার বয়স হয়েছে, উড়নী ব্যবহার ছাড়া তার সালাত কবূল হয় না।
  • সালাতে সাদল অর্থাৎ কাঁধের উপর কাপড় লটকে রাখা মাকরূহ।
  • সালাতে কাঁকর সরান মাকরূহ।
  • সালাতে ফুঁ দেওয়া মাকরূহ।
  • সালাতে কোমরে হাত রাখা নিষেধ।
  • সালাতে চুল বাঁধা মাকরূহ।
  • সালাতে খুশূ-খুযূ অবলম্বন করা।
  • সালাতে হাতের আঙ্গুলের ফাঁকে আঙ্গুল প্রবেশ করান মাকরূহ।
  • সালাতে দীর্ঘ কিয়াম করা।
  • বেশি বেশি রুকূ-সিজদা করা এবং-এর ফযীলত
  • সালাতে সাপ-বিচ্ছু হত্যা করা।
  • সালামের পূর্বে সিজ্দা সাহ্উ করা।
  • সালাম ও কথাবার্তার পর সিজদা সাহ্উ করা।
  • সিজ্দা সাহ্উ-এর পর তাশাহ্হুদ পড়া।
  • সালাতে বেশি হ’ল না কম এই বিষয়ে যদি সন্দেহ হয়।
  • যোহর বা আসরের দুই রাকআতে সালাম করে ফেললে।
  • পাদুকা পরিহিত অবস্থায় সালাত আদায় করা।
  • ফজরের সালাতে দু’আ কুনুত পাঠ করা।
  • দু’আ কুনূত পাঠ না করা।
  • সালাতে হাঁচি আসলে।
  • সালাতে কথা বলার বিধান রহিত হয়ে গেছে।
  • তাওবার জন্য সালাত।
  • শিশুদের কখন সালাতের নিদের্শ দেওয়া হবে।
  • তাশাহ্হুদের পর উযূ নষ্ট হলে।
  • বৃষ্টির সময় নিজ নিজ বাসস্থানে সালাত আদায় করা।
  • সালাত শেষে তাসবীহ।
  • কাদা ও বৃষ্টিতে সওয়ারীর উপর সালাত।
  • সালাত আদায়ে শ্রম স্বীকার করা।
  • কিয়ামতের দিন বান্দার সর্ব প্রথম হিসাব হবে সালাতের
  • রাত-দিনে বার রাকআত সুন্নাত সালাত আদায়ের ফযীলত।
  • ফজরের দু’রাকআত (সুন্নাত)-এর ফযীলত।
  • ফজরের দু’রাকআত (সুন্নাত) সংক্ষিপ্ত করা এবং তাতে নবী (ﷺ)-এর কিরআত।
  • ফজরের দু‘রাকআত সুন্নাতের পর কথা বলা।
  • সুবহে সাদিকের পর ফজরের দু‘রাকআত (সুন্নাত) ব্যতীত অন্য কোন (নফল) সালাত নেই।
  • ফজরের দু’রাকআত (সুন্নাতের) পর শয়ন করা।
  • যখন সালাতের ইকামত হয়ে যাবে তখন ফরয সালাত ছাড়া সালাত নাই।
  • কারো যদি ফজরের পূর্বের দু’রাকআত (সুন্নাত) ছুটে যায় তবে ফজরের ফরযের পর তা আদায় করবে।
  • ফরযের পূর্বে ফজরের দু’রাকআত (সুন্নাত) আদায় না করা গেলে সূর্যোদয়ের পর এই দু’রাকআত আদায় করা,
  • যোহরের পূর্বে চার রাকআত।
  • যোহরের পর দু’রাকআত।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ
  • আসরের পূর্বে চার রাকআত ।
  • মাগরিবের দু’রাকআত (সুন্নাত) এবং এর কিরাআত।
  • এই দু’রাকআত ঘরে আদায় করা।
  • মাগরিবের পর ছয় রাকআত (নফল) সালাত আদায়ের ফযীলত।
  • এশার পর দু’রাকআত।
  • সালাতুল লায়ল (রাতের নফল) সালাত হ’ল দু’রাকআত দু’রাকআত করে।
  • সালাতুল লায়লের ফযীলত।
  • রাসূল (ﷺ) এর সালাতুল লায়লের বিবরণ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ
  • রাসূল (ﷺ) সালাতুল লায়লা না পড়ে শুয়ে গেলে দিনে আদায় করে নিতেন।
  • প্রত্যেক রাতেই আল্লাহ্ তা’আলা দুনিয়ার আকাশে নেমে আসেন।
  • রাতের কিরাআত।
  • নফল সালাত ঘরে আদায় করার ফযীলত।
  • ৩/ বিতর (أَبْوَابُ الْوِتْرِ) ৩৬ টি | ৪৫২-৪৮৭ পর্যন্ত 3/ The Book on Al-Witr
  • বিতরের ফযীলত।
  • বিতর ফরয নয়।
  • বিতরের পূর্বে নিদ্রা যাওয়া পছন্দনীয় নয়
  • রাতের প্রারম্ভে ও শেষভাগে বিতর আদায় করা।
  • বিতর সাত রাকআত।
  • বিতর পাঁচ রাকআত।
  • বিতর তিন রাকআত।
  • বিতর এক রাকআত।
  • বিতরে কি তিলাওয়াত করা হবে।
  • বিতরে দু’আ কুনূত পাঠ করা।
  • কেউ যদি বিতর আদায় না করে শুয়ে যায় বা তা আদায় করতে ভূলে যায়।
  • সুবহে সাদিক হওয়ার পূর্বেই বিতর আদায় করা।
  • এক রাতে দুইবার বিতর নেই।
  • যানবাহনের উপর বিতর আদায় করা।
  • দ্বিপ্রহরের সালাত।
  • সূর্য পশ্চিমে হেলে যাওয়ার সময় সালাত আদায় করা।
  • সালাতুল হাজত।
  • সালাতুল ইস্তিখারা।
  • সালাতুত তাসবীহ।
  • রাসূল (ﷺ) এর উপর সালাত (দরূদ) পাঠের নিয়ম।
  • নবী (ﷺ) এর উপর সালাত (দরূদ) পাঠের ফযীলত।
  • ৪/ জুমু'আ (كِتَاب الْجُمُعَةِ عَنْ رَسُولِ اللَّهِ ﷺ) ৪২ টি | ৪৮৮-৫২৯ পর্যন্ত 4/ The Book on the Day of Friday
  • সালাতুল জুমু’আর ফযীলত।
  • ইয়াওমুল জুমু’আর যে মুহুর্তটিতে দু’আ কবূলের আশা করা যায়।
  • জুমু’আর দিনে গোসল করা।
  • জুমু’আর দিনে গোসলের ফযীলত।
  • জুমু’আর দিনে উযূ করা।
  • সকাল সকাল জুমু’আর সালাতে হাযির হওয়া।
  • বিনা ওযরে জুমু’আর সালাত পরিত্যাগ করা।
  • কতটুকু দূর থেকে জুমু’আর জন্য আসা জরুরী।
  • জুমু’আর ওয়াক্ত।
  • মিম্বরে উঠে খুৎবা প্রদান।
  • দুই খুৎবার মাঝে বসা।
  • খুৎবা সংক্ষিপ্ত করা।
  • মিম্বরে উঠে কুরআন তিলাওয়াত।
  • খুৎবার সময় ইমামের সম্মুখে থাকা।
  • ইমাম খুতবা দিচ্ছেন এই অবস্থায় যদি কেউ মসজিদে আসে তবে ঐ ব্যক্তির জন্য দু’রাকআত (তাহিয়্যাতুল মসজিদ) সালাত আদায় করা।
  • ইমামের খুৎবা প্রদানের সময় কথা বলা জায়েয নয়।
  • জুমু’আর দিন মুসুল্লীদের ঘাড় ডিঙ্গিয়ে সামনে যাওয়া পছন্দনীয় নয়
  • ইমামের খুতবা প্রদানের সময় ইহতিবা (দুই হাঁটু খাড়া করে নিতম্বের উপর বসে হাত দিয়ে বা কোন কাপড় দিয়ে হাঁটুদ্বয় বেষ্টন করে বসা) পছন্দনীয় নয়
  • মিম্বরের উপরে দু’আর সময় হাত তোলা পছন্দনীয় নয়
  • জুমু’আর আযান।
  • মিম্বর থেকে ইমাম নেমে আসার পর কথা বলা।
  • জুমু’আর কিরাআত।
  • জুমু’আর দিন ফজরের সালাতে কি তিলাওয়াত করা হবে।
  • জুমু’আর পূর্বের ও পরের সালাত।
  • কেউ যদি জুমু’আর এক রাকআত পায়।
  • জুমু’আর দিন দুপুরের বিশ্রাম।
  • জুমু’আর সময় তন্দ্রা এলে জায়গা পরিবর্তন করে নিবে।
  • জুমু’আর দিন মিসওয়াক করা এবং সুগদ্ধি ব্যবহার করা।
  • ৫/ ঈদ (أَبْوَابُ الْعِيدَيْنِ عَنْ رَسُولِ اللَّهِ ﷺ) ১৪ টি | ৫৩০-৫৪৩ পর্যন্ত 5/ The Book on the Two Eids
  • ঈদের দিন ঈদগাহে হেঁটে যাওয়া।
  • খুৎবার পূর্বে ঈদের সালাত আদায় করা।
  • ঈদের সালাত আযান ও ইকামত নেই।
  • সালাতুল ঈদের কিরআত।
  • দুই ঈদের তাকবীর।
  • ঈদের পূর্বে বা পরে কোন সালাত নেই।
  • সালাতুল ঈদায়নে শরীক হওয়ার জন্য মহিলাদের বহির্গমন।
  • রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ঈদের সালাতে এক পথে যেতেন অন্য পথে আসতেন।
  • ঈদুল ফিতরের দিন ঈদগাহের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার পূর্বে আহার করা।
  • ৬/ সফর (أَبْوَابُ السَّفَرِ) ৭১ টি | ৫৪৪-৬১৪ পর্যন্ত 6/ The Book on Traveling
  • সফরকালে কসর করা।
  • কত দিন কসর সালাত আদায় করা হবে।
  • সফরে নফল সালাত আদায় করা।
  • দুই ওয়াক্তের সালাত একত্রে আদায় করা।
  • সালাতুল ইস্তিসকা।
  • কুসূফ বা সূর্য গ্রহণের সালাত।
  • সালাতুল কুসূফের কিরআত।
  • সালাতুল খাওফ।
  • কুরআনের সিজদা-এ-তিলাওয়াতসমূহ।
  • মহিলাদের মসজিদে গমন।
  • মসজিদে থু থু ফেলা মাকরূহ।
  • সূরা ইনশিকাক এবং সূরা আলাক-এর সিজদা।
  • সূরা আন্-নাজমের সিজ্দা।
  • এতে সিজদা নাই বলে যারা মনে করেন।
  • সুরা সোয়াদ-এর সিজদা।
  • সূরা হজ্জ-এ সিজদা।
  • সিজদা-এ কুরআনের দু’আ।
  • যদি কারো রাত্রের জন্য নির্ধারিত ইবাদতের কিছু অংশ ফওত হয়ে যায় তবে সে দিনের বেলায় তা পূরণ করবে।
  • ইমামের পূর্বে যে মাথা উঠায় তার সম্পর্কে কঠোর সতর্কবাণী।
  • শীত ও গ্রীষ্মে কাপড়ের উপর সিজদা প্রদানের অবকাশ প্রসঙ্গে।
  • ফজরের সালাতের পর সূর্যোদয় পর্যন্ত মসজিদে বসে থাকা মুস্তাহাব।
  • সালাতে চোখ ঘুরিয়ে এদিক সেদিক দেখা।
  • কেউ যদি ইমামকে সিজদারত পায় তবে কি করবে।
  • সালাতের শুরুতে দাঁড়িয়ে ইমামের অপেক্ষা করা মাকরূহ।
  • দু’আর পূর্বে আল্লাহর সানা ও গুণকীর্তন করা এবং নবীজী (ﷺ)-এর জন্য সালাত পাঠ করা।
  • মসজিদে সুগন্ধি লাগান।
  • রাত ও দিনের সালাত হ’ল দুই দুই রাকআত করে।
  • রাসূল (ﷺ) কেমন করে দিনের নফল সালাত আদায় করতেন।
  • মহিলাদের চাদরে সালাত আদায় করা মাকরূহ।
  • নফল সালাতরত অবস্থায় হাঁটা ও কাজ করা।
  • এক রাকআতে দুই সূরা পাঠ করা।
  • মসজিদে হেঁটে যাওয়ার ফযীলত এবং এতে প্রতি কদমে কত বিনিময় লিখা হয়।
  • মাগরিবের পরে (নফল) নামায ঘরে পড়া উত্তম।
  • ইসলাম গ্রহণকালে গোসল করা।
  • শৌচাগারে প্রবেশের সময় বিসমিল্লাহ্‌ বলা।
  • কিয়ামতের দিন উম্মতের বিশেষ নিদর্শন হবে উযূ ও সিজদার চিহ্ন।
  • উযুতে ডানদিকে অবলম্বন করা মুস্তাহাব।
  • কততুকু পানি উযুর জন্য যথেষ্ট।
  • দুগ্ধপোষ্য ছেলের পেশাব (পাক করার জন্য) পানি ছিঁটিয়ে দেওয়া।
  • যার উপর গোসল করা ফরয সে যদি উযূ করে নেয় তবে তার জন্য খাদ্য গ্রহণ ও নিদ্রা গমনের অনুমতি রয়েছে।
  • সালাতের ফযীলত।
  • এই বিষয়ে আর একটি অনুচ্ছেদ।
  • ৭/ যাকাত (كتاب الزكاة عن رسول الله ﷺ) ৬৪ টি | ৬১৫-৬৭৮ পর্যন্ত 7/ The Book on Zakat
  • যাকাত প্রদানে অস্বীকৃতির জন্য কঠোর শাস্তি।
  • যাকাত আদায় করে দিলে তোমার (সম্পদ) উপর যা কর্তব্য ছিল তা তুমি পূর্ণ করলে।
  • স্বর্ণও রৌপ্যের যাকাত।
  • উট ও ছাগলের যাকাত।
  • গরুর যাকাত।
  • যাকাত হিসাবে উত্তম মাল সংগ্রহ করা নিষেধ।
  • ফল, ফসল ও শস্যের যাকাত।
  • ঘোড়া ও দাস-দাসীর যাকাত নেই।
  • মধুর যাকাত।
  • পূর্ণ বছ আবর্তিত না হওয়া পর্যন্ত বছরের মাঝে প্রাপ্ত সম্পদে যাকাত নেই।
  • মুসলিমদের উপর জিযয়া নেই।
  • অলংকারের যাকাত।
  • শাক-সবজির যাকাত ।
  • নদী-নালার পানি সিঞ্চনে যা উৎপাদিত হয় তার যাকাত।
  • ইয়াতীমের সম্পদে যাকাত।
  • বোবা জন্তুর আঘাতের কোন দায়-দায়িত্ব নেই এবং খনিজ সম্পদের উপর এক পঞ্চামাংশ ওয়াজিব।
  • (যাকাতের জন্য) ফসলাদির অনুমান করা।
  • ন্যায়ভাবে যাকাত সংগ্রহকারী।
  • যাকাত সংগ্রহের ক্ষেত্রে সীমালংঘনকারী।
  • যাকাত আদায়কারীর সন্তুষ্টি।
  • ধনীদের থেকে যাকাত গ্রহণ করা হবে এবং দরিদ্রদের মধ্যে তা বন্টন করে দেওয়া হবে।
  • যাদের জন্য যাকাত হালাল।
  • কার জন্য সাদাকা হালাল নয়?
