সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন) ৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ)
২৯২৭

পরিচ্ছেদঃ সূরা ফাতিহা

২৯২৭. আলী ইবন হুজর (রহঃ) ..... উম্মু সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আলাদা আলাদা করে কেটে কেটে কিরাআত করতেন। তিনি পড়তেন, আলহামদু লিল্লাহি রাব্বিল আলামিন। এরপর থামতেন। আর-রাহমানির রাহিম এরপরে থামতেন। তারপর তিনি পড়তেন মালিক ইয়াওমিদ্দীন।

সহীহ, ইরওয়া ৩৪৩, মিশকাত ২২০৫, সিফাতুস সালাত, মুখতাসার শামাইল ২৭০, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯২৭ [আল মাদানী প্রকাশনী]

হাদীসটি গারীব। আবূ উবায়দ (রহঃ)-ও এই কিরাআত করতেন এবং এটিকেই তিনি গ্রহণ করেছেন। ইয়াহ্ইয়া ইবন সাঈদ উমারী প্রমুখ (রহঃ) ও ইবন জুরায়জ ... ইবন আবী মুলায়কা ... উম্মু সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে অনুরূপ রিওয়ায়ত করেছেন। কিন্তু এর সনদটি মুত্তাসিল নয়। কেননা, লায়ছ ইবন সাদ-ও এই হাদীসটি ইবন আবী মুলায়কা ... ইয়া’লা ইবন মামলাক ... উম্মু সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে রিওয়ায়ত করেছেন যে, তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কিরাআত হরফে আলাদা আলাদা ছিল বলে বিবরণ দিয়েছেন। লায়ছ (রহঃ) বর্ণিত হাদীসটি অধিক সহীহ। লায়ছ-এর রিওয়ায়তে ’’তারপর তিনি‏مَلِكِ এর স্থানে পড়তেনঃ مَلِكِ يومِ الدين

بَابٌ فِي فَاتِحَةِ الكِتَابِ

حَدَّثَنَا عَلِيُّ بْنُ حُجْرٍ، أَخْبَرَنَا يَحْيَى بْنُ سَعِيدٍ الأُمَوِيُّ، عَنِ ابْنِ جُرَيْجٍ، عَنِ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ، عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ، قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يُقَطِّعُ قِرَاءَتَهُ يَقُولُ ‏(‏الْحَمْدُ لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ ‏)‏ ثُمَّ يَقِفُ ‏(‏ الرَّحْمَنِ الرَّحِيمِ ‏)‏ ثُمَّ يَقِفُ وَكَانَ يَقْرَؤُهَا ‏(‏مَلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ‏)‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ وَبِهِ يَقُولُ أَبُو عُبَيْدٍ وَيَخْتَارُهُ هَكَذَا رَوَى يَحْيَى بْنُ سَعِيدٍ الأُمَوِيُّ وَغَيْرُهُ عَنِ ابْنِ جُرَيْجٍ عَنِ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ وَلَيْسَ إِسْنَادُهُ بِمُتَّصِلٍ لأَنَّ اللَّيْثَ بْنَ سَعْدٍ رَوَى هَذَا الْحَدِيثَ عَنِ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ عَنْ يَعْلَى بْنِ مَمْلَكٍ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ أَنَّهَا وَصَفَتْ قِرَاءَةَ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم حَرْفًا حَرْفًا وَحَدِيثُ اللَّيْثِ أَصَحُّ وَلَيْسَ فِي حَدِيثِ اللَّيْثِ وَكَانَ يَقْرَأُ ‏(‏مَلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ‏)‏ ‏.‏

حدثنا علي بن حجر، أخبرنا يحيى بن سعيد الأموي، عن ابن جريج، عن ابن أبي مليكة، عن أم سلمة، قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يقطع قراءته يقول ‏(‏الحمد لله رب العالمين ‏)‏ ثم يقف ‏(‏ الرحمن الرحيم ‏)‏ ثم يقف وكان يقرؤها ‏(‏ملك يوم الدين ‏)‏ قال أبو عيسى هذا حديث غريب وبه يقول أبو عبيد ويختاره هكذا روى يحيى بن سعيد الأموي وغيره عن ابن جريج عن ابن أبي مليكة عن أم سلمة وليس إسناده بمتصل لأن الليث بن سعد روى هذا الحديث عن ابن أبي مليكة عن يعلى بن مملك عن أم سلمة أنها وصفت قراءة النبي صلى الله عليه وسلم حرفا حرفا وحديث الليث أصح وليس في حديث الليث وكان يقرأ ‏(‏ملك يوم الدين ‏)‏ ‏.‏


Narrated Ibn Abi Mulaikah:
that Umm Salah said: "The Messenger of Allah (SA) would separate recitation reciting: 'Al-Hamdulillahi Rabbil-'Alamin' then he would stop. 'Ar-Rahmanir-Rahim' then he would stop. And he would recite it: 'Maliki Yawmid-Din.'"


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ উম্মু সালামাহ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯২৮

পরিচ্ছেদঃ সূরা ফাতিহা

২৯২৮. আবূ বকর মুহাম্মাদ ইবন আবান (রহঃ) ...... আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবূ বকর, উমর (আমার ধারণা মতে তিনি উছমান রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর কথাও বলেছেন) সবাই পাঠ করতেনঃ مالك ىوم الدىن

যঈফ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯২৮ [আল মাদানী প্রকাশনী]

بَابٌ فِي فَاتِحَةِ الكِتَابِ

حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرٍ، مُحَمَّدُ بْنُ أَبَانَ حَدَّثَنَا أَيُّوبُ بْنُ سُوَيْدٍ الرَّمْلِيُّ، عَنْ يُونُسَ بْنِ يَزِيدَ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، عَنْ أَنَسٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم وَأَبَا بَكْرٍ وَعُمَرَ - وَأُرَاهُ قَالَ - وَعُثْمَانَ كَانُوا يَقْرَءُونَ ‏(‏مَلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ‏)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ مِنْ حَدِيثِ الزُّهْرِيِّ عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ إِلاَّ مِنْ حَدِيثِ هَذَا الشَّيْخِ أَيُّوبَ بْنِ سُوَيْدٍ الرَّمْلِيِّ ‏.‏ وَقَدْ رَوَى بَعْضُ أَصْحَابِ الزُّهْرِيِّ هَذَا الْحَدِيثَ عَنِ الزُّهْرِيِّ أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم وَأَبَا بَكْرٍ وَعُمَرَ كَانُوا يَقْرَءُونَ ‏(‏مَلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ‏)‏ ‏.‏ وَقَدْ رَوَى عَبْدُ الرَّزَّاقِ عَنْ مَعْمَرٍ عَنِ الزُّهْرِيِّ عَنْ سَعِيدِ بْنِ الْمُسَيَّبِ أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم وَأَبَا بَكْرٍ وَعُمَرَ كَانُوا يَقْرَءُونَ ‏(مالك يَوْمِ الدِّينِ ‏)‏‏.‏

حدثنا أبو بكر، محمد بن أبان حدثنا أيوب بن سويد الرملي، عن يونس بن يزيد، عن الزهري، عن أنس، أن النبي صلى الله عليه وسلم وأبا بكر وعمر - وأراه قال - وعثمان كانوا يقرءون ‏(‏ملك يوم الدين ‏)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث غريب لا نعرفه من حديث الزهري عن أنس بن مالك إلا من حديث هذا الشيخ أيوب بن سويد الرملي ‏.‏ وقد روى بعض أصحاب الزهري هذا الحديث عن الزهري أن النبي صلى الله عليه وسلم وأبا بكر وعمر كانوا يقرءون ‏(‏ملك يوم الدين ‏)‏ ‏.‏ وقد روى عبد الرزاق عن معمر عن الزهري عن سعيد بن المسيب أن النبي صلى الله عليه وسلم وأبا بكر وعمر كانوا يقرءون ‏(مالك يوم الدين ‏)‏‏.‏


Narrated Anas:
that the Prophet (ﷺ), Abu Bakr, and 'Umar - and I think he said - and 'Uthman would recite: "Maaliki Yawmid-Din (1:4).'"