  • দায়গ্রস্তও অন্যান্য যাদের জন্য সাদাকা হালাল।
  • নবী (ﷺ) তাঁর আহলে বায়ত এবং তাঁর আযাদকৃতদের জন্য সাদাকা নিষিদ্ধ।
  • নিকট আত্নীয়দের সাদাকা দেওয়া।
  • যাকাত ছাড়াও ধন-সম্পদের হক রয়েছে।
  • সাদাকার ফযীলত।
  • যাঞ্ছাকারীর হক।
  • মুআল্লাফাতুল কুলুবদের প্রদান করা।
  • সাদকাদাতা যদি তার সাদকাকৃত সম্পদের ওয়ারিস হয়।
  • সাদকা ফিরিয়ে নেওয়া নিষিদ্ধ।
  • মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে সাদাকা করা।
  • স্বামীর ঘর থেকে স্ত্রীর ব্যয় করা।
  • সাদাকাতু ফিতর।
  • সালাতের পূর্বেই ফিতরা আদায় করা।
  • যাকাত আদায়ের ত্বরাণ্বিত করা।
  • ভিক্ষা করা নিষিদ্ধ।
  • ৮/ সাওম (রোজা) (كتاب الصوم عن رسول الله ﷺ) ১২৮ টি | ৬৭৯-৮০৬ পর্যন্ত 8/ The Book on Fasting
  • রামাযান মাসের ফযীলর।
  • রামাযান মাস আগমনের পূর্বক্ষনে সিয়াম পালন করবে না।
  • সন্দেহযুক্ত দিনে সিয়াম পালন মাকরূহ।
  • রামাযানের উদ্দেশ্য শা’বানের চাঁদের গণনা।
  • চাঁদ দেখে সিয়াম পালন করা এবং চাঁদ দেখে তা ভঙ্গ করা।
  • মাস ঊনত্রিশ দিনে ও হয়।
  • সাক্ষীর উপর ভিক্তি করে সিয়াম পালন।
  • দুই ঈদের মাস কম হয় না।
  • যা দিয়ে ইফতার করা মুস্তাহাব।
  • সাওম হল যেদিন তোমরা সাওম পালন কর, ঈদুল ফিতর হল যেদিন তোমরা ইফতার কর, আর ঈদুল আযহা হল যেদিন তোমরা কুরবাণী কর।
  • যখন রাত আসে ও দিন চলে যায় তখন সিয়াম পালনকারী ইফতার করবে।
  • অবিলম্বে ইফতার করা।
  • বিলম্বে সাহরী খাওয়া।
  • ফজরের বিবরণ।
  • সিয়াম পালনকারীর জন্য গীবত করার বিষয়ে কঠোরতা।
  • সাহরী খাওয়ার ফযীলত।
  • সফরে সিয়াম পালন পছন্দনীয় নয়
  • সফরে সিয়াম পালনের অবকাশ।
  • যোদ্ধাদের সিয়াম ভঙ্গের অনুমতি।
  • গর্ভবর্তী ও দুগ্ধদানকারিনীর জন্য সিয়াম পালন না করার অনুমতি।
  • মৃত ব্যক্তি পক্ষ থেকে সিয়াম আদায়।
  • সিয়ামের কাফ্ফারা।
  • সায়িমের অনিচ্ছাকৃত বমি।
  • (সায়িম অবস্থায়) যে ব্যক্তি ইচ্ছা করে বমি করে।
  • সায়িম যদি ভুলে কিছু খান বা পান করেন।
  • যদি কেউ স্বেচ্ছায় সাওম ভঙ্গ করে।
  • রামাযানের সিয়াম ভঙ্গ করার কাফফারা।
  • সিয়াম পালনকারীর মিস্ওয়াক করা।
  • সিয়াম অবস্থায় সুরমা ব্যবহার।
  • সিয়াম অবস্থায় (নিজ স্ত্রীকে) চুম্বন করা।
  • সিয়াম অবস্থায় আলিঙ্গন করা।
  • রাত্রি থেকে সংকল্প না করলে সিয়াম হয়না।
  • নফল সাওম পালনকারীর ইফতার করে ফেলা।
  • ভোর থেকে নফল সাওম পালন করা।
  • নফল সিয়াম পালনকারী যদি তার সিয়াম ভেঙ্গে ফেলে তবে তার উপর তা কাযা করা ওয়াজিব।
  • শাবানকে রামাযানের সঙ্গে মিলিত করা।
  • রামাযানের সম্মানার্থে শা'বানের শেষ অর্ধাংশে সিয়াম পালন অপছন্দনীয়।
  • মধ্য শা‘বান রাত্রির ফযিলত।
  • মুহাররাম মাসের সাওম পালন।
  • জুমু‘আর দিনের সিয়াম পালন।
  • কেবল জুমু‘আ বারের সিয়াম পালন মাকরূহ।
  • শনিবারের সিয়াম পালন।
  • সোমবার ও বৃহস্পতিবারের সিয়াম পালন ।
  • বুধ ও বৃহস্পতিবার সিয়াম পালন।
  • আরাফা দিবসের সিয়াম পালনের ফযিলত।
  • আরাফা অবস্থানরত অবস্থায় সে দিনের সিয়াম পালন পছন্দনীয় নয়।
  • আশূরা দিবসের সিয়াম পালনে উৎসাহিত করা।
  • আশূরা দিবসের সিয়াম পালন না করার অবকাশ।
  • আশূরা কোন দিন?
  • যিলহজ্জ মাসের (প্রথম) দশকে সিয়াম পালন।
  • যিলহজ্জ মাসের দশ দিনের আমলের ফযীলত।
  • শাউয়ালের ছয় দিন সিয়াম পালন।
  • প্রতিমাসে তিন দিন সিয়াম পালন করা।
  • সাওমের ফযীলত।
  • সারা বছর সাওম পালন করা।
  • একাধারে সাওম পালন করা।
  • ঈদুল ফিতর ও কুরবানীর ঈদে সাওম পালন করা হারাম।
  • আয়্যামে তাশরীক এ সিয়াম পালন হারাম।
  • সাওম পালনকারীর জন্য শিংগা লাগান মাকরূহ।
  • এই বিষয়ে অবকাশ প্রসঙ্গে।
  • সাওমে বিসাল না জায়িজ।
  • কারো জুনুবী (ফরয গোসল) অবস্থায় যদি ফজর হয়ে যায় আর তার যদি সাওম পালনের ইচ্ছা থাকে।
  • সাওম অবস্থায় দাওয়াত কবুল করা।
  • স্বামীর অনুমতি ব্যতিরেকে মহিলাদের (নফল) সিয়াম পালন মাকরূহ।
  • রামাযানের সিয়ামের কাযা পালন ক্ষেত্রে বিলম্ব করা।
  • সিয়াম পালনরত ব্যক্তির নিকট পানাহার হলে তার ফযীলত।
  • ঋতুবতী মহিলার সিয়াম কাযা করতে হবে, সালাত কাযা করতে হবে না।
  • সায়িমের জন্য নাকে পানি দেয়ার ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি করা মাকরূহ।
  • কেউ যদি কোন কাওমের মেহমান হয় তবে যেন সে তাদের অনুমতি ব্যতিরেকে (নফল) সাওম পালন না করে।
  • ই‘তিকাফ।
  • লায়লাতুল ক্বাদর।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • শীতকালের সিয়াম।
  • و على الذين يطيقونه الاية প্রসঙ্গে।
  • কেউ যদি আহার করার পর সফরের উদ্দেশ্যে বের হয়।
  • সিয়াম পালনকারীর তোহফা।
  • ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা কখন হয়।
  • ই‘তিকাফ ছেড়ে বের হয়ে পড়লে।
  • ইতিকাফকারী প্রয়োজনে বের হতে পারে কি না?
  • রামাযান মাসের কিয়াম।
  • সায়িমকে ইফতার করানোর ফযীলত।
  • রামাযানের সিয়াম- এর প্রতি উৎসাহিত করা এবং এর ফযীলত।
  • ৯/ হাজ্জ (হজ্জ) (كتاب الحج عن رسول الله ﷺ) ১৬১ টি | ৮০৭-৯৬৭ পর্যন্ত 9/ The Book on Hajj
  • মক্কার মর্যাদা ও সম্মান প্রসঙ্গে।
  • হজ্জ ও উমরার সাওয়াব প্রসঙ্গে।
  • হজ্জ পরিত্যাগ করা সম্পর্কে কঠোর সতর্কবাণী।
  • পাথেয় ও বাহন যোগাড়ে সক্ষম হলে হজ্জ ফরয হয়।
  • কতবার হজ্জ করা ফরয।
  • নবী (ﷺ) কয়বার হজ্জ পালন করেছেন।
  • নবী (ﷺ) কতবার উমরা করেছেন।
  • কোন জায়গা থেকে নবী (ﷺ) ইহরাম বেঁধেছেন।
  • নবী (ﷺ) কখন ইহরাম বাঁধেন।
  • ইফরাদ হজ্জ প্রসঙ্গে।
  • হজ্জ ও উমরা একসঙ্গে আদায় করা।
  • তামাত্তু হজ্জ।
  • তালবিয়া প্রসংগে।
  • তালবিয়া ও নাহরের ফযীলত।
  • উচ্চস্বরে তালবিয়া পাঠ করা।
  • ইহরামের সময় গোসল করা।
  • মক্কায় হারাম শরীফের বাইরের লোকদের জন্য ইহরাম বাধার নির্ধারিত স্থান।
  • যে সব পোশাক মুহরিম (ইহরাম রত) ব্যক্তির জন্য পরিধান করা জায়িয নয়।
  • ইহরাম পালনকারী ব্যক্তির যদি তহবন্দ ও চপ্পল জোগাড় করতে না পারে তবে তার পায় জামা ও চামড়ার মোজা পরিধান করা।
  • কোন ইহরাম পালনকারী ব্যক্তির গায়ে জামা বা জুব্বা থাকলে।
  • ইহরাম পালনকারী ব্যক্তি কি কি প্রাণী হত্যা করতে পারে?
  • ইহরাম পালনকারীর সিঙ্গা লাগানো।
  • ইহরাম পালনকারীর বিবাহ করা মাকরুহ।
  • এই বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • শিকারের গোশত মুহরিমের পক্ষে খাওয়া।
  • মুহরিমের জন্য শিকারের গোশত আহার করা না জায়িজ।
  • মুহরিমের জন্য জলজ শিকার।
  • মুহরিমের জন্য দাবু‘ শিকার করা।
  • মক্কা শরীফে প্রবেশের জন্য গোসল করা।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর মক্কার উচ্চভূমি (কাদা) দিয়ে প্রবেশ করা এবং নিম্নভূমি (কুদা) দিয়ে বের হওয়া।
  • নবী (ﷺ) দিনের বেলায় মক্কা প্রবেশ করেছিলেন।
  • বায়তুল্লাহ শরীফ দর্শনকালে হাত তোলা মাকরূহ।
  • তাওয়াফ করার পদ্ধতি।
  • হাজরে আসওয়াদ থেকে আবার হাজরে আসওয়াদ পর্যন্ত রমল করা।
  • কেবল হাজরে আসওয়াদ ও রুকনে ইয়ামানীর ইস্তিলাম করা।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) ইযতিবা অবস্থায় তাওয়াফ করেছেন।
  • হাজরে আসওয়াদে চুম্বন দেওয়া।
  • মারওয়ার আগে সাফা থেকে সাঈ শুরু করা।
  • সাফা ও মারওয়ার মাঝে সাঈ করা।
  • আরোহী অবস্থায় তাওয়াফ করা।
  • তাওয়াফের ফযীলত।
  • তাওয়াফকারীর জন্য তাওয়াফের ক্ষেত্রে আসর ও ফজরের পরে সালাতুল তাওয়াফ আদায় করা।
  • তাওয়াফের দু‘রাকআত সালাতে কি তিলাওয়াত করা হবে?
  • উলঙ্গ হয়ে তাওয়াফ করা নিষিদ্ধ।
  • কাবা শরীফের অভ্যন্তরে প্রবেশ করা।
  • কাবা শরীফের অভ্যন্তরে সালাত আদায় করা।
  • (নির্মাণকালে) কাবা শরীফ ভাঙ্গা।
  • হিজর বা হাতীমে সালাত আদায় করা।
  • হাজরে আসওয়াদ রুকন ও মাকামে ইবরাহীমের ফযীলত।
  • মিনা গমন এবং সেখানে অবস্থান।
  • যিনি মিনায় যে স্থানে আগে পৌছবেন সেটি হবে তার অবস্থানস্থল।
  • মিনায় সালাত কসর করা।
  • আরাফাতে অবস্থান এবং সেখানে দু‘আ করা।
  • গোটা আরাফাই আরাফাই উকূফ স্থল।
  • আরাফা থেকে প্রত্যাবর্তন।
  • মুযদালিফায় মাগরিব ও এশা একত্রে আদায় করা।
  • যে ব্যাক্তি মুযদালিফায় ইমামকে পাবে সে হজ্জ পেল বলে গন্য হবে।
  • দুর্বল লোকদের মুযদালিফা থেকে রাত্রেই যাত্রা ত্বরান্বিত করা ।
  • (১০ ই যিল হজ্জ ) চাশতের সময় রমী করা।
  • মুযদালিফা থেকে সূর্যোদয়ের পূর্বেই রওয়ানা হওয়া।
  • ছোট কঙ্কর দিয়ে রমী করা হবে।
  • যাওয়াল বা মধ্যা‎‎হ্নর পর রমী করা।
  • আরোহী এবং হাঁটা অবস্থায় রমী করা।
  • কিভাবে রমী জামরা করা হবে।
  • রমী জামরার সময় লোকদের হাকিয়ে সরিয়ে দেয়া মাকরুহ।
  • উট ও গরু কুরবানীতে শরীক হওয়া।
  • হাদী হিসাবে প্রেরিত উটকে ইশআর করা ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • মুকিমের জন্য হজ্জের কুরবানীর পশুর গলায় মালা লটকানো।
  • কুরবানীর বকরির গলায় মালা পরানো।
  • হজ্জের কুরবানীর পশু যদি চলতে অক্ষম হয়ে যায় তবে কি করা হবে।
  • কুরবানীর উটের উপরে আরোহণ করা।
  • মাথার কোন্ পাশ দিয়ে মুন্ডন শুরু করবে।
  • মুণ্ডন করা ও চুল ছোট করা।
  • মহিলাদের মাথা মুন্ডন করা নিষিদ্ধ।
  • যবাহের পূর্বে মাথা মুণ্ডন বা কঙ্কর মারার পূর্বে যবাহ করে ফেললে।
  • তওয়াফে যিয়ারতের পূর্বে হালাল হওয়ার সময় সুগন্ধি ব্যবহার করা।
  • হজ্জে কখন থেকে তালবিয়া পাঠ বন্ধ করা হবে।
  • উমরার ক্ষেত্রে কখন তালবিয়া পাঠ বন্ধ করা হবে।
  • রাত্রিকালে তাওয়াফে যিয়ারত করা।
  • আবতাহ- এ অবতরণ করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • শিশুদের হজ্জ।
  • অতি বৃদ্ধ ও মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে হজ্জ করা।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • উমরা ওয়াজিব কি - না।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • উমরার ফযীলত।
  • তানঈম থেকে উমরা করা।
  • জি’ইরানা থেকে উমরা করা।
  • রজব মাসে উমরা করা।
  • যুল কা’দায় উমরা করা ।
  • রমাযানে উমরা পালন করা।
  • হজ্জের ইহরাম বাঁধার পর যদি কোন ব্যক্তির কোন অঙ্গ ভেঙ্গে যায় বা সে লেংড়া হয়ে যায় ।
  • হজ্জে শর্ত আরোপ করা।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • তাওয়াফে যিয়ারতের পর কোন মহিলার ঋতুস্রাব হলে।
  • ঋতুবী মহিলা হজ্জের কি কি আমল করতে পারবে।
  • যে কেউ হজ্জ বা উমরা করবে তার শেষ আমল যেন বায়তুল্লাহ সংশ্লিষ্ট হয় ।
  • কিরান হজ্জ পালনকারী এক তাওয়াফই করবে।
  • মিনা থেকে ফিরার পর মুহাজিরগণ মক্কায় তিন দিন অবস্থান করতে পারেন।
  • হজ্জ ও উমরা সম্পাদন করে ফিরার সময়ের দু’আ।
  • ইহরামরত অবস্থায় যদি ইহরামকারী মৃত্যুবরণ করে।
  • ইহরামরত ব্যক্তির চক্ষু রোগ হলে তাতে ঔষধ হিসাবে সাবির বৃক্ষের রস ব্যবহার করা।
  • ইহরাম পালনকারী ব্যক্তি ইহরাম অবস্থায় মাথা মুন্ডন করে ফেলেন তার উপর কি বর্তাবে।
  • রাখালদের জন্য একদিন রমী করে অপর দিনের পরিত্যগের অবকাশ প্রদান।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • الْحَجِّ الأَكْبَرِ এর দিন সম্পর্কে।
  • হাজরে আসওয়াদ ও রুকনে ইয়ামানী স্পর্শ করা।
  • তাওয়াফে কথাবার্তা বলার বিষয়ে।
  • হাজরে আসওয়াদ সম্পর্কে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ১০/ কাফন-দাফন (كتاب الجنائز عن رسول الله ﷺ) ১১২ টি | ৯৬৮-১০৭৯ পর্যন্ত 10/ The Book on Janaiz (Funerals)
  • রোগ ভোগের ছাওয়াব।
  • রোগীর খোঁজ-খবর নেওয়া।
  • মৃত্যু কামনার প্রতি নিষেধাজ্ঞা।
  • অসুস্থ ব্যক্তির জন্য ঝাড়-ফুক করা।
  • ওয়াসিয়াত করতে উৎসাহিত করা।
  • এক- তৃতীয়াংশ বা এক- চতুর্থাংশ সম্পদের ওয়াসিয়্যাত করা।
  • রুগ্ন ব্যক্তিকে মৃত্যুর সময় কালিমা শোনানো এবং তার জন্য দু’আ করা।
  • মৃত্যুর সময় কষ্ট হওয়া।
  • কপালের ঘাম সহ মুমিনের মৃত্যু হয়।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • কোন ব্যক্তির মৃত্যুর প্রচারণা মাকরূহ্।
  • কষ্টের প্রথম মুহূর্তেই ধৈর্যধারণ করা।
  • মৃত ব্যক্তিকে চুম্বন প্রদান।
  • মুর্দাকে গোসল করান।
  • মায়্যিতের জন্য মিশক আম্বর ব্যবহার করা।
  • মুর্দাকে গোসল দিয়ে নিজে গোসল করা।
  • কোন ধরনের কাফন মুস্তাহাব।
  • অনুরূপ আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • কয়টি কাপড়ে নবী (ﷺ) কে কাফন দেওয়া হয়েছিল।
  • মৃত ব্যক্তির পরিবার-পরিজনদের জন্য আহার্য প্রস্তুত করা।
  • মুসীবতে পড়ে গালে হাত চাপড়ানো ও কাপড় ছিড়ে ফেলা নিষেধ।
  • বিলাপ অনুষ্ঠান করা দোষণীয়।
  • মৃত ব্যক্তির জন্য কান্না-কাটি করা দোষণীয়।
  • মৃত ব্যক্তির জন্য নিরব কান্নার অনুমতি।
  • জানাযা-এর সামনে চলা।
  • জানাযার পিছনে চলা।
  • জানাযার পিছনে সওয়ার হয়ে চলা মাকরূহ।
  • এই বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • জানাযা নিয়ে জলদি করা।
  • উহুদ যুদ্ধের শহীদগণ এবং হামযা (রা)-এর আলোচনা
  • আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • জানাযা রাখার আগে বসা।
  • মসিবতের ফযীলত, যদি তার উপর ছওয়াবের আশা করে।
  • সালাতুল জানাযা-এর তাকবীর।
  • সালাতুল জানাযার দু’আ।
  • সালাতুল জানাযায় সূরা ফাতিহা পাঠ করা।
  • সালাতুল জানাযা ও মৃত ব্যক্তির জন্য শাফাআতের পদ্ধতি।
  • সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের সময় সালাতুল জানাযা মাকরূহ।
  • শিশুদের জন্য সালাতুল জানাযা।
  • জন্মের পর কান্নাকাটি না করা পর্যন্ত শিশুদের জন্র সালাতুল জানাযা আদায় পরিত্যাগ করা।
  • মসজিদে সালাতুল জানাযা আদায় করা।
  • মহিলা বা পুরুষের জানাযায় ইমাম কোথায় দাঁড়াবেন?