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯২৯

পরিচ্ছেদঃ সূরা ফাতিহা

২৯২৯. আবূ কুরায়ব (রহঃ) ..... আনাস ইবন মালিক রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ

‏إِنَّ النَّفْسَ بِالنَّفْسِ وَالْعَيْنُ بِالْعَيْنِ

সুওয়ায়দ ইবন নাসর (রহঃ) ইউনুস ইবন ইয়াযীদ (রহঃ) সূত্রে অনূরূপ বর্ণিত আছে।

আবূ আলী ইবন ইয়াযীদ (রহঃ) হলেন ইউনুস ইবন ইয়াযীদ (রহঃ)-এর ভাই। হাদীসটি হাসান-গারীব। মুহাম্মাদ বুখারী (রহঃ) বলেনঃ ইউনুস ইবন ইয়াযীদ (রহঃ) সূত্রে এই হাদীসটির রিওয়ায়তের ক্ষেত্রে ইবন মুবারক (রহঃ) একা। ইমাম আবূ উবায়দ (রহঃ) এই হাদীসটির অনুসরণে উক্তরূপ পাঠ গ্রহণ করেছেন।

যঈফ, যঈফ আবু দাউদ ৮৫৪, ৩৯৭৬,তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯২৯ [আল মাদানী প্রকাশনী]

بَابٌ فِي فَاتِحَةِ الكِتَابِ

حَدَّثَنَا أَبُو كُرَيْبٍ، حَدَّثَنَا ابْنُ الْمُبَارَكِ، عَنْ يُونُسَ بْنِ يَزِيدَ، عَنْ أَبِي عَلِيِّ بْنِ يَزِيدَ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَرَأَ‏(‏إِنَّ النَّفْسَ بِالنَّفْسِ وَالْعَيْنُ بِالْعَيْنِ ‏)‏

حَدَّثَنَا سُوَيْدُ بْنُ نَصْرٍ، حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ، عَنْ يُونُسَ بْنِ يَزِيدَ، بِهَذَا الإِسْنَادِ نَحْوَهُ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى وَأَبُو عَلِيِّ بْنُ يَزِيدَ هُوَ أَخُو يُونُسَ بْنِ يَزِيدَ وَهَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ غَرِيبٌ ‏.‏ قَالَ مُحَمَّدٌ تَفَرَّدَ ابْنُ الْمُبَارَكِ بِهَذَا الْحَدِيثِ عَنْ يُونُسَ بْنِ يَزِيدَ وَهَكَذَا قَرَأَ أَبُو عُبَيْدٍ ‏(‏ وَالْعَيْنُ بِالْعَيْنِ ‏)‏ اتِّبَاعًا لِهَذَا الْحَدِيثِ ‏.‏

حدثنا أبو كريب، حدثنا ابن المبارك، عن يونس بن يزيد، عن أبي علي بن يزيد، عن الزهري، عن أنس بن مالك، أن النبي صلى الله عليه وسلم قرأ‏(‏إن النفس بالنفس والعين بالعين ‏)‏ حدثنا سويد بن نصر، حدثنا عبد الله، عن يونس بن يزيد، بهذا الإسناد نحوه ‏.‏ قال أبو عيسى وأبو علي بن يزيد هو أخو يونس بن يزيد وهذا حديث حسن غريب ‏.‏ قال محمد تفرد ابن المبارك بهذا الحديث عن يونس بن يزيد وهكذا قرأ أبو عبيد ‏(‏ والعين بالعين ‏)‏ اتباعا لهذا الحديث ‏.‏


Narrated Anas bin Malik:
"The Prophet (ﷺ) would recite: 'Anin-nafsu Bin-Nafsi Wal-'Ainu Bil-'Aini'" (From 5:45)


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩০

পরিচ্ছেদঃ সূরা ফাতিহা

২৯৩০. আবূ কুরায়ব (রহঃ) .... মুআয ইবন জাবাল রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ (هَلْ تَسْتَطِيعُ رَبَّكَ)।

(আবু ঈসা বলেন) এ হাদিসটি শক্তিশালী নয়। রিশদ্বীন ইবন সা’দ এবং আবদুর রহমান ইবন যিয়াদ ইবন আনআম আফরীকী হাদীস রিওয়ায়তের ক্ষেত্রে যঈফ।

যঈফ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩০ [আল মাদানী প্রকাশনী]

بَابٌ فِي فَاتِحَةِ الكِتَابِ

حَدَّثَنَا أَبُو كُرَيْبٍ، حَدَّثَنَا رِشْدِينُ بْنُ سَعْدٍ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ زِيَادِ بْنِ أَنْعُمَ، عَنْ عُتْبَةَ بْنِ حُمَيْدٍ، عَنْ عُبَادَةَ بْنِ نُسَىٍّ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ غَنْمٍ، عَنْ مُعَاذِ بْنِ جَبَلٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَرَأَْ ‏(‏هَلْ تَسْتَطِيعُ رَبَّكَ ‏)‏ قَالَ هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ إِلاَّ مِنْ حَدِيثِ رِشْدِينَ وَلَيْسَ إِسْنَادُهُ بِالْقَوِيِّ ‏.‏ وَرِشْدِينُ بْنُ سَعْدٍ وَعَبْدُ الرَّحْمَنِ بْنُ زِيَادِ بْنِ أَنْعُمٍ الإِفْرِيقِيُّ يُضَعَّفَانِ فِي الْحَدِيثِ ‏.‏

حدثنا أبو كريب، حدثنا رشدين بن سعد، عن عبد الرحمن بن زياد بن أنعم، عن عتبة بن حميد، عن عبادة بن نسى، عن عبد الرحمن بن غنم، عن معاذ بن جبل، أن النبي صلى الله عليه وسلم قرأ ‏(‏هل تستطيع ربك ‏)‏ قال هذا حديث غريب لا نعرفه إلا من حديث رشدين وليس إسناده بالقوي ‏.‏ ورشدين بن سعد وعبد الرحمن بن زياد بن أنعم الإفريقي يضعفان في الحديث ‏.‏


Narrated Mu'adh bin Jabal:
"The Prophet (ﷺ) would recite: 'Hal Tastati'u Rabbak'"


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩১

পরিচ্ছেদঃ সূরা হুদ

২৯৩১. হুসায়ন ইবন মুহাম্মাদ আল-বাসরী (রহঃ) ... উম্মু সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করতেনঃ (إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ)।

সহীহ, সহীহাহ ২৮০৯, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩১ [আল মাদানী প্রকাশনী]

একাধিক রাবী এই হাদীসটিকে ছাবিত বুনানী (রহঃ) সূত্রে অনুরূপ বর্ণনা করেছেন। শাহর ইবন হাওশাব ... আসমা বিনত ইয়াযীদ রাদিয়াল্লাহু আনহা সূত্রেও হাদীসটি বর্ণিত আছে। আবদ ইবন হুমায়দ (রহঃ)-কে বলতে শুনেছি যে, আসমা বিনত ইয়াযীদ রাদিয়াল্লাহু আনহা হলেন উম্মু সালামা আল-আনসারিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহা।

উক্ত হাদীস দুটো আমার মতে একই। শাহর ইবন হাওশাব (রহঃ) উম্মু সালামা আনসারিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহা সূত্রে একাধিক হাদীস বর্ণনা করেছেন। ইনিই হলেন আসমা বিনত ইয়াযীদ। আয়িশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকেও অনুরূপ হাদীস বর্ণিত আছে।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ هُودٍ

حَدَّثَنَا الْحُسَيْنُ بْنُ مُحَمَّدٍ الْبَصْرِيُّ، حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ حَفْصٍ، حَدَّثَنَا ثَابِتٌ الْبُنَانِيُّ، عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ، عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم كَانَ يَقْرَؤُهَا ‏(‏إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ ‏)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ قَدْ رَوَاهُ غَيْرُ وَاحِدٍ عَنْ ثَابِتٍ الْبُنَانِيِّ نَحْوَ هَذَا وَهُوَ حَدِيثُ ثَابِتٍ الْبُنَانِيِّ وَرُوِيَ هَذَا الْحَدِيثُ أَيْضًا عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ عَنْ أَسْمَاءَ بِنْتِ يَزِيدَ ‏.‏ قَالَ وَسَمِعْتُ عَبْدَ بْنَ حُمَيْدٍ يَقُولُ أَسْمَاءُ بِنْتُ يَزِيدَ هِيَ أُمُّ سَلَمَةَ الأَنْصَارِيَّةُ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى كِلاَ الْحَدِيثَيْنِ عِنْدِي وَاحِدٌ وَقَدْ رَوَى شَهْرُ بْنُ حَوْشَبٍ غَيْرَ حَدِيثٍ عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ الأَنْصَارِيَّةِ وَهِيَ أَسْمَاءُ بِنْتُ يَزِيدَ وَقَدْ رُوِيَ عَنْ عَائِشَةَ عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم نَحْوُ هَذَا ‏.‏

حدثنا الحسين بن محمد البصري، حدثنا عبد الله بن حفص، حدثنا ثابت البناني، عن شهر بن حوشب، عن أم سلمة، أن النبي صلى الله عليه وسلم كان يقرؤها ‏(‏إنه عمل غير صالح ‏)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث قد رواه غير واحد عن ثابت البناني نحو هذا وهو حديث ثابت البناني وروي هذا الحديث أيضا عن شهر بن حوشب عن أسماء بنت يزيد ‏.‏ قال وسمعت عبد بن حميد يقول أسماء بنت يزيد هي أم سلمة الأنصارية ‏.‏ قال أبو عيسى كلا الحديثين عندي واحد وقد روى شهر بن حوشب غير حديث عن أم سلمة الأنصارية وهي أسماء بنت يزيد وقد روي عن عائشة عن النبي صلى الله عليه وسلم نحو هذا ‏.‏


Narrated Umm Salamah:
"The Prophet (ﷺ) would recite: 'Innahu 'Amila Ghaira Salih.'"


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ উম্মু সালামাহ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩২

পরিচ্ছেদঃ সূরা হুদ

২৯৩২. ইয়াহ্ইয়া ইবন মুসা (রহঃ) ..... উম্মু সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ (إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ)।

সহীহ, সহীহাহ ২৮০৯, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩২ [আল মাদানী প্রকাশনী]

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ هُودٍ

حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ مُوسَى، حَدَّثَنَا وَكِيعٌ، وَحَبَّانُ بْنُ هِلاَلٍ، قَالاَ حَدَّثَنَا هَارُونُ النَّحْوِيُّ، عَنْ ثَابِتٍ الْبُنَانِيِّ، عَنْ شَهْرِ بْنِ حَوْشَبٍ، عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَرَأَ هَذِهِ الآيَةَ ‏:‏ ‏(‏إِنَّهُ عَمِلَ غَيْرَ صَالِحٍ ‏)‏‏.‏

حدثنا يحيى بن موسى، حدثنا وكيع، وحبان بن هلال، قالا حدثنا هارون النحوي، عن ثابت البناني، عن شهر بن حوشب، عن أم سلمة، أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قرأ هذه الآية ‏:‏ ‏(‏إنه عمل غير صالح ‏)‏‏.‏


Narrated Umm Salamah:
"The Messenger of Allah (ﷺ) recited this Ayah: 'Innahu 'Amalun Ghairu Salih'" (11:46)


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ উম্মু সালামাহ (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৩

পরিচ্ছেদঃ সূরা কাহফ

২৯৩৩. আবূ বকর ইবন নাফি বাসরী (রহঃ) ..... উবাই ইবন কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ (قَد ‏بلغت مِنْ لَدُنِّي عُذْرًا)‏ অর্থাৎلَدُنِّي এরن অক্ষরটি তাশদীদ যুক্ত করে।

যঈফ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৩ [আল মাদানী প্রকাশনী]

হাদীসটি গারীব। এই সূত্র ছাড়া এটি সম্পর্কে আমাদের জানা নেই। উমায়্যা ইবন খালিদ নির্ভরযোগ্য। আবূল জারিয়া আবদী অজ্ঞাত। তাঁর নাম আমাদের জানা নেই।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْكَهْفِ

حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرِ بْنُ نَافِعٍ، - بَصْرِيٌّ - حَدَّثَنَا أُمَيَّةُ بْنُ خَالِدٍ، حَدَّثَنَا أَبُو الْجَارِيَةِ الْعَبْدِيُّ، عَنْ شُعْبَةَ، عَنْ أَبِي إِسْحَاقَ، عَنْ سَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ، عَنْ أُبَىِّ بْنِ كَعْبٍ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم أَنَّهُ قَرَأَْ قَد ‏(‏بلغت مِنْ لَدُنِّي عُذْرًا‏)‏ مُثَقَّلَةً ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ إِلاَّ مِنْ هَذَا الْوَجْهِ ‏.‏ وَأُمَيَّةُ بْنُ خَالِدٍ ثِقَةٌ وَأَبُو الْجَارِيَةِ الْعَبْدِيُّ شَيْخٌ مَجْهُولٌ لاَ أَدْرِي مَنْ هُوَ وَلاَ يُعْرَفُ اسْمُهُ ‏.‏

حدثنا أبو بكر بن نافع، - بصري - حدثنا أمية بن خالد، حدثنا أبو الجارية العبدي، عن شعبة، عن أبي إسحاق، عن سعيد بن جبير، عن ابن عباس، عن أبى بن كعب، عن النبي صلى الله عليه وسلم أنه قرأ قد ‏(‏بلغت من لدني عذرا‏)‏ مثقلة ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث غريب لا نعرفه إلا من هذا الوجه ‏.‏ وأمية بن خالد ثقة وأبو الجارية العبدي شيخ مجهول لا أدري من هو ولا يعرف اسمه ‏.‏


Narrated Ibn 'Abbas:
from 'Ubayy bin Ka'b, that the Prophet (ﷺ) would recite: "Qad balaghta Min Ladunni 'Udhra" (18:76) with heaviness (Muthaqqalah - meaning with Tashdid on the Nun in "Ladunni")."


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
বর্ণনাকারীঃ উবাই ইবনু কা‘ব (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৪

পরিচ্ছেদঃ সূরা কাহফ

২৯৩৪. ইয়াহ্ইয়া ইবন মূসা (রহঃ) ... উবাই ইবন কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ (‏فِي عَيْنٍ حَمِئَةٍ)।

মতন সহীহ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৪ [আল মাদানী প্রকাশনী]

হাদীসটি গারীব। এই সূত্র ছাড়া এটি সম্পর্কে আমরা কিছু জানি না। ইবন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে তাঁর পাঠ সম্পর্কে যে রিওয়ায়তটি আছে তা সহীহ। বর্ণিত আছে যে, এই আয়াতের কিরআতে ইবন আব্বাস এবং আমর ইবনুল আস রাদিয়াল্লাহু আনহুমা এর মাঝে মতপার্থক্য হয়। তখন উভয়ই এই বিষয়টি কা’ব আহবার রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর নিকট উত্থাপন করেন। এই বিষয়ে যদি ইবন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর নিকট নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত কোন রিওয়ায়ত থাকত তবে তিনি সেটিকেই যথেষ্ট মনে করতেন। কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর মুখাপেক্ষী হতেন না।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْكَهْفِ

حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ مُوسَى، حَدَّثَنَا مُعَلَّى بْنُ مَنْصُورٍ، حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ دِينَارٍ، عَنْ سَعْدِ بْنِ أَوْسٍ، عَنْ مِصْدَعٍ أَبِي يَحْيَى، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ، عَنْ أُبَىِّ بْنِ كَعْبٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَرَأَ ‏(فِي عَيْنٍ حَمِئَةٍ)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ إِلاَّ مِنْ هَذَا الْوَجْهِ وَالصَّحِيحُ مَا رُوِيَ عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ قِرَاءَتُهُ ‏.‏ وَيُرْوَى أَنَّ ابْنَ عَبَّاسٍ وَعَمْرَو بْنَ الْعَاصِي اخْتَلَفَا فِي قِرَاءَةِ هَذِهِ الآيَةِ وَارْتَفَعَا إِلَى كَعْبِ الأَحْبَارِ فِي ذَلِكَ فَلَوْ كَانَتْ عِنْدَهُ رِوَايَةٌ عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم لاَسْتَغْنَى بِرِوَايَتِهِ وَلَمْ يَحْتَجْ إِلَى كَعْبٍ ‏.‏

حدثنا يحيى بن موسى، حدثنا معلى بن منصور، حدثنا محمد بن دينار، عن سعد بن أوس، عن مصدع أبي يحيى، عن ابن عباس، عن أبى بن كعب، أن النبي صلى الله عليه وسلم قرأ ‏(في عين حمئة)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث غريب لا نعرفه إلا من هذا الوجه والصحيح ما روي عن ابن عباس قراءته ‏.‏ ويروى أن ابن عباس وعمرو بن العاصي اختلفا في قراءة هذه الآية وارتفعا إلى كعب الأحبار في ذلك فلو كانت عنده رواية عن النبي صلى الله عليه وسلم لاستغنى بروايته ولم يحتج إلى كعب ‏.‏


Narrated Ibn 'Abbas:
from Ubay bin Ka'b that the Prophet (ﷺ) recited: "Fi 'Ainin Hami'ah" (18:86)


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ উবাই ইবনু কা‘ব (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৫