  • শহীদের জন্য সালাতুল জানাযা ত্যাগ করা।
  • কবরে সালাতুল জানাযা আদায় করা।
  • নবী (ﷺ) কর্তৃক নাজাশীর জন্য সালাতুল জানাযা আদায় করা।
  • সালাতুল জানাযার ফযীলত।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ
  • জানাযার জন্য উঠে দাঁড়ান।
  • জানাযার জন্য না দাঁড়ানোর অবকাশ।
  • নবী (ﷺ) এর বাণী ‘লাহদ’ জাতীয় কবর আমাদের আর ‘শাক’ জাতীয় কবর অন্যদের।
  • মৃত ব্যক্তিকে কবরে দাখল করার কালে দু’আ।
  • কবরে মৃত ব্যক্তির নীচে একটি কাপড় বিছিয়ে দেওয়া।
  • কবর সমান করে দেওয়া।
  • কবরকে পদদলিত করা বা এর উপর বসা মাকরূহ।
  • কবরে চুনা ব্যবহার করা এবং তাতে লেখা মাকরূহ।
  • কবরস্থানে প্রবেশের দু’আ।
  • কবর যিয়ারতের অনুমতি।
  • মহিলাদের জন্য কবর যিয়ারত করা মাকরূহ।
  • রাত্রিতে দাফন করা।
  • মৃত ব্যাক্তির প্রসংশা করা।
  • যে তার সন্তানকে অগ্রে পাঠিয়ে দেয় তার ছাওয়াব।
  • শহীদ কাদের বুঝায়?
  • প্লেগ থেকে পলায়ন নিষিদ্ধ।
  • যে জন আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাতকে ভালবাসে আল্লাহও তার সাক্ষাতকে ভালবাসেন।
  • যে ব্যক্তি আত্মহত্যা করবে তার সালাতুল জানাযা আদায় করা হবে না।
  • ঋণগ্রস্ত ব্যাক্তির জানাযা প্রসঙ্গে।
  • কবরের আযাব।
  • বিপদগ্রস্থ লোককে সান্তনা দেওয়ার ছাওয়াব।
  • জুমআ বারের মৃত্যু।
  • জানাযা তাড়াতাড়ি আদায় করা।
  • তা’যিয়া বা শোক সন্তপ্ত পরিবারের সান্ত্বনা দান সম্পর্কে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • সালাতুল জানাযায় দুই হাত উঠানো।
  • ঋণের কারণে মু’মিনের রূহ লটকে থাকে, যে পর্যন্ত না তা আদায় করা হয়।
  • ১১/ বিবাহ (كتاب النكاح عن رسول الله ﷺ) ৬৭ টি | ১০৮০-১১৪৬ পর্যন্ত 11/ The Book on Marriage
  • বিবাহের ফযীলত এবং এতদ্বিষয়ে উৎসাহিত করা।
  • বিবাহ থেকে বিরত থাকা নিষিদ্ধ।
  • যার দীন তোমাদের কাছে পছন্দনীয় হয় তাকে বিয়ে কর।
  • তিন গুণের ভিত্তিতে মেয়েদের বিবাহ করা।
  • প্রস্তাবিত পাত্রী দেখা।
  • বিবাহের ঘোষণা।
  • নব দম্পতির জন্য দু’আ।
  • স্ত্রীর সাথে মিলনের দুআ।
  • বিবাহ করার সুন্নাত সময়।
  • ওয়ালীমা প্রসঙ্গে।
  • দাওয়াতকারীর দাওয়াত কবূল করা।
  • বিনা দাওয়াতে ওয়ালীমা খেতে আসা।
  • কুমারী বিবাহ করা।
  • ওলী ছাড়া বিয়ে হয় না।
  • সাক্ষী ছাড়া বিবাহ হয় না।
  • বিবাহের খূৎবা।
  • কুমারী ও অকুমারী মহীলাদের অনুমতি গ্রহণ।
  • ইয়াতিম কুমারীকে জবরদস্তিমূলক বিয়ে দেওয়া।
  • যদি দুই ওলী (অভিভাবক) বিবাহ দেয়।
  • মালিকের অনুমতি ছাড়া গোলামের বিয়ে।
  • মহিলাদের দেনমহর।
  • অনুরূপ আরেকটি অধ্যায়।
  • দাসীকে আযাদ করে বিবাহ করা।
  • স্বীয় দাসী আযাদ করে তাকে বিবাহ করার ফযীলত।
  • কোন মহিলাকে বিবাহ করার পর তার সাথে মিলনের পূর্বেও যদি তাকে তালাক দেওয়া হয় তবে তার কন্যার সাথে বিবাহ করা জাইয কি-না।
  • কেউ যদি তার স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়ে দেয় পরে সেই মহিলা যদি অন্য একজনকে বিয়ে করে এবং এ স্বামীও মিলিত হওয়ার পূর্বেই যদি তাকে তালাক দিয়ে দেয়।
  • হিলা কারী এবং যার জন্য হিলা করা হয়।
  • মুত’আ বিবাহ হারাম।
  • 'শিগার' নিকাহ নিষিদ্ধ।
  • কোন মহিলাকে তার ফুফু খালার উপর (সতীনরূপে) বিয়ে করা যাবে না।
  • বিবাহের আকদের সময়কার শর্ত।
  • যে ইসলামে গ্রহণ করল এবং তার দশজন স্ত্রী ছিল।
  • একজন ইসলাম গ্রহণ করল এবং তার কাছে দুই বোন (স্ত্রী হিসেবে) আছে।
  • কোন গর্ভবতী দাসী ক্রয় করলে।
  • কয়েদী বাঁদীর স্বামী থাকলে তার সঙ্গে মালিকের জন্য মিলন কি হালাল হবে?
  • ব্যভিচারীনীর উপার্জন হারাম।
  • কেউ তার মুসলিম ভাইয়ের প্রস্তাবের উপর প্রস্তাব দিবে না।
  • আযল।
  • আযল নিষিদ্ধ হওয়া।
  • কুমারী ও অকুমারী স্ত্রীদের ক্ষেত্রে বন্টন নীতি।
  • সতীনদের মাঝে সম আচরণ করা।
  • মুশরিক দম্পতির একজন যদি ইসলাম গ্রহণ করে।
  • স্ত্রীর মহরানা নির্ধারণের পূর্বেই যদি স্বামী মারা যায়।
  • ১২/ শিশুদের দুগ্ধপান (كتاب الرضاع) ২৯ টি | ১১৪৭-১১৭৫ পর্যন্ত 12/ The Book on Suckling
  • নসব সূত্রে যারা হারাম রাযাআতে (দুগ্ধপান) সূত্রেও তারা হারাম।
  • যে পুরুষের মাধ্যমে স্ত্রী দুগ্ধবতী হয় তার বিধান।
  • এক-দুই চুমুক (ঢোক) দুগ্ধ পানে হারাম হয় না।
  • দুগ্ধপানের ক্ষেত্রে এক মহিলার সাক্ষ্য।
  • দুই বছর কম বয়সের শিশু অবস্থায় দুগ্ধপান ছাড়া তাতে কেউ হারাম হয় না।
  • যদ্বারা দুগ্ধপানের হক মিটানো যায়।
  • স্বামী থাকা অবস্থায় যদি কোন ক্রীতদাসী আযাদ হয়।
  • সন্তান হলো শয্যার অধিকারীর।
  • এমন মহিলাকে দেখলে যে তার কাছে আকর্ষনীয় বোধ হয়।
  • স্ত্রীর উপর স্বামীর হক।
  • স্বামীর উপর স্ত্রীর হক।
  • পশ্চাৎ দ্বার দিয়ে স্ত্রী গমন হারাম।
  • সাজ-সজ্জা করে মহিলাদের বাইরে যাওয়া হারাম।
  • গায়রত ও আত্মমর্যাদাবোধ।
  • স্ত্রীলোকের একা একা সফর করা অপছন্দনীয়।
  • অনুপস্থিত স্বামীর স্ত্রীর কাছে যাওয়া নিষেধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ১৩/ তালাক ও লি’আন (كتاب الطلاق واللعان عن رسول الله ﷺ) ৩২ টি | ১১৭৬-১২০৭ পর্যন্ত 13/ The Book on Divorce and Li'an
  • সুন্নাহ অনুযায়ী তালাক।
  • কেউ যদি স্ত্রীকে ‘‘আলবাত্তা" (অকাট্য) শব্দে তালাক দেয়।
  • তোমার ব্যাপার তোমার হাতে বলা প্রসঙ্গে।
  • ইখতিয়ার দান প্রসঙ্গে।
  • তিন তালাক প্রাপ্তা স্ত্রী (স্বামীর পক্ষ থেকে ) বাসস্থান পাবে না খোরপোষও পাবে না।
  • বিবাহের পূর্বে তালাক নেই।
  • দাসীদের তালাকের সীমা দুই তালাক।
  • কেউ যদি মনে মনে স্ত্রীকে তালাক দেয়।
  • যথার্থভাবে বা কৌতুকার্থে ‘তালাক’ উচ্চারণ করা।
  • খুলা তালাক।
  • খুলা তালাক দাবীকারিনী।
  • স্ত্রীদের সঙ্গে উদার ব্যবহার করা।
  • পিতা যদি কাউকে তার স্ত্রীকে তালাক দিতে বলে।
  • কোন মহিলা যেন তার (আরেক দীনী) ভগ্নীর তালাক প্রার্থনা না করে।
  • বুদ্ধিভ্রষ্ট ব্যাক্তির তালাক।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • গর্ভবর্তী মহিলার স্বামী মারা যাওয়ার পর সন্তান ভুমিষ্ট হলে।
  • মৃত স্বামীর স্ত্রীর ইদ্দত।
  • কাফ্ফারা প্রদানের পূর্বে জিহারকারীর সঙ্গত হওয়া প্রসঙ্গে।
  • জিহারের কাফফারা।
  • ঈলা।
  • লিআন।
  • যার স্বামী মারা গেছে সেই মহিলা কোথায় ইদ্দত পালন করবে?
  • ১৪/ ক্রয় বিক্রয় (كتاب البيوع عن رسول الله ﷺ) ১১৭ টি | ১২০৮-১৩২৪ পর্যন্ত 14/ The Book on Business
  • সন্দেহজনক বিষয় পরিত্যাগ করা।
  • সূদ খাওয়া।
  • মিথ্যা, অসত্য ইত্যাদি বিষয়ে কঠোরতা।
  • ব্যবসায়ীদের মর্যদা আর নবী (ﷺ) কর্তৃক তাদের নামকরণ।
  • কারো পন্য সম্পর্কে তার মিথ্যা কসম করা প্রসঙ্গে।
  • ব্যবসার উদ্দেশ্যে ভোরে বের হওয়া।
  • নির্ধারিত মেয়াদের শর্তে (বাকীতে) ক্রয়ের অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • শর্তসমূহ লিপিবদ্ধ করা।
  • পাল্লা ও পরিমাপ পাত্রের প্রসঙ্গে।
  • নিলামে বিক্রয়।
  • মুদাববার বিক্রি প্রসঙ্গে।
  • বহিরাগত বিক্রেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ নিষিদ্ধ।
  • গ্রামবাসীর পক্ষে শহরবাসী বিক্রয় করবেনা।
  • "মুহাকালা" এবং "মুযাবানা" নিষিদ্ধ।
  • গাছের ফল ডাগর ডোগর হওয়ার পূর্বে বিক্রি জায়েয নয়।
  • কোন জন্তুুর গর্ভস্থ বাচ্চার গর্ভ থেকে ভূমিষ্ট বাচ্চা বিক্রি করা।
  • প্রবঞ্চনামূলক বিক্রি হারাম।
  • একই বিক্রীতে দুই বিক্রি নিষিদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • যা অধিকারে নেই তা বিক্রি করা নিষেধ।
  • ‘‘ওয়ালা" বিক্রি করা ও হেবা করা নিষিদ্ধ।
  • বাকীতে কোন জন্তুর বিনিময়ে জন্তুু বিক্রি করা।
  • দুটি দাসের বিনিময়ে একটি দাস ক্রয়।
  • গমের বিনিময়ে গম ক্রয়ের ক্ষেত্রে সমপরিমাণ হতে হবে। এতে অতিরিক্ত প্রদান হারাম।
  • (বাট্রায়) মুদ্রা বিনিময়ে।
  • পরাগায়নের পর খেজুরগাছ বিক্রি করা এবং সম্পদাধিকারী দাস বিক্রি করা।
  • ক্রেতা ও বিক্রেতা পৃথক না হওয়া পর্যন্ত উভয়েরই (বিক্রি সম্পাদন করা না করার) এখতিয়ার থাকে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ক্রয়-বিক্রয়ে যে প্রতারিত হয়।
  • প্রতারণার উদ্দেশ্যে পশুর ওলানে দুধ জমান প্রসঙ্গে।
  • বিক্রয়ের সময় জন্তুর পৃষ্ঠারোহনের শর্ত করা প্রসঙ্গে।
  • বন্ধকরূপে রক্ষিত বস্তু থেকে উপকার গ্রহণ করা।
  • স্বর্ণ ও পুঁতি খচিত মালা ক্রয় করা প্রসঙ্গে।
  • ওয়ালা (অভিভাবকত্বের) শর্ত করা এবং এই বিষয়ে ভৎর্সনা প্রসঙ্গে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • মুকতাবের নিকট যদি আদায় করার মত কেন কিছু থাকে।
  • দেউলিয়া ঘোষিত ব্যক্তির নিকট কোন পাওনাদার ঠিক তারই জিনিসটি পেলে।
  • মুসলিম ব্যক্তি কর্তৃক বিক্রির জন্য মদ যিম্মির কাছে অর্পন করা নিষিদ্ধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • আরিয়া বা ব্যবহারের উদ্দেশ্যে গৃহীত বস্তু অবশ্যই ফিরিয়ে দিতে হবে।
  • ইহতিকার বা মজুদদারী করা।
  • মুহাফ্ফালাত বা স্তনে দুগ্ধ জমিয়ে রেখে পশু বিক্রি করা।
  • কোন মুসলিমের সম্পদ গ্রাস করার জন্য মিথ্যা শপথ করা।
  • ক্রেতা-বিক্রেতায় যখন মতবিরোধ ঘটে।
  • অতিরিক্ত পানি বিক্রি করা।
  • নর পশুর প্রজননের বিনিময়ে গ্রহণ হারাম।
  • কুকুরের মূল্য।
  • শিঙ্গা লাগানোর পারিশ্রমিক।
  • শিঙ্গা লাগানোর উপার্জন সম্পর্কে অনুমতি।
  • কুকুর ও বিড়াল-বিড়াল মূল্য মাকরূহ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • গায়িকা দাসী বিক্রি নিষিদ্ধ।
  • বিক্রি করতে গিয়ে আপন দুই ভাই বা মা ও সন্তানের মাঝে বিচ্ছেদ সৃষ্টি করা জায়েয নয়।
  • কোন গোলাম ক্রয় করে দৈনিক দেয় মজুরী বিনিময়ে তাকে কাজে নিয়োগ করার পর যদি তাতে দোষ ধরা পড়ে।
  • ফল-উদ্যানের পাশ দিয়ে গমনকারীর জন্য উক্ত বাগানের ফল আহারের অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • বিক্রি চুক্তি থেকে অনির্ধারিত পরিমাণ অংশ বাদ দেওয়া।
  • পূর্ণ হস্থগত করার পূর্বে খাদ্যদ্রব্য বিক্রি নিষেধ।
  • আপনি (দ্বীনী) ভাইয়ের বিক্রির উপর বিক্রি প্রস্তাব প্রদান নিষেধ।
  • মদ বিক্রি করা এবং তৎ সম্পর্কিত নিষেধাজ্ঞা।
  • মদ সিরকায় রূপান্তরিত করা নিষেধ।
  • মালিকের অনুমতি ব্যতীত পশু পালের দুধ দোহন।
  • মৃত জন্তুর চামড়া এবং মূর্তি বিক্রি করা।
  • হেবা প্রত্যাহার করা ঘৃণ্য।
  • আরায়া ও এতদসম্পর্কিত অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ‘নাজশ’ বা ক্রয়ের উদ্দেশ্যে নয় কেবল মাত্র মূল্য বাড়াবার উদ্দেশ্যে দর দাম জায়েজ নয়।
  • ওজনের ক্ষেত্রে কিছু বাড়তী দেওয়া।
  • অভাবগ্রস্থকে অবকাশ প্রদান এবং তার সঙ্গে নম্র আচরণ করা।
  • ধনী ব্যক্তির টালবাহানা করা জুলুম।
  • মুলামাসা ও মুনাবাযা।
  • খাদ্য-শস্য ও ফল-ফলাদি আগাম বিক্রি করা।
  • শরীকানা ভুমির কোন শরীক যদি তার হিস্যা বিক্রি করতে চায়।
  • মুখাবারা ও মুআওয়ামা।
  • তাসয়ীর।
  • ক্রয়-বিক্রয়ে খিয়ানত ও প্রতারণা করা।
  • উট বা অন্য কোন প্রাণী করজ হিসাবে গ্রহণ করা।
  • মসজিদে ক্রয়-বিক্রয় নিষেধ।
  • ১৫/ বিধি-বিধান ও বিচার (كتاب الأحكام عن رسول الله ﷺ) ৬৫ টি | ১৩২৫-১৩৮৯ পর্যন্ত 15/ The Chapters On Judgements From The Messenger of Allah
  • কাযী প্রসঙ্গে।
  • কাযী বা বিচারক ঠিকও করতে পারেন ভুলও করতে পারেন।
  • কাযী কিভাবে বিচার করবেন ?