পরিচ্ছেদঃ সূরা রূম

২৯৩৫. নাসর ইবন আলী আল-জাহযমী (রহঃ) .... আবূ সাঈদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ বদর যুদ্ধের দিন রোমকরা পারস্যের উপর বিজয় লাভ করে। মু’মিনদের তাতে আনন্দ হয়। এই প্রসঙ্গে (পূর্বে) নাযিল হয়েছিলঃ (‏يَفْرَحُ الْمُؤْمِنُونَ)।

আলীফ-লাম-মীম রোমকরা পরজিত হয়েছে। নিকটবর্তী অঞ্চলেও কিন্তু তারা এই পরাজয়ের পর শীঘ্রই বিজয়ী হবে। কয়েক বছরের মধ্যেই। পূর্বেই ও পরের সব সিদ্ধান্ত আল্লাহরই। আর সেই দিন মু’মিনগণও হর্ষোৎফুল্লাহ্ হবে (সূরা রূম ৩০ঃ ১-৫)। পারস্যের উপর রোমকদের বিজয়ে মু’মিনরা আনন্দিরা হয়।

হাদীসটি এই সূত্রে হাসান গারীব।غَلَبَتْ ওغُلِبَتْ উভয় রূপেই পঠিত আছে। তিনি বলেনঃ এরাغَلَبَتْ (পরাজিত) ছিল পরেغُلِبَتْ (বিজয়ী) হয়। নাসর ইবন আলী (রহঃ)-ও এইরূপ ভাবেغَلَبَتْ পাঠ করেছেন।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الرُّومِ

حَدَّثَنَا نَصْرُ بْنُ عَلِيٍّ الْجَهْضَمِيُّ، حَدَّثَنَا الْمُعْتَمِرُ بْنُ سُلَيْمَانَ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ سُلَيْمَانَ الأَعْمَشِ، عَنْ عَطِيَّةَ، عَنْ أَبِي سَعِيدٍ، قَالَ لَمَّا كَانَ يَوْمُ بَدْرٍ ظَهَرَتِ الرُّومُ عَلَى فَارِسَ فَأَعْجَبَ ذَلِكَ الْمُؤْمِنِينَ فَنَزَلَتْ ‏(‏ الم * غُلِبَتِ الرُّومُ ‏)‏ إِلَى قَوْلِهِ ‏(‏يَفْرَحُ الْمُؤْمِنُونَ ‏)‏ قَالَ يَفْرَحُ الْمُؤْمِنُونَ بِظُهُورِ الرُّومِ عَلَى فَارِسَ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ غَرِيبٌ مِنْ هَذَا الْوَجْهِ ‏.‏ وَيُقْرَأُ غَلَبَتْ وَغُلِبَتْ يَقُولُ كَانَتْ غُلِبَتْ ثُمَّ غَلَبَتْ هَكَذَا قَرَأَ نَصْرُ بْنُ عَلِيٍّ غَلَبَتْ ‏.‏

حدثنا نصر بن علي الجهضمي، حدثنا المعتمر بن سليمان، عن أبيه، عن سليمان الأعمش، عن عطية، عن أبي سعيد، قال لما كان يوم بدر ظهرت الروم على فارس فأعجب ذلك المؤمنين فنزلت ‏(‏ الم * غلبت الروم ‏)‏ إلى قوله ‏(‏يفرح المؤمنون ‏)‏ قال يفرح المؤمنون بظهور الروم على فارس ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن غريب من هذا الوجه ‏.‏ ويقرأ غلبت وغلبت يقول كانت غلبت ثم غلبت هكذا قرأ نصر بن علي غلبت ‏.‏


Narrated Abu Sa'eed:
"On the Day of (the battle of) Badr, the Romans had a victory over the Persians. So the believers were pleased with that, then the following was revealed: Alif Lam Mim. The Romans have been defeated..." up to His saying: '...the believers will rejoice. (30:1-4)" He said: "So the believers were happy with the victory of the Romans over the Persians.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৬

পরিচ্ছেদঃ কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে

২৯৩৬. মুহাম্মাদ ইবন হুমায়দ আর-রাযী (রহঃ) ...... ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সামনে পাঠ করেছিলেনঃ (‏خَلَقَكُمْ مِنْ ضعْفٍ) নবীজী বললেনঃ (مِنْ ضُعْفٍ)।

হাসান, রওযুন নাযীর ৫৩০, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৬ [আল মাদানী প্রকাশনী]

আবদ ইবন হুমায়দ (রহঃ) ... ফুযায়ল ইবন মারযূফ (রহঃ) থেকে অনূরূপ বর্ণিত আছে। হাদীসটি হাসান-গারীব। ফুযায়ল ইবন মারযূক ... আতিয়্যা ... ইবন উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সনদ ছাড়া এটি সম্পর্কে আমদের কিছু জানা নেই।

بَابُ مَا جَاءَ أُنْزِلَ الْقُرْآنُ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ حُمَيْدٍ الرَّازِيُّ، حَدَّثَنَا نُعَيْمُ بْنُ مَيْسَرَةَ النَّحْوِيُّ، عَنْ فُضَيْلِ بْنِ مَرْزُوقٍ، عَنْ عَطِيَّةَ الْعَوْفِيِّ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ، أَنَّهُ قَرَأَ عَلَى النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلمَ ‏(‏خَلَقَكُمْ مِنْ ضعْفٍ ‏)‏ فَقَالَ مِنْ ضُعْفٍ ‏.‏

حَدَّثَنَا عَبْدُ بْنُ حُمَيْدٍ، حَدَّثَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ، عَنْ فُضَيْلِ بْنِ مَرْزُوقٍ، عَنْ عَطِيَّةَ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم نَحْوَهُ ‏.‏ هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ إِلاَّ مِنْ حَدِيثِ فُضَيْلِ بْنِ مَرْزُوقٍ ‏.‏

حدثنا محمد بن حميد الرازي، حدثنا نعيم بن ميسرة النحوي، عن فضيل بن مرزوق، عن عطية العوفي، عن ابن عمر، أنه قرأ على النبي صلى الله عليه وسلم ‏(‏خلقكم من ضعف ‏)‏ فقال من ضعف ‏.‏ حدثنا عبد بن حميد، حدثنا يزيد بن هارون، عن فضيل بن مرزوق، عن عطية، عن ابن عمر، عن النبي صلى الله عليه وسلم نحوه ‏.‏ هذا حديث حسن غريب لا نعرفه إلا من حديث فضيل بن مرزوق ‏.‏


Narrated Ibn 'Umar:
that he recited the following to the Prophet (ﷺ): "Who created you in the weakness (Min Da'f)" So he said: "Min Du'f"


হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৭

পরিচ্ছেদঃ সূরা কামার

২৯৩৭. মাহমূদ ইবন গায়লান (রহঃ) ..... আবদুল্লাহ্ ইবন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করতেনঃ (‏فَهَلْ مِنْ مُدَّكِرٍ)।

সহীহ, বুখারি, ৪৮৬৯, ৪৮৭৪, মুসলিম ২/২০৫, ২০৬, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৭ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন) হাদীসটি হাসান-সহীহ।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْقَمَرِ

حَدَّثَنَا مَحْمُودُ بْنُ غَيْلاَنَ، حَدَّثَنَا أَبُو أَحْمَدَ الزُّبَيْرِيُّ، حَدَّثَنَا سُفْيَانُ، عَنْ أَبِي إِسْحَاقَ، عَنِ الأَسْوَدِ بْنِ يَزِيدَ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم كَانَ يَقْرَأُ ‏(‏فَهَلْ مِنْ مُدَّكِرٍ)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏

حدثنا محمود بن غيلان، حدثنا أبو أحمد الزبيري، حدثنا سفيان، عن أبي إسحاق، عن الأسود بن يزيد، عن عبد الله بن مسعود، أن رسول الله صلى الله عليه وسلم كان يقرأ ‏(‏فهل من مدكر)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح ‏.‏


Narrated 'Abdullah bin Mas'ud:
that the Messenger of Allah (ﷺ) would recite: "Then is there anyone who would remember? (54:17)


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৮

পরিচ্ছেদঃ সূরা ওয়াকি'আ

২৯৩৮. বিশর ইবন হিলাল আস-সাওওয়াফ বাসরী (রহঃ) ... আয়িশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করতেনঃ (‏فَرَوْحٌ وَرَيْحَانٌ وَجَنَّتُ نَعِيمٍ)।