  • ন্যায়বান ইমাম ও শাসক।
  • বাদী-বিবাদী উভয় পক্ষের কথা না শুনে কাযী ফায়সালা দিবেন না।
  • প্রজাবর্গের ইমাম।
  • ক্রোধান্বিত অবস্থায় কাযী বিচার করবেন না।
  • প্রশাসককূলের হাদীয়া গ্রহণ।
  • বিচার ক্ষেত্রে ঘুষখোর এবং ঘুষদাতা।
  • হাদীয়া এবং দাওয়াত গ্রহণ করা।
  • কারো স্বপক্ষে যদি এমন বস্তুর রায় দেওয়া হয় যা তার জন্য গ্রহণ করা উচিত নয় এতদসম্পর্কে কঠোর সতর্কবাণী।
  • বাদীর দায়িত্ব হল সাক্ষী পেশ করা এবং বিবাদীর দায়িত্ব হল কসম করা।
  • সাক্ষীর সঙ্গে কসমও গ্রহণ করা।
  • দুই শরীকের মালিকানাভুক্ত একটি গোলামকে এক শরীক তার হিস্যা আযাদ করে দিলে।
  • উমরা বা আজীবনের জন্য কিছু দান করা।
  • রুকবা প্রসঙ্গে।
  • মানুষের মাঝে আপোষ-মীমাংশা করে দেওয়া।
  • কোন ব্যক্তি প্রতিবেশীর দেয়ালে তার ঘরের কড়িকাঠ স্থাপন করলে।
  • কসম হবে প্রতিপক্ষের সমর্থনানুসারে।
  • রাস্তার পরিমাণ নিয়ে মতবিরোধ হলে তা কতটুকু নির্ধারণ করা হবে?
  • পিতা-মাতার বিচ্ছেদ ঘটলে সন্তানকে কোন একজনের সঙ্গে থাকার এখতিয়ার প্রদান।
  • পিতা সন্তানের অর্থ-সম্পদ থেকে যা ইচ্ছা নিতে পারেন।
  • কারো কোন জিনিস ভেঙ্গে ফেললে যে তা ভেঙ্গেছে তার সম্পদ থেকে কতটুকু গ্রহণের ফায়সালা দেওয়া হবে?
  • পুরুষ ও নারীর সাবালক হওয়ার বয়স।
  • কেউ তার পিতার স্ত্রী অর্থাৎ সৎ মাকে বিবাহ করলে।
  • দুই ব্যক্তির একজনের ভূমি যদি পানি সিঞ্চনের ক্ষেত্রে নিম্নের দিকে থাকে।
  • কেউ যদি তার অধিকারভুক্ত গোলামদের মৃত্যুর সময় আযাদ করে দেয় এবং তা ছাড়া তার যদি অন্য কোন সম্পদ না থাকে।
  • কেউ যদি রেহেম সম্পর্কিত আত্মীয়ের মালিক হয়।
  • কোন সম্প্রদায়ের ভূমিতে অনুমতি ব্যাতিরেকে যদি কেউ শস্য বপন করে।
  • সন্তানদের মাঝে দান ও সমতা রক্ষা।
  • শুফ‘আ বা প্রিয়ামশান।
  • অনুপস্থিত লোকের পক্ষে শুফ‘আ।
  • কোন জমির সীমা নির্ধারণ ও বণ্টন কার্য সম্পাদনের পর আর শুফ‘আর হক নেই।
  • শরীক ব্যক্তি শুফ‘আর হকদার।
  • কুড়ানো বস্তু ও হারানো উট ও ছাগল প্রসঙ্গে।
  • ওয়াকফ প্রসঙ্গে।
  • অবোধ জীব জন্তুর আঘাত বাতিল।
  • অনাবাদী সরকারী জমি আবাদ করা।
  • জায়গীর প্রদান।
  • বৃক্ষ রোপনের ফযীলত।
  • বর্গাচাষ।
  • বর্গাচাষের আরো কিছু কথা।
  • ১৬/ রক্তপণ (كتاب الديات عن رسول الله ﷺ) ৩৮ টি | ১৩৯০-১৪২৭ পর্যন্ত 16/ The Book on Blood Money
  • রক্তপণের উটের সংখ্যা।
  • দিয়াত বা রক্তপণের দিরহামের পরিমাণ।
  • আঘাতে হাড় বের হয়ে গেলে।
  • অঙ্গুলীর দিয়াত।
  • ক্ষমা প্রসঙ্গে।
  • পাথর দিয়ে কারো মাথা চুর্ণ করা হলে।
  • কোন মুমিনকে হত্যা করার বিষয়ে কঠোর সতর্কবাণী।
  • খুনের বিচার।
  • পিতা পুত্রকে হত্যা করলে কিয়াস হবে কিনা।
  • তিনটি কারণের একটি ব্যতীত কোন মুসলিমের খুন হালাল নয়।
  • কেউ যিম্মিকে হত্যা করলে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • কিসাস গ্রহণ ও ক্ষমা প্রদানে নিহত ব্যক্তির ওলীর অধিকার।
  • মুছলা নিষিদ্ধ হওয়া।
  • গর্ভস্থ সন্তানের দিয়াত।
  • অমুসলিমদের বদলায় মুসলিমকে হত্যা করা যাবে না।
  • কাফেরের দিয়াত প্রসঙ্গে।
  • যে ব্যক্তি নিজ দাসকে হত্যা করে।
  • স্বামীর দিয়াতে স্ত্রীও ওয়ারিছ হবে।
  • কিসাস প্রসঙ্গে।
  • অপবাদ দেওয়ার অপরাধে বন্দী করা প্রসঙ্গে।
  • যে ব্যক্তি নিজ সম্পদ রক্ষার্থে নিহত হয়, সে শহীদ।
  • কাসামা।
  • ১৭/ দন্ডবিধি (كتاب الحدود عن رسول الله ﷺ) ৪২ টি | ১৪২৮-১৪৬৯ পর্যন্ত 17/ The Book on Legal Punishments (Al-Hudud)
  • যার উপর দন্ডবিধি আরোপিত হয় না।
  • হদ প্রতিহত করা প্রসঙ্গে।
  • মুসলিমের দোষ ঢেকে রাখা প্রসঙ্গে।
  • হদের ক্ষেত্রে বারবার বুঝানো।
  • অপরাধ স্বীকারকারী যদি তার স্বীকৃতি প্রত্যাহার করে তবে তার উপর হদ প্রয়োগ না করা।
  • হদের ব্যাপারে সুপারিশ করা ঠিক নয়।
  • ‘রজম’-এর প্রমাণ।
  • বিবাহিত ব্যক্তির উপর ‘রজম’ প্রয়োগ।
  • গর্ভবতী মহিলার সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়া পর্যন্ত ‘রাজম’ বিরম্ব করা।
  • কিতাবীদের রজম প্রসঙ্গে।
  • নির্বাসন দন্ড প্রসঙ্গে।
  • দাসীদের উপর হদ প্রয়োগ।
  • নেশাগ্রস্তর হদ।
  • যে মদ পান করবে তাকে দুররা মারবে। চতুর্থবারেও যদি এতে পুনর্লিপ্ত হয় তবে হত্যা করবে।
  • কি পরিমাণ চুরিতে চুরের হাত কাটা যাবে
  • চোরের হাত লটকে দেওয়া প্রসঙ্গে।
  • খিয়ানতকারী ছিনতাইকারী ও লুন্ঠনকারী প্রসঙ্গে।
  • ফল ও থোড় এর ক্ষেত্রে হাত কাটা প্রযোজ্য নয়।
  • যুদ্ধে থাকাবস্থায় হাত কাটা যাবে না।
  • কেউ যদি তার স্ত্রীর দাসীর সাথে সঙ্গত হয়।
  • কোন মহিলাকে ব্যভিচারে বাধ্য করা হলে।
  • পশুর সাথে সঙ্গত হলে।
  • সমকামীর হদ।
  • মুরতাদ সম্পর্কে।
  • অস্ত্র উত্তোলনকারী প্রসঙ্গে।
  • যাদুকরের দন্ড প্রসঙ্গে।
  • গনীমতের মালে খিয়ানতকারীর সঙ্গে কী করা হবে?
  • কেউ যদি অপর কাউকে বলে হে মুখাননাছ।
  • তা‘যীর।
  • ১৮/ শিকার (كتاب الصيد والذبائح عن رسول الله ﷺ) ৮ টি | ১৪৭০-১৪৭৭ পর্যন্ত 18/ The Book on Hunting
  • কুকুর কর্তৃক শিকারকৃত প্রাণীর কোনটি খাওয়া যায় আর কোনটি খাওয়া যায় না।
  • মাজূসী অর্থাৎ অগ্নি উপাসকের কুকুরের শিকার
  • বাজ পাখির শিকার
  • শিকারের উদ্দেশ্যে কোন প্রাণীকে তীর নিক্ষেপ করার পর সে প্রাণীটি যদি অদৃশ্য হয়ে যায়।
  • তীর নিক্ষেপের পর শিকারের জন্তুটিকে পানিতে মৃত অবস্থায় পেলে।
  • (প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত) কুকুর যদি শিকার থেকে কিছু খেয়ে ফেলে।
  • মি'রাজ অর্থাৎ ছুঁচালো ছড়ি দিয়ে শিকার করা।
  • ১৯/ যাবাহ (كتاب الأضاحى عن رسول الله ﷺ) ১ টি | ১৪৭৮-১৪৭৮ পর্যন্ত 19/ The Book on Sacrifices
  • শ্বেত পাথর দিয়ে যাবাহ করা
  • ২০/ আহার করা (كتاب الأطعمة عن رسول الله صلى الله عليه وسلم) ৯ টি | ১৪৭৯-১৪৮৭ পর্যন্ত 20/ The Book on Food
  • আটকিয়ে রেখে হত্যা করা পশু আহার করা নিষিদ্ধ
  • গর্ভস্থ বাচ্চার যাবাহ।
  • দাঁতাল ও নখরবিশিষ্ট প্রাণী হারাম
  • জীবন্ত জন্তু থেকে কর্তিত অঙ্গ মৃতের মত হারাম।
  • কণ্ঠদেশ এবং বুকের উপরিভাগ যাবাহ করা হবে।
  • ২১/ বিবিধ বিধান ও তার উপকারিতা (كتاب الأحكام والفوائد) ১১ টি | ১৪৮৮-১৪৯৮ পর্যন্ত 21/ Book of Judgments and Benefits
  • ওয়াযাগ [গিরগিটি] হত্যা
  • সাপ হত্যা
  • কুকুর নিধন
  • কুকুর রাখলে কি পরিমান ছাওয়াব হ্রাস পাবে।
  • বাঁশের ছিলা ইত্যাদি দ্বারা যাবাহ করা
  • উট, গরু ও বকরী যখন বাঁধন ছেড়ে পালিয়ে বন্য হয়ে যায় তখন তাকে তীর মারা হবে কিনা।
  • ২২/ কুরবানী (كتاب الأضاحى عن رسول الله) ৩১ টি | ১৪৯৯-১৫২৯ পর্যন্ত 22/ The Book on Sacrifices
  • কুরবানীর ফযীলত
  • দুটি মেষ কুরবানী দেওয়া
  • মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে কুরবানী
  • কী ধরনের কুরবানী মুস্তাহাব?
  • কোন পশুর কুরবানী জায়েয নয়
  • কোন পশু কুরবানী মাকরূহ?
  • ছয়মাস বয়সী মেষ কুরবানী করা
  • কুরবানীতে শরীক হওয়া
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ঈদের সালাতের পর যবাহ করা
  • তিন দিনের ঊর্ধ্বে কুরবানীর গোশত খাওয়া পছন্দনীয় নয়
  • তিন দিনের পরও কুরবানীর গোশত আহার করার অনুমতি
  • ফারা' এবং আতীরাহ
  • আকীকা
  • শিশুর কানে আযান দেওয়া
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • আকীকার কিছু বিধান
  • কুরবানী করার আশা পোষণকারী ব্যক্তির চুল না কাটা
  • শিংভাঙ্গা ও কানফাটা পশু দিয়ে কুরবানী করা।
  • একটি ছাগলই একটি পরিবারের জন্য যথেষ্ট।
  • ২৩/ মানত ও কসম (كتاب النذور والأيمان عن رسول الله ﷺ) ২৪ টি | ১৫৩০-১৫৫৩ পর্যন্ত 23/ The Book on Vows and Oaths
  • পাপ কর্মে মানত নেই।
  • কেউ যদি আল্লাহ্‌র ফরমাবরদারীর মানত করে তবে সে যেন তা করে
  • মানুষের যাতে মালিকানা নেই তাতে মানত হয় না।
  • মানত করা কালে কিছু নির্ধারন না করা হলে এর কাফ্‌ফারা প্রসঙ্গে
  • কোন বিষয়ে কসম করার পর অন্য বিষয়টিকে তা থেকে ভাল দেখলে।
  • কসম ভাঙ্গার পূর্বেই কাফ্‌ফারা প্রদান
  • কসমের ক্ষেত্রে ইনশাআল্লাহ্‌ বলা।
  • আল্লাহ্‌ ছাড়া অন্য কারো কসম খাওয়া হারাম।
  • কেউ হেঁটে যাওয়ার কসম অথচ সে হাঁটতে অক্ষম।
  • মানত করা পছন্দনীয় নয়।
  • মানত পূরণ করা।
  • নবী (ﷺ) এর কসম কি ধরণের ছিল?
  • গোলাম আযাদ করার ফযীলত
  • স্বীয় খাদেমকে থাপ্পড় দেওয়া।
  • ইসলাম ছাড়া অন্য ধর্মের শপথ করা পছন্দনীয় নয়।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে মানত আদায় করা।
  • যে গোলাম আযাদ করে তার মর্যাদা।
  • ২৪/ অভিযান (كتاب السير عن رسول الله صلى الله عليه وسلم) ৭১ টি | ১৫৫৪-১৬২৪ পর্যন্ত 24/ The Book on Military Expeditions
  • যুদ্ধের পূর্বে ইসলামের দাওয়াত দেওয়া।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • রাতে বা অতর্কিত আক্রমণ করা।
  • শত্রু অঞ্চল জ্বালিয়ে দেওয়া এবং তা ধ্বংস করা।
  • গনীমত প্রসঙ্গে
  • অশ্বের হিস্যা।
  • সারিয়্যা বা খন্ড অভিযান।
  • ফাই কাকে প্রদান করা হবে?
  • গনীমতে গোলামদের জন্যও কি হিস্যা নির্ধারন করা হবে?
  • যিম্মী নাগরিক মুসলিমদের সঙ্গে যুদ্ধে শরীক হলে গনীমত সম্পদে তাদের হিস্যা হবে কি?
  • মুশরিকদের পাত্র ব্যবহার করা।
  • নফল বা গনীমতের হিস্যার অতিরিক্ত কিছু প্রদান।
  • যে ব্যক্তি কোন শত্রুকে হত্যা করবে তার জন্য হবে নিহত ব্যক্তির অস্ত্র-সস্ত্র ও মাল-সামান।
  • বন্টনের পূর্বে গনীমত লব্ধ সম্পদ বিক্রয় হারাম।
  • গর্ভবতী বন্দীনীদের উপর উপগত হওয়া হারাম।
  • মুশরিকদের খাদ্য।
  • নিকট আত্মীয় বন্দীদের বিচ্ছিন্ন করা পছন্দনীয় নয়।
  • বন্দী হত্যা করা বা মুক্তিপণের বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়া।
  • নারী ও শিশু হত্যা নিষেধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • গনীমত সম্পদ আত্মসাৎ করা।
  • মহিলাদের যুদ্ধে গমণ।
  • মুশরিকদের হাদিয়া গ্রহন করা।
  • মুশরিকদের হাদিয়া গ্রহন না করা।
  • শুকরানা সিজদা।
  • বিশ্বাস ঘাতকতা।
  • কিয়ামতের দিন প্রত্যেক বিশ্বাস হন্তারই একটি পতাকা থাকবে।
  • কোন মুসলিমের নির্দেশ কেউ আত্মসমার্পন করলে।
  • বন্ধুত্ব চুক্তি।
  • অগ্নি উপাসক থেকে জিযইয়া গ্রহন।
  • যিম্মীদের সম্পদ থেকে কি কি গ্রহন করা হালাল?
  • হিজরত।
  • নবী (ﷺ) এর বায়আত পদ্ধতি।
  • বায়আত ভঙ্গ করা।
  • গোলামের বায়আত।
  • মহিলাদের বায়আত।
  • বদরী সাহাবীদের সংখ্যা।
  • খুমুস বা গনীমতের এক পঞ্চমাংশ।
  • লুন্ঠন করা হারাম।
  • কিতাবীদের সালাম দেওয়া।
  • মুশরীকদের মাঝে বসবাস নিন্দনীয়।
  • আরব উপদ্বীপ থেকে ইয়াহূদী ও খৃস্টানদের বহিস্কার।
  • নবী (ﷺ) এর পরিত্যক্ত সম্পদ।
  • মক্কা বিজয়ের দিন নবী (ﷺ) বলেছেন, আজকের পরে আর এই নগরে কোন যুদ্ধ করা যাবে না।
  • যে মুহুর্তে যুদ্ধ করা মুস্তাহাব।
  • শুভাশুভের ধারণা প্রসঙ্গে।
  • যুদ্ধ প্রসঙ্গে নবী (ﷺ) এর বিশেষ উপদেশ।
  • ২৫/ জিহাদের ফযীলত (كتاب فضائل الجهاد عن رسول الله ﷺ) ৫১ টি | ১৬২৫-১৬৭৫ পর্যন্ত 25/ The Book on Virtues of Jihad
  • জিহাদের ফযীলত
  • কেউ যদি যুদ্ধে পাহারা দানরত অবস্থায় মারা যায়।
  • আল্লাহ্‌র পথে সিয়াম পালনের ফযীলত।
  • আল্লাহ্‌র পথে ব্যয় করার ফযীলত।
  • আল্লাহ্‌র পথে সেবার ফযীলত।
  • যোদ্ধাকে প্রস্তুত করে দেওয়ার ফযীলত।
  • যার দু'পা আল্লাহ্‌র পথে ধূলিময় হয়েছে।
  • আল্লাহ্‌র পথের ধূলার ফযীলত।
  • আল্লাহ্‌র পথে থেকে যার কিছু পরিমাণ চুলও সাদা হয়।
  • যে ব্যক্তি আল্লাহ্‌র পথে ঘোড়া বেঁধে রাখে।
  • আল্লাহ্‌র পথে তীর নিক্ষেপের ফযীলত।
  • আল্লাহ্‌র পথে পাহারার ফযীলত।
  • শহীদের সাওয়াব।
  • আল্লাহ্‌র কাছে শহীদদের মর্যাদা।
  • নৈযুদ্ধ।
  • যে ব্যক্তি দেখানোর জন্য এবং দুনিয়ার জন্য লড়াই করে।
  • আল্লাহ্‌র পথে এক সকাল ও এক বিকাল।
  • সর্বোত্তম ব্যক্তি কে?
  • যে ব্যক্তি শাহাদাতের প্রার্থনা করে।
  • মুজাহিদ, মুকাতাব ও বিবাহ ইচ্ছুক ব্যক্তির প্রতি আল্লাহ্‌র সাহায্য।
  • আল্লাহ্‌র পথে আঘাত প্রাপ্ত ব্যক্তির ফযীলত।
  • কোন আমলটি উত্তম।
  • তরবারীর ছায়ার নীচে জান্নাতের দ্বার প্রসঙ্গে।
  • সর্বোত্তম লোক কে?
  • শহীদের সাওয়াব।
  • আল্লাহ্‌র পথে পাহারার ফযীলত।
  • ২৬/ জিহাদ (كتاب الجهاد عن رسول الله ﷺ) ৫০ টি | ১৬৭৬-১৭২৫ পর্যন্ত 26/ The Book on Jihad
  • ওজর বশত জিহাদে অংশগ্রহণ না করে ঘরে বসে থাকা।
  • কেউ যদি যুদ্ধ যাত্রা করে আর তার পিতা-মাতাকে ঘরে রেখে যায়।
  • কাউকে কোন অভিযাত্রায় একা প্রেরণ করা হলে।
  • একা সফর করা মাকরূহ।
  • যুদ্ধ ভিন্ন কথা কৌশল অবলম্বন করা।
  • নবী (ﷺ) কয়টি যুদ্ধ করেছেন।
  • লড়াই এর সময় কাতার করা ও সৈন্য বিন্যস্ত করা
  • যুদ্ধের সময় দু'আ করা।
  • ছোট পতাকা (লিওয়া)
  • পতাকা
  • বিশেষ প্রতীক।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর তলওয়ারের বর্ণনা।
  • যুদ্ধের সময় সাওম পালন করা।
  • ভয়ের সময় (এর উৎস সন্ধানে) বের হওয়া।
  • যুদ্ধে টিকে থাকা।
  • তলওয়ার এবং তার অলংকার।
  • লৌহ বর্ম।
  • শিরস্ত্রাণ।
  • ঘোড়ার ফযীলত।
  • কোন ধরণের ঘোড়া পছন্দনীয়।
  • অপছন্দনীয় ঘোড়া।
  • ঘোড় দৌড় প্রতিযোগিতা।
  • গাধার মাধ্যমে ঘোটকীর প্রজনন অপছন্দনীয়।
  • দরিদ্র মুসলিমদের ওয়াসীলায় বিজয় প্রার্থনা করা।
  • ঘোড়ার গলায় ঘন্টা বাধা।
  • যুদ্ধে কাকে কোন কাজে নিয়োগ করা যাবে।
  • ইমাম অর্থাৎ রাষ্ট্র প্রধান।
  • ইমামের প্রতি আনুগত্য।
  • সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ্‌র নাফরমানীতে কোন মাখলূকের আনুগত্য হতে পারে না।
  • একটি প্রাণীকে আরেকটির বিরুদ্ধে উত্তেজিত করা এবং কোন প্রাণীর চেহারায় আঘাত করা ও দাগ লাগান।
  • বালিগ হওয়ার বয়সসীমা এবং কখন থেকে (বায়তুল মাল থেকে) তার ভাতা নির্ধারণ করা হবে।
  • কেউ যদি ঋনের বোঝা নিয়ে শহীদ হয়।
  • শহীদদের দাফন।
  • পরামর্শ করা।
  • বন্দীদের লাশের কোন ফিদইয়া নেই।
  • যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পলায়ন।
  • শহীদকে তার শাহাদাতের স্থানে দাফন করা।
  • প্রবাসীর আগমনের সময় অভ্যর্থনা জ্ঞাপন করা।
  • ফাই সম্পদ।
  • ২৭/ পোশাক-পরিচ্ছদ (كتاب اللباس) ৬৯ টি | ১৭২৬-১৭৯৪ পর্যন্ত 27/ The Book on Clothing
  • পুরুষদের রেশম ও স্বর্ণ ব্যবহার প্রসঙ্গে।
  • যুদ্ধে রেশমের পোশাক পরিধান করা প্রসঙ্গে।
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পুরুষদের জন্য লাল বর্ণের পোশাক পরিধান করার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • পুরুষদের জন্য কুসুম রঙ্গের কাপড় নিষিদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • পুস্তীন পরিধান করা।
  • মৃত প্রাণীর চামড়া পাকা করা হলে।
  • গোড়ালির নিচে নামিয়ে তহবন্দ পরিধান নিষিদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • মহিলাদের আঁচল লম্বা করে পরিধান করা প্রসঙ্গে।
  • পশমের কাপড় পরিধান প্রসঙ্গে।
  • কাল পাগড়ী প্রসঙ্গে।
  • দুই কাঁধের মাঝে পাগড়ীর এক পার্শ্ব ঝুলিয়ে রাখা প্রসঙ্গে।
  • স্বর্ণের আংটি পরিধান নিষিদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • রূপার আংটি প্রসঙ্গে।
  • আংটির জন্য কি ধরণের নগিনা বানানো মুস্তাহাব।
  • ডান হাতে আংটি পরা।
  • আংটির নকশা প্রসঙ্গে।
  • ছবি প্রসঙ্গে।
  • চিত্রকরদের প্রসঙ্গে।
  • কলপ ব্যবহার প্রসঙ্গে।
  • কাঁধ পর্যন্ত চুল এবং চুল রাখা প্রসঙ্গে।
  • ঘন ঘন চুল আঁচড়ান নিষেধ।
  • সুরমা লাগান।
  • ইশতিমালে সাম্মা ও এক কাপড়ে ইহতিবা নিষেধ।
  • স্বীয় চুলের সাথে পরচুলা বাঁধা।
  • রেশমের আসনে আরুঢ় হওয়া প্রসঙ্গে।
  • নবী (ﷺ) এর বিছানা প্রসঙ্গে।
  • কামিস।
  • নতুন কাপড় পরিধানের দু'আ প্রসঙ্গে।
  • জুব্বা এবং চামড়ার মোজা পরিধান প্রসঙ্গে।
  • স্বর্ণের দাঁত বাধান।
  • হিংস্র প্রাণীর চামড়া ব্যবহার নিষিদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • নবী (ﷺ) এর পাদুকা (না'ল)
  • এক জুতায় হাঁটা মাকরূহ।
  • দাঁড়িয়ে জুতা পরা মাকরূহ।
  • এক চপ্পলে হাটার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • কোন পায়ে প্রথম জুতা পরবে।
  • কাপড়ে তালি লাগান।
  • নবী (ﷺ) এর মক্কায় প্রবেশ।
  • সাহাবীগণের টুপি কেমন ছিল?
  • লুঙ্গী পরার সীমা।
  • টুপির উপর পাগড়ী পরা।
  • লোহার আংটি প্রসঙ্গে।
  • দুই আঙ্গুলে আংটি পরা মাকরূহ।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর প্রিয় পোশাক।
  • ২৮/ খাদ্য সম্পর্কিত (كتاب الأطعمة عن رسول الله ﷺ) ৭২ টি | ১৭৯৫-১৮৬৬ পর্যন্ত 28/ The Book on Food
  • কিসের উপর খাদ্য রেখে নবী (ﷺ) আহার করতেন।
  • খরগোশ খাওয়া।
  • দব্ব খাওয়া (অনেকটা গুইসাপের মত দেখতে)
  • খট্রাশ খাওয়া।
  • ঘোড়ার গোশত আহার।
  • গৃহপালিত গাধার গোশত।
  • কাফিরদের পাত্রে আহার করা।
  • ঘি-তে ইদুর পড়ে মারা গেলে।
  • বাম হাতে পানাহার করা নিষেধ।
  • খাওয়ার পর আঙ্গুল চাটা।
  • লোকমা পড়ে গেলে।
  • থালার মাঝ থেকে লোকমা নেয়া মাকরূহ।
  • রসূন ও পিয়াজ খাওয়া মাকরূহ।
  • রান্না করে রসূন খাওয়ার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • শয়নকালে পাত্রসমূহ ঢেকে রাখা এবং চেরাগ ও আগুন নিভিয়ে দেওয়া।
  • দু'টো খেজুর একত্রে খাওয়া মাকরূহ।
  • খেজুর একটি পছন্দনীয় খাদ্য।
  • আহার শেষে খানার জন্য আল্লাহ্‌র প্রশংসা করা।
  • কুষ্ঠ রোগীর সাথে আহার করা।
  • মুমিন তো খায় এক আতে।
  • একজনের খাদ্য দু'জনের জন্য যথেষ্ট।
  • পতঙ্গ খাওয়া।
  • পতঙ্গকে বদদুআ করা।
  • জাল্লাল্লা এর গোশত খাওয়া ও এর দুধ পান করা।
  • মোরগ খাওয়া।
  • হুবারা খাওয়া।
  • ভুনা গোশত আহার করা।
  • হেলান দিয়ে আহার করা মাকরূহ।
  • নবী (ﷺ) এর হালওয়া ও মধু পছন্দ করা।
  • শুরুয়া বাড়িয়ে দেওয়া।
  • ছারীদ এর মর্যাদা।
  • দাঁত দিয়ে কেটে কেটে গোশত খাওয়া।
  • নবী (ﷺ) থেকে ছুরি দিয়ে গোশত কাটার অনুমতি।
  • কোন গোশত রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর কাছে অধিক প্রিয় ছিল?
  • সিরকা।
  • তাজা খেজুরের সাথে খবরুজাহ খাওয়া।
  • তাজা খেজুরের সাথে কাঁকুড় খাওয়া।
  • উটের পেশাব পান করা।
  • আহারের পূর্বে ও পরে উযূ করা।
  • আহারের পূর্বে উযূ না করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • লাউ খাওয়া।
  • যয়তুন খাওয়া।
  • গোলামের সাথে আহার করা।
  • খাদ্য খাওয়ানোর ফযীলত।
  • বৈকালিক আহারের ফযীলত।
  • আহারের সময় বিসমিল্লাহ বলা।
  • হাতে চর্বীর আছার নিয়ে রাত অতিবাহিত করা মাকরূহ।
  • ২৯/ পানীয় (كتاب الأشربة عن رسول الله ﷺ) ৩৬ টি | ১৮৬৭-১৯০২ পর্যন্ত 29/ The Book on Drinks
  • মদ পানকারী প্রসঙ্গে।
  • নেশা সৃষ্টিকারী সব কিছুই হারাম।
  • যে বস্তুর অধিক পরিমাণ নেশা আনয়ন করে সেই বস্তুর কম পরিমাণও হারাম।
  • মাটির কলসের নাবীয।
  • শুকনা লাউয়ের খোলে, খেজুর কান্ডে গর্ত করে নির্মিত পাত্রে এবং মাটির পাত্রে নাবীয তৈরি করা পছন্দনীয় নয়।
  • সব ধরণের পাত্রে নাবীয তৈরীর অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • মশকে নাবীয তৈরি।
  • যে সমস্ত শস্য দানা দ্বারা মদ তৈরি করা হয়।
  • পক্ক খেজুর ও কাঁচা খেজুর মিশ্রিত পানীয়।
  • সোনা ও রূপার পাত্রে পান করা হারাম।
  • দাঁড়িয়ে কিছু পান করা নিষেধ।
  • দাঁড়িয়ে পান করার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • পাত্রে কিছু পানের সময় শ্বাস ফেলা।
  • দুই শ্বাসে পান করা।
  • পানীয় বস্তুতে ফুঁক দেওয়া মাকরূহ।
  • পাত্রে শ্বাস ফেলা মাকরূহ।
  • মশকের মুখ উলটে ধরে তা থেকে পানি পান করা নিষিদ্ধ।
  • উক্ত বিষয়ে অবকাশ প্রসঙ্গে।
  • ডান দিকে অবস্থানকারীরাই পান করার অধিক হকদার।
  • কোন দলের পানীয় পরিবেশনকারী নিজে সবার শেষে পান করবে।
  • কোন পানীয় রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর কাছে অধিক প্রিয় ছিল?