সহীহ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৮ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন)হাদীসটি হাসান-গারীব। হারূন আল-আওয়ার (রহঃ)-এর রিওয়ায়ত ছাড়া এটি সম্পর্কে আমাদের কিছু জানা নেই।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْوَاقِعَةِ

حَدَّثَنَا بِشْرُ بْنُ هِلاَلٍ الصَّوَّافُ، حَدَّثَنَا جَعْفَرُ بْنُ سُلَيْمَانَ الضُّبَعِيُّ، عَنْ هَارُونَ الأَعْوَرِ، عَنْ بُدَيْلِ بْنِ مَيْسَرَةَ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ شَقِيقٍ، عَنْ عَائِشَةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم كَانَ يَقْرَأُ ‏(فَرَوْحٌ وَرَيْحَانٌ وَجَنَّتُ نَعِيمٍ ‏)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ غَرِيبٌ لاَ نَعْرِفُهُ إِلاَّ مِنْ حَدِيثِ هَارُونَ الأَعْوَرِ ‏.‏

حدثنا بشر بن هلال الصواف، حدثنا جعفر بن سليمان الضبعي، عن هارون الأعور، عن بديل بن ميسرة، عن عبد الله بن شقيق، عن عائشة، أن النبي صلى الله عليه وسلم كان يقرأ ‏(فروح وريحان وجنت نعيم ‏)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن غريب لا نعرفه إلا من حديث هارون الأعور ‏.‏


Narrated 'Aishah:
that the Prophet (ﷺ) would recite: "Furuhun Wa Raihanun Wa Jannatu Na'im (56:89)"


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৩৯

পরিচ্ছেদঃ সূরা লায়ল

২৯৩৯. হান্নাদ (রহঃ) .... আলকামা (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, আমরা শামে গিয়েছিলাম। তখন আবুদ দারদা রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর সঙ্গে সাক্ষাত করতে গেলাম। তিনি জিজ্ঞাসা করলেনঃ আবদুল্লাহ্ (ইবন মাসঊদ)-এর কিরাআত অনুসারে পাঠ করতে পারে তোমাদের মধ্যে এমন কেউ আছে কি? লোক আমার দিকে ইঙ্গিত করল। আমি বললামঃ হ্যাঁ।

তিনি বললেনঃ আবদুল্লাহকে (وَاللَّيْلِ إِذَا يَغْشَى وَالذَّكَرِ وَالأُنْثَى) আয়াতটি কিভাবে পাঠ করতে শুনেছ?

আমি বললামঃ তাঁকে পাঠ করতে শুনেছি যে, ‏ (واللَّيْلِ إِذَا يَغْشَى)

আবূ দারদা রাদিয়াল্লাহু আনুহ বললেনঃ আল্লাহর কসম, আমিও রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে এইভাবেই পাঠ করতে শুনেছি। এরা (এখানকার ক্বারীরা) চায় আমিও পড়িوما خلق। কিন্তু এদের অনুসরণ করব না।

সহীহ, বুখারি ৪৯৪৩, ৪৯৪৪, মুসলিম ২/২০৬, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৩৯ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন) হাদীসটি হাসান-সহীহ।

আবদুল্লাহ্ ইবন মাসঊদ রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর পাঠও এই ছিল যেঃ

وَاللَّيْلِ إِذَا يَغْشَى * وَالنَّهَارِ إِذَا تَجَلَّى * وَالذَّكَرِ وَالأُنْثَى

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ اللَّيْلِ

حَدَّثَنَا هَنَّادٌ، حَدَّثَنَا أَبُو مُعَاوِيَةَ، عَنِ الأَعْمَشِ، عَنْ إِبْرَاهِيمَ، عَنْ عَلْقَمَةَ، قَالَ قَدِمْنَا الشَّامَ فَأَتَانَا أَبُو الدَّرْدَاءِ فَقَالَ أَفِيكُمْ أَحَدٌ يَقْرَأُ عَلَىَّ قِرَاءَةَ عَبْدِ اللَّهِ قَالَ فَأَشَارُوا إِلَىَّ فَقُلْتُ نَعَمْ أَنَا ‏.‏ قَالَ كَيْفَ سَمِعْتَ عَبْدَ اللَّهِ يَقْرَأُ هَذِهِ الآيَةَ ‏(‏واللَّيْلِ إِذَا يَغْشَى ‏)‏ قَالَ قُلْتُ سَمِعْتُهُ يَقْرَؤُهَا ‏(‏والليل إِذا يغشى ‏)‏ ‏(‏الذَّكَر وَالأُنْثَى ‏)‏ فَقَالَ أَبُو الدَّرْدَاءِ وَأَنَا وَاللَّهِ هَكَذَا سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَقْرَؤُهَا وَهَؤُلاَءِ يُرِيدُونَنِي أَنْ أَقْرَأَهَا‏(‏ اخَلَقَ ‏)‏ فَلاَ أُتَابِعُهُمْ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏ وَهَكَذَا قِرَاءَةُ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ ‏(‏ وَاللَّيْلِ إِذَا يَغْشَى * وَالنَّهَارِ إِذَا تَجَلَّى * وَالذَّكَرِ وَالأُنْثَى ‏)‏‏.‏

حدثنا هناد، حدثنا أبو معاوية، عن الأعمش، عن إبراهيم، عن علقمة، قال قدمنا الشام فأتانا أبو الدرداء فقال أفيكم أحد يقرأ على قراءة عبد الله قال فأشاروا إلى فقلت نعم أنا ‏.‏ قال كيف سمعت عبد الله يقرأ هذه الآية ‏(‏والليل إذا يغشى ‏)‏ قال قلت سمعته يقرؤها ‏(‏والليل إذا يغشى ‏)‏ ‏(‏الذكر والأنثى ‏)‏ فقال أبو الدرداء وأنا والله هكذا سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقرؤها وهؤلاء يريدونني أن أقرأها‏(‏ اخلق ‏)‏ فلا أتابعهم ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح ‏.‏ وهكذا قراءة عبد الله بن مسعود ‏(‏ والليل إذا يغشى * والنهار إذا تجلى * والذكر والأنثى ‏)‏‏.‏


Narrated 'Alqamah:
"We arrived in Ash-Sham and we went to Abu Ad-Darda. So he said: 'Is there any among you who can recite for me according to the recitation of 'Abdullah?'" He said: "They pointed to me, so I said: 'Yes, [I (can recite)].' He said: 'How did you hear 'Abdullah recite this Ayah: By the night as it envelopes?'" He said: "I said: 'I heard him recite it: "Wal-Laili Idha Yaghsha, Wadh-Dhakari Wal-Untha" Abu Ad-Darda said: 'Me too, By Allah, this is how I heard the Messenger of Allah (ﷺ) reciting it. But these people want me to recite it: Wa Ma Khalaqa but I will not follow them.'"


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ আলকামাহ (রহঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪০

পরিচ্ছেদঃ সূরা যারিয়াত

২৯৪০. আবদ ইবন হুমায়দ (রহঃ) ...... আবদুল্লাহ্ ইবন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে পড়িয়েছেনঃ

(إِنِّي أَنَا الرَّزَّاقُ ذُو الْقُوَّةِ الْمَتِينُ)।

মতন সহীহ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪০ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন)হাদীসটি হাসান-সহীহ।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الذَّارِيَاتِ

حَدَّثَنَا عَبْدُ بْنُ حُمَيْدٍ، حَدَّثَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ مُوسَى، عَنْ إِسْرَائِيلَ، عَنْ أَبِي إِسْحَاقَ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ يَزِيدَ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ، قَالَ أَقْرَأَنِي رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم‏:‏‏(‏ إِنِّي أَنَا الرَّزَّاقُ ذُو الْقُوَّةِ الْمَتِينُ ‏)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏

حدثنا عبد بن حميد، حدثنا عبيد الله بن موسى، عن إسرائيل، عن أبي إسحاق، عن عبد الرحمن بن يزيد، عن عبد الله بن مسعود، قال أقرأني رسول الله صلى الله عليه وسلم‏:‏‏(‏ إني أنا الرزاق ذو القوة المتين ‏)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح ‏.‏


Narrated 'Abdullah:
"The Messenger of Allah (ﷺ) recited to me: "Indeed Allah is the Provider, The Possessor of power, the Firm." (51:58)


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪১

পরিচ্ছেদঃ সূরা হজ্জ

২৯৪১. আবূ যুরআ, ফাযল ইবন আবী তালিব প্রমুখ (রহঃ) ...... ইমরান ইবন হুসায়ন রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাঠ করেছেনঃ

‏ (وَتَرَى النَّاسَ سُكَارَى وَمَا هُمْ بِسُكَارَى)