  • ৩০/ সৎ ব্যবহার ও সম্পর্ক রক্ষা (كتاب البر والصلة عن رسول الله ﷺ) ১৪০ টি | ১৯০৩-২০৪২ পর্যন্ত 30/ Chapters on Righteousness And Maintaining Good Relations With Relatives
  • পিতা-মাতার সঙ্গে সৎব্যবহার।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পিতা-মাতার সন্তুষ্টির ফযীলত।
  • পিতা মাতার নাফরমানী।
  • পিতার বন্ধুকেও সম্মান প্রদর্শন করা।
  • খালার সঙ্গে সদ্ব্যবহার।
  • পিতা-মাতার দু'আ।
  • পিতা-মাতার হক।
  • আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা।
  • আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা করা।
  • সন্তানের ভালবাসা।
  • সন্তানের প্রতি দয়া।
  • কন্যা ও বোনদের জন্য ব্যয় করা।
  • ইয়তীমের প্রতি দয়া প্রদর্শন ও তার দায়িত্ব নেওয়া।
  • শিশুদের প্রতি দয়া।
  • মানুষের প্রতি দয়া।
  • হিত কামনা।
  • এক মুসলিমের জন্য আরেক মুসলিমের সহমর্মিতা।
  • মুসলিমদের দোষ গোপন করা।
  • মুসলিমদের পক্ষ থেকে প্রতিরোধ করা।
  • এক মুসলিমের আরেক মুসলিমের সম্পর্কচ্ছেদ করা নিষিদ্ধ।
  • ভাইয়ের প্রতি সমবেদনা।
  • পরনিন্দা।
  • হিংসা।
  • পরস্পর বিদ্বেষ পোষণ।
  • পরস্পর সুসম্পর্ক স্থাপন।
  • খিয়ানত ও প্রতারণা।
  • প্রতিবেশীর হক।
  • খাদিমের প্রতি সদয় হওয়া।
  • খাদিমদের মারা এবং গালগালাজ করা নিষিদ্ধ।
  • খাদিমকে ক্ষমা করা।
  • খাদিমকে আদব শিক্ষা দেওয়া।
  • সন্তানকে আদব শিক্ষা দেওয়া।
  • হাদিয়া গ্রহন করা ও তার বদলা দেওয়া।
  • তোমার প্রতি যে ব্যক্তি সদয় ব্যবহার করে তার কৃতজ্ঞতা আদায় করা।
  • সদাচার প্রসঙ্গে।
  • মিনহা প্রদান।
  • পথ থেকে কষ্টদায়ক জিনিস সরানো।
  • মজলিসের কার্যাবলী আমানতস্বরূপ বলে গণ্য।
  • দানশীলতা প্রসঙ্গে।
  • কৃপনতা প্রসঙ্গে।
  • পরিবার-পরিজনের জন্য অর্থ ব্যয়।
  • যিয়াফত এবং যিয়াফতের শেষ সীমা কয় দিন?
  • ইয়াতীম ও স্বামীহীনাদের জন্য ভরণপোষণের প্রচেষ্টা করা।
  • উজ্জ্বল ও হাসি মুখ থাকা।
  • সত্য ও মিথ্যা প্রসঙ্গে।
  • অশ্লীলতা প্রসঙ্গে।
  • অভিশাপ দেওয়া।
  • নসব নামা শিক্ষাদান।
  • এক ভাইয়ের অনুপস্থিতিতে তার জন্য আরেক ভাইয়ের দু'আ করা।
  • গালিগালাজ করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ভাল কথা বলা।
  • নেককার দাসের মর্যাদা।
  • মানুষের সাথে আচার-ব্যবহার।
  • কুধারণা পোষণ করা।
  • কৌতুক প্রসঙ্গে।
  • বিবাদ বিসম্বাদ প্রসঙ্গে।
  • মানুষের সঙ্গে কোমল ব্যবহার প্রসঙ্গে।
  • বিদ্বেষ ও ভালবাসা উভয় ক্ষেত্রেই মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা।
  • অহংকার।
  • সদ্ব্যবহার।
  • অনুগ্রহ ও ক্ষমা।
  • দীনী ভাইদের সঙ্গে দেখা সাক্ষাত করা।
  • লজ্জাশীলতা।
  • ধীরতা ও তাড়াহুড়া।
  • নম্রতা।
  • মজলুমের বদ দু'আ।
  • নবী (ﷺ) এর চরিত্র।
  • উত্তম ওয়াদা পালন।
  • মহৎ চারিত্রিক গুন।
  • লা'নত এবং গালগালাজ করা প্রসঙ্গে।
  • অধিক ক্রোধ প্রসঙ্গে।
  • ক্রোধ নিবারণ।
  • বড়কে সম্মান করা।
  • পরস্পর সম্পর্ক ত্যাগকারী প্রসঙ্গে।
  • ধৈর্য ধারণ।
  • দু' মুখো মানুষ।
  • চোগলখোর।
  • রুদ্ধবাক হওয়া।
  • কতক বাগ্মিতায়ও রয়েছে যাদু।
  • বিনয়।
  • জুলুম
  • নেয়ামতের দোষ না ধরা।
  • মু'মিনকে সম্মান করা।
  • অভিজ্ঞতা।
  • যা দেওয়া হয় নাই তা পেয়েছে বলে দেখান।
  • ৩১/ চিকিৎসা (كتاب الطب عن رسول اللَّهِ ﷺ) ৫০ টি | ২০৪৩-২০৯২ পর্যন্ত 31/ Chapters on Medicine
  • রক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ।
  • ঔষধ গ্রহন এবং চিকিৎসা বিষয়ে উৎসাহিতকরণ।
  • রোগীর খাদ্য।
  • রোগীকে পানাহারের ক্ষেত্রে জোর জবরদস্তী করবে না।
  • কালোজিরা।
  • উটের পেশাব পান করা।
  • বিষ বা অন্য কিছু প্রয়োগে আত্মহত্যা করা।
  • নেশা জাতীয় বস্তুর মাধ্যমে চিকিৎসা করা মাকরূহ হওয়া প্রসঙ্গে।
  • নাক দিয়ে ঔষধ দেওয়া ইত্যাদি।
  • দাগ দেওয়া মাকরূহ।
  • এই বিষয়ে অবকাশ প্রসঙ্গে।
  • রক্ত মোক্ষণ।
  • মেহেদী দিয়ে চিকিৎসা করা।
  • ঝাড়-ফুঁক অপছন্দনীয় হওয়া সম্পর্কে।
  • এই বিষয়ে অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • মুওওয়াযাতায়ন এর মাধ্যমে ঝাড়-ফুঁক করা।
  • বদ নযরের ক্ষেত্রে ঝাড়-ফুঁক করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • বদ নযর সত্য এবং এজন্য গোসল করা।
  • তা'বীযের পারিশ্রমিক গ্রহন করা।
  • ঝাড়-ফুঁক এবং ঔষধাদির ব্যবহার।
  • মাসরুম ও আজওয়া খেজুর।
  • গণকের পারিশ্রমিক প্রসঙ্গে।
  • তাবীয লটকানো মাকরূহ।
  • পানি দিয়ে জ্বর ঠান্ডা করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • দুগ্ধদাত্রী স্ত্রীর সাথে সঙ্গত হওয়া।
  • নিউমোনিয়ার ঔষধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • সানা।
  • মধু প্রসঙ্গে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ছাই দিয়ে চিকিৎসা করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৩২/ ফারাইয (كتاب الفرائض عن رسول الله ﷺ) ২৬ টি | ২০৯৩-২১১৮ পর্যন্ত 32/ Chapters On Inheritance
  • কেউ সম্পদ রেখে গেলে তা হবে তার ওয়ারিছানের জন্য।
  • ফারাইয বা দায় ভাগ সম্পর্কিত জ্ঞান অর্জন।
  • কন্যার মীরাছ।
  • ঔরসজাত কন্যার সাথে পৌত্রীর মীরাছ।
  • সহোদর ভ্রাতাদের মীরাছ।
  • মেয়েদের সাথে ছেলেদের মীরাছ।
  • বোনদের মীরাছ।
  • আসাবার মীরাছ।
  • পিতামোহের মীরাছ।
  • পিতামহীর মীরাছ।
  • পুত্র (মৃতের পিতা) থাকা অবস্থায় জাদ্‌দা (পিতামহী/মাতামহী) এর মীরাছ।
  • মামার মীরাছ।
  • কোন ওয়ারিছ না থাকা অবস্থায় যদি কেউ মারা যায়।
  • সর্বনিম্ন আযাদকৃত দাসের মীরাছ।
  • মুসলিম ও কাফিরের মাঝে মীরাছ সত্ব বাতিল।
  • দুই ভিন্ন ধর্মাবলম্বী পরস্পর ওয়ারিছ হবে না।
  • হত্যাকারীর মীরাছ বাতিল।
  • স্বামীর দিয়াত থেকে স্ত্রীর মীরাছ।
  • মীরাছ হল ওয়ারিছানের এবং আসাবাদের উপর হল দিয়াত।
  • কোন ব্যক্তি অপর এক জনের হাতে ইসলাম গ্রহন করলে।
  • অবৈধ সন্তান মীরাছ থেকে বাতিল।
  • আযাদকৃত সম্পদের ওয়ারিছ কে হবে?
  • মহিলা যেসব মীরাছ পাবে।
  • ৩৩/ ওয়াসীয়ত (كتاب الوصايا عن رسول الله ﷺ) ৯ টি | ২১১৯-২১২৭ পর্যন্ত 33/ Chapters On Wasaya (Wills and Testament)
  • ওয়াসীয়ত হয় এক তৃতীয়াংশ।
  • ওয়াসীয়তের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর ব্যবস্থা নেওয়া।
  • ওয়াসীয়ত করতে উৎসাহ দান।
  • নবী (ﷺ) ওয়াসীয়ত করেন নাই।
  • ওয়ারিছানের জন্য ওয়াসীয়ত নাই।
  • ওয়াসীয়তের পূর্বে ঋন পরিশোধ করতে হবে।
  • মৃত্যুর সময় কেউ সাদাকা করলে বা গোলাম আযাদ করলে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৩৪/ ওয়ালা এবং হেবা (كتاب الولاء والهبة عن رسول الله ﷺ) ৮ টি | ২১২৮-২১৩৫ পর্যন্ত 34/ Chapters On Wala' And Gifts
  • যে ব্যক্তি আযাদ করবে তার হবে ওয়ালা স্বত্ব।
  • ওয়ালা স্বত্ব বিক্রি করা বা হেবা করা নিষেধ।
  • প্রকৃত আযাদকারী ছাড়া অন্য কারো প্রতি ওয়ালার সম্পর্ক প্রদর্শন করা বা পিতা ছাড়া অন্য কারো প্রতি পিতৃত্বের দাবী করা।
  • কেউ যদি স্বীয় সন্তানকে অস্বীকার করে।
  • লক্ষন দেখে কিছু বলা।
  • নবী (ﷺ) কর্তৃক হাদিয়্যা দানে উৎসাহ প্রদান।
  • হেবা করে তা প্রত্যাহার করা মাকরূহ।
  • ৩৫/ তাকদীর (كتاب القدر عن رسول الله ﷺ) ২৫ টি | ২১৩৬-২১৬০ পর্যন্ত 35/ Chapters On Al-Qadar
  • তাকদীর নিয়ে আলোচনায় মত্ত হওয়া সম্পর্কে কঠোর সতর্কবাণী।
  • আদম (আঃ) ও মূসা (আঃ) এর বিতর্ক।
  • দুর্ভাগ্য ও সৌভাগ্য।
  • শেষ অবস্থার উপর ভিত্তি করে আমলের এ'তেবার।
  • প্রত্যেক সন্তান স্বভাব-প্রকৃতির উপর জন্ম গ্রহন করে।
  • দু'আ ছাড়া তাকদীর রদ হয় না।
  • অন্তর হল রহমানের দুই আঙ্গুলের মাঝে।
  • আল্লাহ্‌ তা'আলা জান্নাতীদের জন্য এবং জাহান্নামীদের জন্য একটি কিতাব (রেজিষ্ট্রার) লিখে রেখেছেন।
  • রোগ সংক্রমন, হামা অর্থাৎ পেচকে বিশ্বাস বা সফর মাস সম্পর্কে কুসংস্কার ইসলামে নেই।
  • তাকদীরের ভাল-মন্দের উপর বিশ্বাস।
  • যেখানে যার মৃত্যু নির্ধারিত অবশ্যই সেখানে তার মৃত্যু হবে।
  • ঝাড়-ফুঁক বা ঔষধ কিছুই আল্লাহ্‌র নির্ধারিত তাকদীর রদ করতে পারে না।
  • কাদারিয়া অর্থাৎ তাকদীর অস্বীকারকারী সম্প্রদায়।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আল্লাহ্‌র ফয়সালার উপর সন্তুষ্ট থাকা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৩৬/ ফিতনা (كتاب الفتن عن رسول الله ﷺ) ১১২ টি | ২১৬১-২২৭২ পর্যন্ত 36/ Chapters On Al-Fitan
  • তিনটি কারনের কোন একটি ছাড়া মুসলিম ব্যক্তির খুন হালাল নয়।
  • রক্ত ও সম্পদ হারাম।
  • কোন মুসলিমকে আতংকিত করা কোন মুসলিমের জন্য জায়েয নয়।
  • কোন ব্যক্তি তার ভাইয়ের প্রতি অস্ত্র দিয়ে ইশারা করা।
  • খাপ থেকে বের করা অবস্থায় তলওয়ার আদান-প্রদান নিষেধ।
  • যে ব্যক্তি ফজরের সালাত আদায় করল সে আল্লাহ্‌র যিম্মায় চলে গেল।
  • মুসলিমদের জামাআত আকড়ে থাকা।
  • অন্যায় কাজ প্রতিহত না করা হলে আযাব নাযিল হবে।
  • সৎকাজের আদেশ এবং অসৎকাজের নিষেধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • হাত বা যবানে অথবা মনে মনে হলেও অন্যায় কর্ম প্রতিহত করা।
  • এ বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • যালিম কর্তৃপক্ষের সামনে ন্যায়ের কথা বলা সর্বোত্তম জিহাদ।
  • এ উম্মতের বিষয়ে নবী (ﷺ) এর তিনটি প্রার্থনা।
  • যে ব্যক্তি ফিতনার যুগে থাকবে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আমানত উঠিয়ে নেওয়া প্রসঙ্গে।
  • তোমরা তোমাদের পূর্ববর্তীদের রীতিনীতি অবলম্বন করবে।
  • হিংস্র প্রাণীর কথোপকথন।
  • চন্দ্র দ্বিখন্ডিত হওয়া।
  • ভূমি ধ্বস।
  • পশ্চিম দিকে সূর্যোদয়।
  • ইয়া'জুজ-মা'জুজের প্রাদুর্ভাব।
  • মারিকা বা খারিজীদের বিবরণ।
  • পক্ষপাতিত্ব।
  • কিয়ামত পর্যন্ত যা ঘটবে সে সম্পর্কে নবী (ﷺ) কর্তৃক সাহাবীগনকে অবহিত করা।
  • শামবাসীদের প্রসঙ্গে।
  • "আমার মৃত্যুর পর তোমরা কাফিররূপে ফিরে যেয়োনা যে, তোমাদের একজন আরেকজনের গর্দানে অস্ত্রাঘাত করবে"
  • এমন ফিতনার যুগ হবে যখন উপবিষ্ট ব্যক্তি দাঁড়ানো ব্যক্তির চেয়ে উত্তম হবে।
  • অচিরেই অন্ধকার রাতের টুকরার মত ফিতনা আসবে।
  • গনহত্যা এবং সে যুগে ইবাদাত করা।
  • কাঠের তলওয়ার বানিয়ে নেওয়া।
  • কিয়ামতের আলামত।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • চেহারা বিকৃতি বা ভূমিধ্বস শুরু হওয়ার আলামত।
  • নবী (ﷺ) এর বাণীঃ আমার প্রেরণ এবং কিয়ামত দুই আঙ্গুলের মত কাছাকাছি।
  • তুর্কীদের বিরুদ্ধে লড়াই।
  • কিসরার বিনাশের পর আর কোন কিসরা হবে না।
  • হিজাজের দিক থেকে আগুন বের না হওয়া পর্যন্ত কিয়ামত হবে না।
  • কতিপয় মিথ্যুক বের না হওয়া পর্যন্ত কিয়ামত হবে না।
  • ছাকীফ গোত্রে একজন মিথ্যুক এবং একজন সন্ত্রাসী খুনী ব্যক্তির জন্ম হবে।
  • তৃতীয় যুগ প্রসঙ্গে।
  • খলীফাগণ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • খিলাফত।
  • কিয়ামত পর্যন্ত খলীফা হবে কুরায়শ থেকে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পথভ্রষ্টকারী নেতা।
  • মাহদী প্রসঙ্গ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • দাজ্জাল প্রসঙ্গ।
  • দাজ্জাল আসার লক্ষণ।
  • দাজ্জাল কোথা থেকে বের হবে?