সহীহ, বুখারি ৪৭৪১, মুসলিম ১/১৩৯, ১৪০, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪১ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন)হাদীসটি হাসান। আনাস এবং আবুত তুফায়ল রাদিয়াল্লাহু আনহুমা ব্যতীত আর কোন সাহাবী থেকে কাতাদা সরাসরি হাদীস শুনেছেন বলে আমরা জানি না। আমার মতে এই রিওয়ায়তটি সংক্ষিপ্ত। কাতাদা-ইমরান ইবন হুসায়ন রাদিয়াল্লাহু আনহু সুত্রে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ আমরা এক সফরে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সঙ্গে ছিরাম। তিনি পাঠ করলেনঃ (‏يَا أَيُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمْ)।

এরপর তিনি দীর্ঘ হাদীসটির উল্লেখ করেন। আমার মতে হাকাম ইবন আবদিল মালিক (রহঃ) এর রিওয়ায়তটি (২৯৪১ নং) এই হাদীসটির তুলনায় সংক্ষিপ্ত।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْحَجِّ

حَدَّثَنَا أَبُو زُرْعَةَ، وَالْفَضْلُ بْنُ أَبِي طَالِبٍ، وَغَيْرُ، وَاحِدٍ، قَالُوا حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ بِشْرٍ، عَنِ الْحَكَمِ بْنِ عَبْدِ الْمَلِكِ، عَنْ قَتَادَةَ، عَنْ عِمْرَانَ بْنِ حُصَيْنٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَرَأَ‏:‏ ‏(‏وَتَرَى النَّاسَ سُكَارَى وَمَا هُمْ بِسُكَارَى ‏)‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ وَهَكَذَا رَوَى الْحَكَمُ بْنُ عَبْدِ الْمَلِكِ عَنْ قَتَادَةَ ‏.‏ وَلاَ نَعْرِفُ لِقَتَادَةَ سَمَاعًا مِنْ أَحَدٍ مِنْ أَصْحَابِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم إِلاَّ مِنْ أَنَسٍ وَأَبُو الطُّفَيْلِ ‏.‏ وَهُوَ عِنْدِي حَدِيثٌ مُخْتَصَرٌ إِنَّمَا يُرْوَى عَنْ قَتَادَةَ عَنِ الْحَسَنِ عَنْ عِمْرَانَ بْنِ حُصَيْنٍ قَالَ كُنَّا مَعَ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم فِي السَّفَرِ فَقَرَأَ ‏:‏ ‏(‏يَا أَيُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمْ ‏)‏ الْحَدِيثَ بِطُولِهِ وَحَدِيثُ الْحَكَمِ بْنِ عَبْدِ الْمَلِكِ عِنْدِي مُخْتَصَرٌ مِنْ هَذَا الْحَدِيثِ ‏.‏

حدثنا أبو زرعة، والفضل بن أبي طالب، وغير، واحد، قالوا حدثنا الحسن بن بشر، عن الحكم بن عبد الملك، عن قتادة، عن عمران بن حصين، أن النبي صلى الله عليه وسلم قرأ‏:‏ ‏(‏وترى الناس سكارى وما هم بسكارى ‏)‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن وهكذا روى الحكم بن عبد الملك عن قتادة ‏.‏ ولا نعرف لقتادة سماعا من أحد من أصحاب النبي صلى الله عليه وسلم إلا من أنس وأبو الطفيل ‏.‏ وهو عندي حديث مختصر إنما يروى عن قتادة عن الحسن عن عمران بن حصين قال كنا مع النبي صلى الله عليه وسلم في السفر فقرأ ‏:‏ ‏(‏يا أيها الناس اتقوا ربكم ‏)‏ الحديث بطوله وحديث الحكم بن عبد الملك عندي مختصر من هذا الحديث ‏.‏


Narrated 'Imran bin Husain:
"The Prophet (ﷺ) recited: You shall see mankind as if in a drunken state, yet they will not be in a drunken state. (22:2)


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪২

পরিচ্ছেদঃ সূরা হজ্জ

২৯৪২. মাহমূদ ইবন গায়লান (রহঃ) ..... আবদুল্লাহ্ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ কতই না মন্দ তোমাদের জন্য কথা বলাঃ অমুক আয়াতটি আমি ভূলে গিয়ে বরং তোমাকে ভুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। কুরআন স্মরণ রাখতে নিয়মিত প্রয়াস চালিয়ে যাও। কসম সেই সত্তার যাঁর হাতে আমার প্রাণ। পশু যেমন বন্ধন থেকে পালায় মানুষের হৃদয় থেকে কুরআন করীম তদপেক্ষা অধিক হারিয়ে যায়।

সহীহ, আযযিলাল ৪২২, বুখারি ও মুসলিম, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪২ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন)হাদীস হাসান-সহীহ।

بَابٌ: وَمِنْ سُورَةِ الْحَجِّ

حَدَّثَنَا مَحْمُودُ بْنُ غَيْلاَنَ، حَدَّثَنَا أَبُو دَاوُدَ، قَالَ أَنْبَأَنَا شُعْبَةُ، عَنْ مَنْصُورٍ، قَالَ سَمِعْتُ أَبَا وَائِلٍ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏ "‏ بِئْسَمَا لأَحَدِهِمْ أَوْ لأَحَدِكُمْ أَنْ يَقُولَ نَسِيتُ آيَةَ كَيْتَ وَكَيْتَ بَلْ هُوَ نُسِّيَ فَاسْتَذْكِرُوا الْقُرْآنَ فَوَالَّذِي نَفْسِي بِيَدِهِ لَهُوَ أَشَدُّ تَفَصِّيًا مِنْ صُدُورِ الرِّجَالِ مِنَ النَّعَمِ مِنْ عُقُلِهِ ‏"‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏

حدثنا محمود بن غيلان، حدثنا أبو داود، قال أنبأنا شعبة، عن منصور، قال سمعت أبا وائل، عن عبد الله، عن النبي صلى الله عليه وسلم قال ‏ "‏ بئسما لأحدهم أو لأحدكم أن يقول نسيت آية كيت وكيت بل هو نسي فاستذكروا القرآن فوالذي نفسي بيده لهو أشد تفصيا من صدور الرجال من النعم من عقله ‏"‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح ‏.‏


Narrated 'Abdullah:
that the Prophet (ﷺ) said: "How horrible it is for one of them - or - one of you to say: "I have forgotten such and such Ayah,' rather he was made to forget. So be mindful of the Qur'an, for - by the One in Whose Hand is my soul - it escapes from men's hearts faster than a camel from its fetter."


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪৩

পরিচ্ছেদঃ কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে

২৯৪৩. আহমদ ইবন মানী’ (রহঃ) ...... উবাই কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সঙ্গে জিবরীল (আঃ)-এর সাক্ষাত হয়। তিনি তাঁকে বললেন, হে জিবরীল, আমি তো এক উম্মী-উম্মতের প্রতি প্রেরিত হয়েছি। এদের মধ্যে বৃদ্ধ-দৃদ্ধা, বালক-বালিকা এবং এমন অনেক ব্যক্তি যারা কখনও কোন কিতাব পাঠ করেনি। তিনি বললেনঃ হে মুহাম্মাদ, কুরআন সাত হরফে নাযিল হয়েছে।

হাসান সহীহ, সহীহ আবু দাউদ ১৩২৮, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪৪ [আল মাদানী প্রকাশনী]

এই বিষয়ে উমর, হুযাইফা ইবনুল ইয়ামান, আবূ হুরায়রা, আবূ আয়্যূব আনসারী-এর স্ত্রী উম্মু আয়্যূব, সামুরা, ইবন আব্বাস, আবূ জুহায়ম ইবনিল হারিছ ইবন সিম্মা রাদিয়াল্লাহু আনহুম থেকেও হাদীস বর্ণিত আছে। এই হাদীসটি হাসান-সহীহ। উবাই ইবন কা’ব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে অন্যভাবেও বর্ণিত আছে।

بَابُ مَا جَاءَ أُنْزِلَ الْقُرْآنُ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ

حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ مَنِيعٍ، حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ مُوسَى، حَدَّثَنَا شَيْبَانُ، عَنْ عَاصِمٍ، عَنْ زِرِّ بْنِ حُبَيْشٍ، عَنْ أُبَىِّ بْنِ كَعْبٍ، قَالَ لَقِيَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم جِبْرِيلَ فَقَالَ ‏ "‏ يَا جِبْرِيلُ إِنِّي بُعِثْتُ إِلَى أُمَّةٍ أُمِّيِّينَ مِنْهُمُ الْعَجُوزُ وَالشَّيْخُ الْكَبِيرُ وَالْغُلاَمُ وَالْجَارِيَةُ وَالرَّجُلُ الَّذِي لَمْ يَقْرَأْ كِتَابًا قَطُّ ‏"‏ ‏.‏ قَالَ يَا مُحَمَّدُ إِنَّ الْقُرْآنَ أُنْزِلَ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ ‏.‏ وَفِي الْبَابِ عَنْ عُمَرَ وَحُذَيْفَةَ بْنِ الْيَمَانِ وَأُمِّ أَيُّوبَ وَهِيَ امْرَأَةُ أَبِي أَيُّوبَ وَسَمُرَةَ وَابْنِ عَبَّاسٍ وَأَبِي هُرَيْرَةَ وَأَبِي جُهَيْمِ بْنِ الْحَارِثِ بْنِ الصِّمَّةِ وَعَمْرِو بْنِ الْعَاصِ وَأَبِي بَكْرَةَ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ وَقَدْ رُوِيَ مِنْ غَيْرِ وَجْهٍ عَنْ أُبَىِّ بْنِ كَعْبٍ ‏.‏

حدثنا أحمد بن منيع، حدثنا الحسن بن موسى، حدثنا شيبان، عن عاصم، عن زر بن حبيش، عن أبى بن كعب، قال لقي رسول الله صلى الله عليه وسلم جبريل فقال ‏ "‏ يا جبريل إني بعثت إلى أمة أميين منهم العجوز والشيخ الكبير والغلام والجارية والرجل الذي لم يقرأ كتابا قط ‏"‏ ‏.‏ قال يا محمد إن القرآن أنزل على سبعة أحرف ‏.‏ وفي الباب عن عمر وحذيفة بن اليمان وأم أيوب وهي امرأة أبي أيوب وسمرة وابن عباس وأبي هريرة وأبي جهيم بن الحارث بن الصمة وعمرو بن العاص وأبي بكرة ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح وقد روي من غير وجه عن أبى بن كعب ‏.‏


Narrated Ubayy bin Ka'b:
"The Messenger of Allah (ﷺ) met Jibra'il and said: 'O Jibra'il! I have been sent to an illiterate nation among whom are the elderly woman, the old man, the boy and the girl, and the man who cannot read a book at all.' He said: 'O Muhammad! Indeed the Qur'an was revealed in seven modes.'"


হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)
বর্ণনাকারীঃ উবাই ইবনু কা‘ব (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪৪

পরিচ্ছেদঃ কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে

২৯৪৪. হাসান ইবন আলী খাল্লাল প্রমূখ (রহঃ) ...... উমর ইবনুল খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলু্ল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জীবদ্দশায় আমি একবার হিশাম ইবন হাকীম ইবন হিযাম-এর পাশ দিয়ে যাচ্ছিলাম। তিনি তখন (সালাতে) সূরা আল-ফুরকান পড়ছিলেন। আমি তাঁর কিরাআত শুনলাম। কিন্তু তিনি এমন অনেক হরফ তাতে উচ্চারণ করছিলেন যা আমাকে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পড়াননি।

আমি সালাতর মাঝেই তাঁকে প্রায় হামলা করে বসছিলাম। যা হক, আমি অপেক্ষা করলাম যে পর্যন্ত না তিনি সালাম ফিরালেন। তিনি যখন সালাম ফিরালেন আমি তাঁর ঘাড়ে আমার চাদর পেঁচিয়ে ধরলাম। বললামঃ তোমাকে এখন যে সূরা পড়তে শুনলাম তা কে তোমাকে শিখিয়েছে? তিনি বললেনঃ আমাকে তা রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-ই পড়িয়েছেন।

আমি বললামঃ আল্লাহর কসম, তুমি মিথ্যা বলছ। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তো আমাকেও এই সূরা পড়িয়েছেন, যে সূরাটি তুমি পড়েছ। আমি তাকে টানতে টানতে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে নিয়ে গেলাম। বললামঃ ইয়া রাসূলাল্লাহ! আমি একে এমন কিছু শব্দে সূরা আল-ফুরকান পড়তে শুনেছি যেভাবে আপনি আমাকে পড়াননি। আপনিই তো আমাকে সূরা আল-ফুরকান শিখিয়েছেন।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ উমর, একে ছেড়ে দাও। হে হিশাম, তুমি পড়।

তিনি সেভাবেই তা পড়লেন, যেভাবে আমি তাকে পড়তে শুনেছিলাম। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ এভাবেই তা নাযিল হয়েছে। এরপর তিনি আমাকে বললেনঃ উমর, তুমি পড়। আমি সেভাবেই তা পড়লাম যেভাবে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে তা শিখিয়েছিলেন। তিনি বললেনঃ এভাবেই তা নাযিল হয়েছে।

এরপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ এই কুরআন তো সাত হরফে নাযিল হয়েছে। সূতরাং যেভাবে তোমাদের জন্য সহজ হয় সেভাবে তোমরা তা থেকে পাঠ করো।

সহিহ আবু দাউদ ১৩৫২, বুখারি ৪৯৯২, মুসলিম, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪৩ [আল মাদানী প্রকাশনী]

(আবু ঈসা বলেন)হাদীসটি সহীহ। মালিক ইবন আনাস (রহঃ) এটিকে যুহরী (রহঃ) থেকে উক্ত সনদে অনুরূপ রিওয়ায়ত করেছেন। তবে তিনি এর সনদে অনুরূপ রিওয়ায়ত করেছেন। তবে তিনি এর সনদে মিসওয়ার ইবন মাখরামা রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর উল্লেখ করেন নি।

بَابُ مَا جَاءَ أُنْزِلَ الْقُرْآنُ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ

حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ عَلِيٍّ الْخَلاَّلُ، وَغَيْرُ، وَاحِدٍ، قَالُوا حَدَّثَنَا عَبْدُ الرَّزَّاقِ، أَخْبَرَنَا مَعْمَرٌ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، عَنْ عُرْوَةَ بْنِ الزُّبَيْرِ، عَنِ الْمِسْوَرِ بْنِ مَخْرَمَةَ، وَعَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ عَبْدٍ الْقَارِيِّ، أَخْبَرَاهُ أَنَّهُمَا، سَمِعَا عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ، يَقُولُ مَرَرْتُ بِهِشَامِ بْنِ حَكِيمِ بْنِ حِزَامٍ وَهُوَ يَقْرَأُ سُورَةَ الْفُرْقَانِ فِي حَيَاةِ رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فَاسْتَمَعْتُ قِرَاءَتَهُ فَإِذَا هُوَ يَقْرَأُ عَلَى حُرُوفٍ كَثِيرَةٍ لَمْ يُقْرِئْنِيهَا رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فَكِدْتُ أُسَاوِرُهُ فِي الصَّلاَةِ فَنَظَرْتُهُ حَتَّى سَلَّمَ فَلَمَّا سَلَّمَ لَبَّبْتُهُ بِرِدَائِهِ فَقُلْتُ مَنْ أَقْرَأَكَ هَذِهِ السُّورَةَ الَّتِي سَمِعْتُكَ تَقْرَؤُهَا فَقَالَ أَقْرَأَنِيهَا رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏.‏ قُلْتُ لَهُ كَذَبْتَ وَاللَّهِ إِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم لَهُوَ أَقْرَأَنِي هَذِهِ السُّورَةَ الَّتِي تَقْرَؤُهَا ‏.‏ فَانْطَلَقْتُ أَقُودُهُ إِلَى النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم فَقُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنِّي سَمِعْتُ هَذَا يَقْرَأُ سُورَةَ الْفُرْقَانِ عَلَى حُرُوفٍ لَمْ تُقْرِئْنِيهَا وَأَنْتَ أَقْرَأْتَنِي سُورَةَ الْفُرْقَانِ ‏.‏ فَقَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏"‏ أَرْسِلْهُ يَا عُمَرُ اقْرَأْ يَا هِشَامُ ‏"‏ ‏.‏ فَقَرَأَ الْقِرَاءَةَ الَّتِي سَمِعْتُهُ فَقَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏"‏ هَكَذَا أُنْزِلَتْ ‏"‏ ‏.‏ ثُمَّ قَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏"‏ اقْرَأْ يَا عُمَرُ ‏"‏ ‏.‏ فَقَرَأْتُ الْقِرَاءَةَ الَّتِي أَقْرَأَنِي النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم فَقَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏"‏ هَكَذَا أُنْزِلَتْ ‏"‏ ‏.‏ ثُمَّ قَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏"‏ إِنَّ هَذَا الْقُرْآنَ أُنْزِلَ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ فَاقْرَءُوا مَا تَيَسَّرَ ‏"‏ ‏.‏ قَالَ هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏ وَقَدْ رَوَى مَالِكُ بْنُ أَنَسٍ عَنِ الزُّهْرِيِّ بِهَذَا الإِسْنَادِ نَحْوَهُ إِلاَّ أَنَّهُ لَمْ يَذْكُرْ فِيهِ الْمِسْوَرَ بْنَ مَخْرَمَةَ ‏.‏