  • দাজ্জাল আবির্ভাবের আলামত।
  • দাজ্জালের ফিতনা।
  • দাজ্জালের পরিচয়।
  • দাজ্জাল মদীনাতে প্রবেশ করতে পারবে না।
  • ঈসা ইবন মারয়াম (আঃ) কর্তৃক দাজ্জাল হত্যা।
  • ইবন সায়্যাদ প্রসঙ্গে বর্ণনা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • বাতাসকে গাল-মন্দ করা নিষেধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৩৭/ স্বপ্ন (كتاب الرؤيا عن رسول الله ﷺ) ২৫ টি | ২২৭৩-২২৭৯ পর্যন্ত 37/ Chapters On Dreams
  • মু'মিনের স্বপ্ন হল নবুয়াতের ছেছল্লিশ ভাগের এক ভাগ।
  • নবুয়াতের যুগ চলে গিয়েছে তবে সুসংবাদ এখনো বাকী।
  • তাদের জন্য সুসংবাদ পার্থিব জীবনে।
  • নবী (ﷺ) এর বাণীঃ যে ব্যক্তি স্বপ্নে আমাকে দেখে সে অবশ্যই আমাকে দেখেছে।
  • স্বপ্নে অপছন্দনীয় কিছু দেখলে কি করবে।
  • স্বপ্নের ব্যাখা প্রদান।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • কেউ যদি মিথ্যা স্বপ্ন বলে।
  • দুধ ও জামা সম্পর্কে নবী (ﷺ) এর স্বপ্ন।
  • দাঁড়ি-পাল্লা এবং বালতি সম্পর্কে নবী (ﷺ) এর স্বপ্ন।
  • ৩৮/ সাক্ষ্য (كتاب الشهادات عن رسول الله ﷺ) ৯ টি | ২২৯৮-২৩০৬ পর্যন্ত 38/ Chapters On Witnesses
  • উত্তম সাক্ষ্যদানকারী কে।
  • যার সাক্ষ্য গ্রহনযোগ্য নয়।
  • মিথ্যা সাক্ষ্য প্রদান।
  • এতদসম্পর্কে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • ৩৯/ সংসারের প্রতি অনাসক্তি (كتاب الزهد عن رسول الله ﷺ) ১১১ টি | ২৩০৭-২৪১৭ পর্যন্ত 39/ Chapters On Zuhd
  • স্বাস্থ্য ও অবসর এমন দু'টো নিয়ামত যাতে বহু লোক ধোকায় নিপতিত।
  • যে হারাম কাজসমূহ থেকে নিবৃত থাকে সে-ই সর্বপেক্ষা ইবাদতকারী।
  • আমলের বিষয়ে প্রতিযোগী হয়ে এগিয়ে যাওয়া।
  • মৃত্যুর আলোচনা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • যে ব্যক্তি আল্লাহ্‌র সঙ্গে সাক্ষাত করতে ভালবাসে আল্লাহও তার সাথে সাক্ষাতকে ভালবাসেন।
  • নবী (ﷺ) কর্তৃক তার কওমকে ভয় প্রদর্শন।
  • আল্লাহ্‌র ভয়ে ক্রন্দনের ফযীলত।
  • নবী (ﷺ) এর বাণীঃ আমি যা জানি তোমরা যদি তা জানতে তবে তোমরা খুব কমই হাসতে।
  • কেউ যদি লোকদের হাসানোর উদ্দেশ্যে কোন কথা বলে।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • দুনিয়া হল মু'মিনের জন্য কারাগার এবং কাফিরের জন্য জান্নাত।
  • দুনিয়ার দৃষ্টান্ত চার জন লোকের উদাহরণ স্বরূপ।
  • পার্থিব চিন্তা ও মোহ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • এতদসম্পর্কে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • মু'মিনের দীর্ঘজীবী হওয়া।
  • এতদসম্পর্কে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • এই উম্মতের বয়স ষাট থেকে সত্তরের মধ্যে হওয়া।
  • যামানা নিকটবর্তী হওয়া এবং আকাঙ্ক্ষা হ্রাস পাওয়া।
  • আকাঙ্ক্ষা হ্রাস করা।
  • সম্পদ নিয়েই হল এই উম্মতের ফিতনা।
  • কোন আদম সন্তানের যদি দুই উপত্যকা ভর্তি সম্পদ হয় তবুও সে তৃতীয় উপত্যকাটির কামনা করবে।
  • দু'টো বিষয়ের ভালবাসায় বৃদ্ধের হৃদয় যুবকে পরিণত হয়।
  • দুনিয়া বিমুখতা।
  • এতদসম্পর্কে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আল্লাহ্‌র উপর ভরসা করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • যতটুকু প্রয়োজন তাতেই সন্তুষ্ট থাকা এবং এর উপর সবর অবলম্বন করা।
  • দারিদ্রের মর্যাদা।
  • দরিদ্র মুহাজিরগণ ধনীদের পূর্বে জান্নাতে প্রবেশ করবেন।
  • নবী (ﷺ) ও তার পরিবারের জীবন-যাপন প্রসঙ্গে।
  • নবী (ﷺ) এর সাহাবীগণের জীবন-যাপন।
  • মনের ধনীই ধনী।
  • ধনসম্পদ লাভ করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আদম সন্তানের পরিবার, সন্তান, সম্পদ ও আমলের উদাহরণ।
  • অধিক আহার অপছন্দনীয়।
  • রিয়া এবং যশ কামনা।
  • গোপনে আমল করা।
  • যে ব্যক্তি যাকে সে ভালবাসে তার সঙ্গেই থাকবে।
  • আল্লাহ্‌ সম্পর্কে নেক ধারণা পোষণ করা।
  • নেকী ও বদী।
  • আল্লাহ্‌র জন্য ভালবাসা।
  • সামনে প্রশংসা করা পছন্দনীয় নয় এবং প্রশংসাকারী প্রসঙ্গে।
  • মু'মিনের সংসর্গ।
  • মুসীবতে ধৈর্য ধারণ।
  • দৃষ্টি শক্তি বিনষ্ট হওয়া।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • যবানের হিফাযত।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • কম কথা বলা।
  • আল্লাহ্‌র নিকট দুনিয়ার অপকৃষ্টটা ও নগণ্যতা প্রসঙ্গে।
  • ৪০/ কিয়ামত (كتاب صفة القيامة والرقائق والورع عن رسول الله ﷺ) ১০৭ টি | ২৪১৮-২৫২৪ পর্যন্ত 40/ Chapters on the description of the Day of Judgement, Ar-Riqaq, and Al-Wara'
  • কিয়ামত প্রসঙ্গে।
  • হিসাব এবং অন্যায়ের বদলা।
  • হাশরের হাল।
  • আল্লাহ্‌র সামনে উপস্থাপন।
  • এতদসম্পর্কে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • এতদ্বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • এতদ্বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • শিঙ্গা।
  • সিরাত।
  • শাফাআত প্রসঙ্গে।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • এই বিষয়ে আরো একটি অনুচ্ছেদ।
  • হাউযে কাওছার।
  • হাউযে কাওছারের পাত্রের বর্ণনা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৪১/ জান্নাতের বিবরণ (كتاب صفة الجنة عن رسول الله ﷺ) ৪৯ টি | ২৫২৫-২৫৭৩ পর্যন্ত 41/ Chapters on the description of Paradise
  • জান্নাতের গাছের বিবরণ।
  • জান্নাতের বিবরণ ও এর নিয়ামতসমূহ
  • জান্নাতের বালাখানার বিবরণ।
  • জান্নাতের স্তরের বিবরণ।
  • জান্নাতবাসীদের স্ত্রীগনের বিবরণ।
  • জান্নাতবাসীগনের সঙ্গমের বিবরণ।
  • জান্নাতবাসীদের গুনাবলী।
  • জান্নাতীদের পোশাক-পরিচ্ছদ।
  • জান্নাতের ফল।
  • জান্নাতের পাখি।
  • জান্নাতের ঘোড়ার বিবরণ।
  • জান্নাতীদের বয়স।
  • জান্নাতীদের কাতার।
  • জান্নাতের দরজাসমূহের বিবরণ।
  • জান্নাতের বাজার।
  • আল্লাহ্‌ পাকের দীদার।
  • এই বিষয়ে আর একটি অনুচ্ছেদ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • বালাখানাসমূহে জান্নাতীদের পরস্পর অবলোকন।
  • জান্নাতী ও জাহান্নামীদের (স্ব স্ব স্থানে) চিরস্থায়ীভাবে অবস্থান।
  • জান্নাতকে কষ্টকর বিষয় দ্বারা বেষ্টন করা হয়েছে আর জাহান্নামকে বেষ্টন করা হয়েছে প্রবৃত্তি দ্বারা।
  • জান্নাত জাহান্নামের বিতর্ক।
  • সর্বনিম্ন জান্নাতীর মর্যাদা।
  • আয়তলোচনা হুরদের আলাপ-আলোচনা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • জান্নাতের নহরসমূহ।
  • ৪২/ জাহান্নামের বিবরণ (كتاب صفة جهنم عن رسول الله ﷺ) ৩৩ টি | ২৫৭৪-২৬০৬ পর্যন্ত 42/ The Book on the Description of Hellfire
  • জাহান্নামের বিবরণ।
  • জাহান্নাম গহ্বর।
  • জাহান্নামীদের শরীরের বিরাটত্ব।
  • জাহান্নামীদের পানীয়।
  • জাহান্নামীদের খাদ্য।
  • তোমাদের এই দুনিয়ার আগুন হল জাহান্নামের আগুনের সত্তর ভাগের এক ভাগ।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • জাহান্নামাগ্নির দু'টো শ্বাস ও তাওহীদ বিশ্বাসীদের জাহান্নাম থেকে বের করে আনা প্রসঙ্গে।
  • এই বিষয়ে আরেকটি অনুচ্ছেদ।
  • অধিকাংশ জাহান্নামবাসী হল মহিলা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৪৩/ ঈমান (كتاب الإيمان عن رسول الله ﷺ) ৩৯ টি | ২৬০৭-২৬৪৫ পর্যন্ত 43/ The Book on Faith
  • 'লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু' এর স্বীকৃতি না দেওয়া পর্যন্ত আমি লড়াই করতে আদিষ্ট হয়েছি।
  • আমি লোকদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে আদিষ্ট হয়েছি যতক্ষন না তারা 'লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ'-এ কথা স্বীকার করে এবং সালাত কায়েম করে।
  • ইসলাম পাঁচটি বুনিয়াদের উপর প্রতিষ্ঠিত।
  • জিবরীল (আঃ) কর্তৃক নবী (ﷺ)-কে ঈমান ও ইসলামের পরিচয় প্রদান।
  • ঈমানের সঙ্গে ফরয কাজসমূহকে সম্পর্কিত করা।
  • ঈমানের পরিপূর্ণতা এবং এর হ্রাস-বৃদ্ধি।
  • লজ্জা হল ঈমানের অঙ্গ।
  • সালাতের মর্যাদা
  • সালাত পরিত্যাগ করা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ব্যভিচারী ব্যক্তি ব্যভিচারে লিপ্ত থাকা অবস্থায় মু'মিন থাকে না।
  • প্রকৃত মুসলিম হল সেই ব্যক্তি যার যবান ও হাত থেকে অন্য মুসলিম নিরাপদ।
  • শুরুতে ইসলাম ছিল অপরিচিত, অচিরেই তা পুনরায় অপরিচিতের মত হয়ে যাবে।
  • মুনাফিকের আলামত।
  • মুসলিমকে গালিগালাজ করা গুনাহ।
  • কেউ যদি তার মুসলিম ভাইকে কুফরের অপবাদ দেয়।
  • 'আল্লাহ্‌ ছাড়া কোন ইলাহ নেই'-এ কথার সাক্ষ্য দিয়ে যে ব্যক্তি মারা যায়।
  • এই উম্মতের অনৈক্য।
  • ৪৪/ ইলম (كتاب العلم عن رسول الله ﷺ) ৪২ টি | ২৬৪৬-২৬৮৭ পর্যন্ত 44/ Chapters on Knowledge
  • আল্লাহ্‌ যখন কোন বান্দার কল্যাণ ইচ্ছা করেন তখন তাকে দীনের প্রজ্ঞা দান করেন।
  • ইলম অন্বেষণের ফযীলত।
  • ইলম গোপন করা।
  • ইলম অন্বেষণকারী সম্পর্কে বিশেষ ওসিয়াত চাওয়া।
  • ইলমের প্রস্থান।
  • যে ব্যক্তি ইলমের বিনিময়ে দুনিয়া তালাশ করে।
  • শ্রুত ইলম প্রচারে উৎসাহ দান।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর প্রতি মিথ্যা আরোপ করার ভয়াবহতা।
  • মিথ্যা মনে করার পরও যদি কেউ হাদীস রিওয়ায়ত করে।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর হাদীস সম্পর্কে যা বলা নিষেধ।
  • ইলম লিপিবদ্ধ করা নিষিদ্ধ হওয়া সম্পর্কে।
  • ইলম লিপিবদ্ধ করার অনুমতি প্রসঙ্গে।
  • বানূ ইসরাঈলের থেকে কোন কিছু বর্ণনা করা।
  • ভাল কাজের পথ প্রদর্শনকারী তা সম্পাদনকারীর মত।
  • হিদায়াত বা গুমরাহীর দিকে আহ্বানকারীর আহ্বান অনুসৃত হলে।
  • সুন্নাত দৃঢ়ভাবে অবলম্বন করা এবং বিদআত থেকে দূরে থাকা।
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) যে বিষয়সমূহ নিষেধ করেছেন সেগুলো থেকে বিরত থাকা।
  • মদীনার আলিম সম্পর্কে।
  • ইবাদতের উপর ফিকহের (দীনী ইলমের) ফযীলত।
  • ৪৫/ অনুমতি প্রার্থনা (كتاب الاستئذان والآداب عن رسول الله ﷺ) ৪৮ টি | ২৬৮৮-২৭৩৫ পর্যন্ত 45/ Chapters on Seeking Permission
  • সালামের প্রসার প্রসঙ্গে।
  • সালামের ফযীলত।
  • অনুমতি প্রার্থনা তিনবার।
  • সালামের জবাব।
  • সালাম পৌঁছানো প্রসঙ্গে।
  • প্রথম যে সালাম করে তার ফযীলত।
  • সালামের ব্যাপারে হাত দিয়ে ইশারা করা পছন্দনীয় নয়।
  • শিশুদেরকে সালাম করা।
  • মেয়েদের সালাম দেওয়া।
  • নিজ গৃহে প্রবেশকালে সালাম দেওয়া।
  • কথাবার্তার আগে সালাম।
  • অমুসলিমদের সালাম দেওয়া নিষিদ্ধ।
  • যে মজলিসে মুসলিম ও অমুসলিম আছে, সেখানে সালাম দেওয়া।
  • আরোহী ব্যক্তি পথচারী ব্যক্তিকে সালাম দিবে।
  • উঠা-বসার সময় সালাম করা।
  • ঘরের সম্মুখ থেকে অনুমতি চাওয়া।
  • বিনা অনুমতিতে কারো ঘরে উঁকি দেওয়া।
  • অনুমতি প্রার্থনার পূর্বেই সালাম করা।
  • সফর থেকে ফিরে রাতে পরিবারের কাছে অকস্মাৎ প্রবেশ করা নিষিদ্ধ।
  • (কালী চোষার উদ্দেশ্যে) লেখার উপর মাটি ছিটানো।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • সুরইয়ানী ভাষা শিক্ষা।
  • মুশরিকদের সাথে চিঠিপত্র আদান প্রদান।
  • চিঠির উপর মোহর লাগান।
  • সালাম পদ্ধতি।
  • প্রশ্রাবরত ব্যক্তিকে সালাম দেওয়া মাকরূহ।
  • প্রথমেই 'আলায়কাস সালাম' বলা মাকরূহ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পথ-পার্শ্বে উপবেশনকারীর দায়িত্ব।
  • মুসাফাহা।
  • মুআনাকা ও চুম্বন।
  • হাতে ও পায়ে চুমু দেওয়া প্রসঙ্গে।
  • মারহাবা প্রসঙ্গে।
  • ৪৬/ কিতাবুল আদব (كتاب الأدب عن رسول الله ﷺ) ১২৩ টি | ২৭৩৬-২৮৫৮ পর্যন্ত 46/ Chapters on Manners
  • হাঁচিদাতার উত্তর দেওয়া
  • হাঁচি দিলে হাঁচিদাতা কী বলবে?
  • কিভাবে হাঁচিদাতার উত্তর দেওয়া উচিত?
  • হাঁচিদাতা কর্তৃক আলহামদু বলার পর এর উত্তর দেওয়া ওয়াজিব।
  • কতবার হাঁচিদাতার জওয়াব দেওয়া হবে?
  • হাঁচি আসার সময় আওয়াজ নিম্ন করা এবং মুখ ঢাকা।
  • আল্লাহ্‌ তা'আলা হাঁচি পছন্দ করেন আর হাফিফা (হাই তোলা) অপছন্দ করেন।
  • সালাতে হাই আসে শয়তানের পক্ষ থেকে।
  • কাউকে তার আসন থেকে উঠিয়ে দিয়ে সেখানে বসা।
  • কেউ (কোন প্রয়োজনে) তার আসন থেকে উঠে গিয়ে পরে ফিরে এলে সে-ই হবে সে আসনের অধিক হকদার।
  • বিনা অনুমতিতে দুই ব্যক্তির মাঝখানে বসা মাকরূহ।
  • গোলবৈঠকের মাঝখানে বসা নিষিদ্ধ।
  • একজনের জন্য আরেকজনের দাঁড়ানো নিষেধ।
  • নখ কাটা সম্পর্কে।
  • নখ কাটা ও মোচ কাটার জন্য মেয়াদ নির্ধারন প্রসঙ্গে।
  • মোচ ছাটা।
  • দাড়ির (অসমান) অংশ ছাটা।
  • দাড়ি লম্বা করা।
  • চিত হয়ে শুয়ে এক পায়ের উপর আরেক পা রাখা।
  • ঐ অবস্থায় শোয়া মাকরূহ হওয়া।
  • উপুড় হয়ে শয়ন করা মাকরূহ।
  • সতর এর হিফাজত করা।
  • টেক লাগিয়ে বসা।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • প্রত্যেক ব্যক্তি স্বীয় বাহনের অগ্রভাগের অধিক হকদার।
  • নরম পশমী চাদর ব্যবহারের অনুমতি।
  • একই পশুর উপর তিনজন আরোহন করা।
  • হঠাৎ দৃষ্টি পড়ে যাওয়া।
  • পুরুষের থেকে মেয়েদের পর্দা করা।
  • স্বামীর অনুমতি ব্যতিরেকে তার মহিলার কাছে যাওয়া নিষেধ।
  • মহিলাদের ফিতনা সম্পর্কে সতর্কীকরণ।
  • কৃত্রিম কেশ গুচ্ছ ব্যবহার নিষেধ।
  • কৃত্রিম কেশ তৈয়ারকারিণী, কৃত্রিম কেশ ব্যবহারকারিণী, উল্কি অঙ্কনকারিণী এবং যে মহিলা উল্কি অঙ্কন করায়।
  • পুরুষের অনুকরণকারিণী মহিলা।
  • আতর লাগিয়ে মেয়েদের বাইরে যাওয়া নিষেধ।
  • পুরুষ ও মহিলার প্রসাধনী।
  • সুগন্ধ দ্রব্য প্রত্যাখ্যান করা অপছন্দনীয়।
  • কোন পুরুষের সঙ্গে পুরুষের বা মহিলার সঙ্গে মহিলার বস্ত্রহীন অবস্থায় মিলিত হওয়া নিষেধ।
  • সতর রক্ষা করা।
  • উরু সতরের অন্তর্ভুক্ত।
  • পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা
  • যৌন-মিলন কালে শরীর আচ্ছাদিত রাখা।
  • হাম্মামখানায় প্রবেশ করা।
  • যে ঘরে ছবি বা কুকুর আছে সে ঘরে ফিরিশতা প্রবেশ করেন না।
  • পুরুষদের কুসুম রঙের কাপড় পরিধান করা নিষেধ।
  • সাদা কাপড় পরিধান করা।
  • পুরুষদের জন্য লাল কাপড় পরিধানের অনুমতি।
  • সবুজ বস্ত্র পরিধান করা।
  • কাল কাপড় পরিধান।
  • হলদে রঙের পোশাক পরিধান করা।
  • যাফরান রঙে রঞ্জন এবং যাফরান ও অন্যান্য সুগন্ধ দ্রব্য মিশ্রিত প্রসাধনীর ব্যবহার পুরুষদের জন্য নিষেধ।
  • রেশম ও দীবাজ এর কাপড় ব্যবহার নিষেধ।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আল্লাহ্‌ তা'আলা বান্দার উপর তাঁর নিয়ামতের আলামত দেখতে ভালবাসেন।
  • কাল বর্ণের চামড়ার মোজা।
  • পাকা চুল উপড়ানো নিষেধ।
  • পরামর্শদাতা হল আমানতদার।
  • অশুভ লক্ষন প্রসঙ্গ।
  • (তিনজনের) তৃতীয়জনকে বাদ দিয়ে দুইজনে গোপন আলাপ করবে না।
  • ওয়াদা।
  • আপনার প্রতি আমার পিতা-মাতা কুরবান বলা।
  • 'হে বৎস' ! বলে সম্বোধন করা।
  • সন্তানের নাম রাখতে বিলম্ব না করা।
  • পছন্দনীয় নাম।
  • অপছন্দনীয় নাম।
  • নাম পরিবর্তন করা।
  • নবী (ﷺ) এর নাম।
  • নবী (ﷺ) এর নাম ও উপনাম একসঙ্গে রাখা মাকরূহ।
  • কিছু কবিতায় হিকমত রয়েছে।
  • কবিতা আবৃত্তি।
  • 'তোমাদের কারো পেট কবিতা দিয়ে ভরা অপেক্ষা বমি দ্বারা পরিপূর্ণ থাকা অনেক ভাল'
  • ভাষার অলংকরণ ও বিবৃতি।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • ৪৭/ উপমা (كتاب الأمثال عن رسول الله ﷺ) ১৬ টি | ২৮৫৯-২৮৭৪ পর্যন্ত 47/ Chapters on Parables
  • বান্দাদের জন্য আল্লাহ্‌ তা'আলা প্রদত্ত উদাহরণ।
  • নবী (ﷺ) এবং অপরাপর আম্বিয়া-ই কিরামের উদাহরণ।
  • সালাত সিয়াম ও যাকাতের উদাহরণ।
  • কুরআন তিলাওয়াতকারী মুমিন এবং যে কুরআন তিলাওয়াত করে না তাঁর দৃষ্টান্ত।
  • পাঁচ ওয়াক্ত সালাতের দৃষ্টান্ত
  • পরিচ্ছেদ নাই।
  • আদম-সন্তান এবং তাদের আশা ও আয়ূর দৃষ্টান্ত।
  • ৪৮/ কুরআনের ফযীলত (كتاب فضائل القرآن عن رسول الله ﷺ) ৫২ টি | ২৮৭৫-২৯২৬ পর্যন্ত 48/ Chapters on The Virtues of the Qur'an
  • সূরা ফাতিহার ফযীলত।
  • সূরা বাকারা এবং আয়াতুল কুরসীর ফযীলত।
  • সূরা বাকারার শেষাংশের ফযীলত।
  • সূরা আলে-ইমরান এর ফযীলত।
  • সূরা আল-কাহফ এর ফযীলত।
  • সূরা ইয়াসীন এর ফযীলত
  • হা-মীম আদ্‌ দুখান এর ফযীলত।
  • সূরা আল-মুলক এর ফযীলত
  • ইযা যুলযিলাত
  • সূরা ইখলাস।
  • মু'আয়াওওয়াযাতায়ন (সূরা ফালাক ও নাস)
  • কুরআন তিলাওয়াতকারীর ফযীলত
  • কুরআনের ফযীলত।
  • কুরআন শিক্ষা দান প্রসঙ্গে।
  • যে কুরআনের একটি হরফ পড়বে তার সাওয়াব কী হবে।
  • নবী (ﷺ) এর কিরা'আত কেমন ছিল?
  • ৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) ২৩ টি | ২৯২৭-২৯৪৯ পর্যন্ত 49/ Chapters on Recitation
  • সূরা ফাতিহা
  • সূরা হুদ
  • সূরা কাহফ
  • সূরা রূম
  • সূরা কামার
  • সূরা ওয়াকি'আ
  • সূরা লায়ল
  • সূরা যারিয়াত
  • সূরা হজ্জ
  • কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে
  • ৫০/ কুরআন তাফসীর (كتاب تفسير القرآن عن رسول الله ﷺ) ৪২০ টি | ২৯৫০-৩৩৬৯ পর্যন্ত 50/ Chapters on Tafsir
  • নিজের মত অনুসারে কুরআন তাফসীর করা
  • সূরা ফাতিহা
  • সূরা আল-বাকারা
  • সূরা আল-ই-ইমরান
  • সূরা আন-নিসা
  • সূরা আল-মাইদা
  • সূরা আল আন'আম
  • সূরা আল-আ'রাফ
  • সূরা আল-আনফাল
  • সূরা তাওবা
  • সূরা ইউনুস
  • সূরা হুদ
  • সূরা ইউসুফ
  • সূরা রা'দ
  • সূরা ইবরাহীম
  • সূরা আল-হিজর
  • সূরা নাহল
  • সূরা বনী ইসরাঈল
  • সূরা কাহ্‌ফ
  • সূরা মার‍য়াম
  • সূরা তাহা
  • সূরা আল-আম্বিয়া
  • সূরা হজ্জ
  • সূরা মু'মিনূন
  • সূরা নূর
  • সূরা ফুরকান
  • সূরা শুআরা
  • সূরা নামল
  • সূরা কাসাস
  • সূরা আনকাবুত
  • সূরা রূম
  • সূরা লুকমান
  • সূরা সাজদা
  • সূরা আহযাব
  • সূরা সাবা
  • সূরা আল-মালাইকা
  • সূরা ইয়াসীন
  • সূরা সাফ্‌ফাত
  • সূরা সা'দ
  • সূরা যুমার
  • সূরা আল-মু'মিন
  • সূরা হামীম আস-সাজদা
  • সূরা আশ্‌-শূরা
  • সূরা যুখরুফ
  • সূরা আদ্‌-দুখান
  • সূরা আহকাফ
  • সূরা মুহাম্মাদ
  • সূরা ফাতহ
  • সূরা আল-হুজরাত
  • সূরা কাফ
  • সূরা আয-যারিয়াত
  • সূরা আত-তূর
  • সূরা আন-নাজম
  • সূরা আল-কামার
  • সূরা আর-রাহমান
  • সূরা আল-ওয়াকি'আ
  • সূরা আল-হাদীদ
  • সূরা আল-মুজাদালা
  • সূরা আল-হাশর
  • সূরা আল-মুমতাহিনা
  • সূরা সাফফ
  • সূরা আল-জুমু'আ
  • সূরা আল-মুনাফিকুন
  • সূরা আত্‌-তাগাবুন
  • সূরা আত-তাহরীম
  • সূরা নূন ওয়াল-কালাম
  • সূরা আল-হাক্কাহ
  • সূরা সাল সাইল (মা'আরিজ)
  • সূরা জিন
  • সূরা মুদ্দাছ্‌ছির
  • সূরা আল-কিয়ামা
  • সূরা আবাসা
  • সূরা ইযাশ-শামসু কুওবিরাত
  • সূরা ওয়াইলুল-লিল-মুতাফফিফীন
  • সূরা ইযাস-সামাউন শাক্‌কাত
  • সূরা বুরুজ
  • সূরা আল-গাশিয়া
  • সূরা আল-ফজর
  • সূরা ওয়াশ-শামসি ওয়া যুহাহা
  • সূরা ওয়াল-লায়লি ইযা ইয়াগশা
  • সূরা যুহা
  • সূরা আলাম নাশরাহ
  • সূরা ত্বীন
  • সূরা ইকরা বিস্‌মি রাব্বিকা
  • সূরা লায়লাতুল ক্বাদর
  • সূরা লাম ইয়াকুন
  • সূরা ইযা যুলযিলাত
  • সূরা আলহাকুমুত-তাকাছুর
  • সূরা কাওছার
  • সূরা আন-নাসর
  • সূরা তাব্বাত ইয়াদা
  • সূরা ইখলাস
  • সূরা আল-মু'আওওয়াযাতায়ন
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • ৫১/ দু’আ রাসুলুল্লাহ (ﷺ) থেকে বর্ণিত (كتاب الدعوات عن رسول الله ﷺ) ২৩৫ টি | ৩৩৭০-৩৬০৪ পর্যন্ত 51/ Chapters on Supplication
  • দু'আর ফযীলত
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • যিকরের ফযীলত
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • যে সম্প্রদায় কোন এক স্থানে বসে এবং আল্লাহ্‌র যিকর করে, তাদের ফযীলত
  • যে সম্প্রদায় কোন মজলিসে বসে কিন্তু আল্লাহ্‌র যিকর করে না
  • মুসলিমের দু'আ কবূল হয়
  • প্রার্থনাকারী দু'আর ক্ষেত্রে নিজেকে দিয়ে শুরু করবে
  • দু'আর সময় হাত উঠানো
  • দু'আর ব্যাপারে যে ব্যক্তি ত্বরিৎ ফল চায়
  • সকাল ও সন্ধ্যার দু'আ
  • শয্যাগ্রহণকালের দু'আ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • শোয়ার সময় কুরআন থেকে কিছু পাঠ করা
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • শয়নকালে সুবহানাল্লাহ, আল্লাহু আকবার এবং আলহামদুলিল্লাহ্‌ পাঠ করা
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • রাতে ঘুম থেকে জেগে কি দু'আ পড়বে
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এ বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • রাতে সালাতের জন্য দাঁড়ালে কী পাঠ করবে?
  • এই বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • রাতের সালাত শুরুকালের দু'আ
  • এই বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • সিজদা-এ তিলাওয়াতে কি বলা হবে
  • ঘর থেকে বের হওয়ার দু'আ
  • এই বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • বাজারে প্রবেশের দু'আ
  • কোন বান্দা অসুস্থ হলে সে কি পড়বে?
  • কাউকে বিপদগ্রস্থ দেখলে কি পড়বে?
  • মজলিস থেকে উঠে আসার সময় কী দু'আ পড়বে
  • পেরেশানীর সময় কী দু'আ পড়বে
  • কোন মনযিলে অবতরণের সময় কী দু'আ পড়বে
  • মুসাফিররূপে বের হওয়ার সময় কী দু'আ পড়বে
  • সফর থেকে ফিরে এসে কী দু'আ পড়বে
  • কাউকে বিদায় জানাতে গিয়ে কী দু'আ পড়বে
  • এই বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • এই বিষয়ে আরেকটি পরিচ্ছেদ
  • সাওয়ারীতে আরোহণের সময় কী দু'আ পড়বে
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • ঝড় বায়ু প্রবাহিত হলে কী পড়বে
  • বজ্রধ্বনি শুনলে কী পড়বে
  • নতুন চাঁদ দেখার সময় কী পড়বে
  • রাগান্বিত হলে কী পড়বে
  • খারাফ স্বপ্ন দেখলে কী পড়বে
  • প্রথম ফল দেখলে কী পড়বে
  • যখন খানা খাবে তখন কী পড়বে
  • খাওয়া শেষ হওয়ার পর কী পড়বে
  • গাধার ডাক শুনলে কী বলবে
  • সুবহানাল্লাহ, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু এবং আলহামদুলিল্লাহ্‌ পাঠ করার ফযীলত
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) থেকে বর্ণিত সম্মিলিত দু'আ সমূহ
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • হাত দিয়ে তাসবীহ গণনা করা
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • তওবা ও ইস্তিগফারের ফযীলত এবং বান্দার প্রতি আল্লাহ্‌র রহমতের বিবরণ
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • আল্লাহ্‌ তা'আলা একশত রহমত সৃষ্টি করেছেন
  • রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর বাণীঃ (ঐ ব্যাক্তির নাক ধূলিমলিন হোক)
  • নবী (ﷺ) এর দু'আ
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • অসুস্থ ব্যাক্তির দু'আ
  • বিতরের দু'আ
  • নবী (ﷺ)-এর দু'আ এবং প্রত্যেক সালাতের শেষে তাঁর তাআওউয পাঠ
  • হেফয করার দু'আ
  • সুদিনের অপেক্ষা করা ইত্যাদি
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • লা হাওলা ওয়া কুওওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ এর ফযীলত
  • তাসবীহ, তাহলীল, তাকদীস এর ফযীলত
  • যুদ্ধকালীন দু'আ
  • আরাফা দিবসের দু'আ
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • পরিচ্ছেদ নাই
  • ব্যথার উপশম
  • উম্মু সালামার দু'আ
  • আল্লাহ্‌র সবচেয়ে প্রিয় কালাম
  • অনুগ্রহ ও নিরাপত্তা প্রার্থনা
  • আল্লাহ্‌র কিছু ফিরিশতা রয়েছেন - যারা পৃথিবীতে ভ্রমন করেন
  • লা হাওলা ওয়া কুওওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ - এর ফযীলত
  • আল্লাহ্‌র প্রতি সু-ধারণা পোষণ
  • (আল্লাহ্‌র) আশ্রয় প্রার্থনা
  • ৫২/ মানাকিব (ফযিলত, মর্যাদা ও গুণাবলীর বিবরণ) (كتاب المناقب عن رسول الله ﷺ) ৪ টি | ৩৬০৫-৩৬০৮ পর্যন্ত 52/ Chapters on Virtues
  • নবী (ﷺ) এর মর্যাদা