حدثنا الحسن بن علي الخلال، وغير، واحد، قالوا حدثنا عبد الرزاق، أخبرنا معمر، عن الزهري، عن عروة بن الزبير، عن المسور بن مخرمة، وعبد الرحمن بن عبد القاري، أخبراه أنهما، سمعا عمر بن الخطاب، يقول مررت بهشام بن حكيم بن حزام وهو يقرأ سورة الفرقان في حياة رسول الله صلى الله عليه وسلم فاستمعت قراءته فإذا هو يقرأ على حروف كثيرة لم يقرئنيها رسول الله صلى الله عليه وسلم فكدت أساوره في الصلاة فنظرته حتى سلم فلما سلم لببته بردائه فقلت من أقرأك هذه السورة التي سمعتك تقرؤها فقال أقرأنيها رسول الله صلى الله عليه وسلم قال ‏.‏ قلت له كذبت والله إن رسول الله صلى الله عليه وسلم لهو أقرأني هذه السورة التي تقرؤها ‏.‏ فانطلقت أقوده إلى النبي صلى الله عليه وسلم فقلت يا رسول الله إني سمعت هذا يقرأ سورة الفرقان على حروف لم تقرئنيها وأنت أقرأتني سورة الفرقان ‏.‏ فقال النبي صلى الله عليه وسلم ‏"‏ أرسله يا عمر اقرأ يا هشام ‏"‏ ‏.‏ فقرأ القراءة التي سمعته فقال النبي صلى الله عليه وسلم ‏"‏ هكذا أنزلت ‏"‏ ‏.‏ ثم قال النبي صلى الله عليه وسلم ‏"‏ اقرأ يا عمر ‏"‏ ‏.‏ فقرأت القراءة التي أقرأني النبي صلى الله عليه وسلم فقال النبي صلى الله عليه وسلم ‏"‏ هكذا أنزلت ‏"‏ ‏.‏ ثم قال النبي صلى الله عليه وسلم ‏"‏ إن هذا القرآن أنزل على سبعة أحرف فاقرءوا ما تيسر ‏"‏ ‏.‏ قال هذا حديث حسن صحيح ‏.‏ وقد روى مالك بن أنس عن الزهري بهذا الإسناد نحوه إلا أنه لم يذكر فيه المسور بن مخرمة ‏.‏


Narrated 'Umar bin Al-Khattab:
"I passed by Hisham bin Hakim bin Hizam while he was reciting Surat Al-Furqan during the lifetime of the Messenger of Allah (ﷺ). I listened to his recitation and noticed that he recited it in several different ways, which the Messenger of Allah (ﷺ) had not taught me. I was about to jump over him during his Salat, but waited until he said the Salam. When he had said the Salam, I strangled him with his upper-garment and said: 'Who taught you this Surah which I heard you reciting?' He said: 'The Messenger of Allah (ﷺ) taught it to me.' I said to him: 'You lie! By Allah! The Messenger of Allah (ﷺ) taught me this Surah which you were reciting.' I dragged him to the Messenger of Allah (ﷺ) and said: 'O Messenger of Allah! I heard this one reciting Surat Al-Furqan in a manner different from how you taught me, and you taught me Surat Al-Furqan.' The Prophet (ﷺ) said: 'Release him O 'Umar! Recite O Hisham.' So he recited it for him as I had heard him reciting. Then the Prophet (ﷺ) said to me: 'This is how it was revealed.' Then the Prophet (ﷺ) said to me, 'Recite O 'Umar.' So I recited the recitation which the Prophet (ﷺ) taught me. The Prophet (ﷺ) said: 'This is how it was revealed.' Then the Prophet (ﷺ) said 'Indeed this Qur'an was revealed in seven modes, so recite of it what is easier for you.'"


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪৫

পরিচ্ছেদঃ কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে

২৯৪৫. মাহমূদ ইবন গায়লান (রহঃ) ...... আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি তার কোন ভাইয়ের দুনিয়ার কোন পেরেশানী দূর করবে আল্লাহ্ তা’আলা কিয়ামতের দিনে তার কোন পেরেশানী দূর করে দিবেন। যে ব্যক্তি কোন মুসলিমের কোন দোষ গোপন করবে আল্লাহ্ তা’আলা দুনিয়া ও আখিরাতে তার দোষ গোপন রাখবেন। যে ব্যক্তি কোন দরিদ্র জনের কষ্ট লাঘব করবে আল্লাহ্ তা’আলা দুনিয়া ও আখেরাতে তা কষ্ট লাঘব করবেন। আল্লাহ্ তা’আলা ততক্ষণ তাঁর বান্দার সাহায্যে থাকেন যতক্ষণ বান্দা তার ভাইয়ের সাহায্যে নিয়োজিত থাকে। যে ব্যক্তি ইলম-তালাশে পথ চলবে আল্লাহ্ তা’আলা তার জন্য জান্নাতের পথ সহজ করে দিবেন। যখন কোন সম্প্রদায় সমজিদে বসে আল্লাহর কিতাব তিলাওয়াত করে এবং পরস্পর পাঠ করে তখন তাদের উপর সাকীনা (প্রশান্তি) নাযিল হয়, রহমত তাদেরকে আচ্ছাদিত করে দেয় এবং ফিরিশতারা তাদের বেষ্টন করে রাখেন। আমল যাকে পিছিয়ে নেয় বংশ (মর্যদা) তাঁকে এগিয়ে নিতে পারবে না।

ইবনু মাজাহ ২২৫, মুসলিম, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪৫ [আল মাদানী প্রকাশনী]

একাধিক রাবী আমাশ-আবূ সালেহ-আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু সূত্রে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে এই হাদীসের অনুরূপ রিওয়ায়ত করেছেন। আসবাত ইবন মুহাম্মাদ (রহঃ) আ’মাশ (রহঃ) থেকে রিওয়ায়ত করেন যে, আ’মাশ বলেনঃ আমাকে আবূ সালিহ ... আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু সূত্রে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণনা করা হয়েছে যে, এরপর তিনি ঐ হাদীসটির কতকাংশ রিওয়ায়ত করেন।

بَابُ مَا جَاءَ أُنْزِلَ الْقُرْآنُ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ

حَدَّثَنَا مَحْمُودُ بْنُ غَيْلاَنَ، حَدَّثَنَا أَبُو أُسَامَةَ، حَدَّثَنَا الأَعْمَشُ، عَنْ أَبِي صَالِحٍ، عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏ "‏ مَنْ نَفَّسَ عَنْ أَخِيهِ كُرْبَةً مِنْ كُرَبِ الدُّنْيَا نَفَّسَ اللَّهُ عَنْهُ كُرْبَةً مِنْ كُرَبِ يَوْمِ الْقِيَامَةِ وَمَنْ سَتَرَ مُسْلِمًا سَتَرَهُ اللَّهُ فِي الدُّنْيَا وَالآخِرَةِ وَمَنْ يَسَّرَ عَلَى مُعْسِرٍ يَسَّرَ اللَّهُ عَلَيْهِ فِي الدُّنْيَا وَالآخِرَةِ وَاللَّهُ فِي عَوْنِ الْعَبْدِ مَا كَانَ الْعَبْدُ فِي عَوْنِ أَخِيهِ وَمَنْ سَلَكَ طَرِيقًا يَلْتَمِسُ فِيهِ عِلْمًا سَهَّلَ اللَّهُ لَهُ طَرِيقًا إِلَى الْجَنَّةِ وَمَا قَعَدَ قَوْمٌ فِي مَسْجِدٍ يَتْلُونَ كِتَابَ اللَّهِ وَيَتَدَارَسُونَهُ بَيْنَهُمْ إِلاَّ نَزَلَتْ عَلَيْهِمُ السَّكِينَةُ وَغَشِيَتْهُمُ الرَّحْمَةُ وَحَفَّتْهُمُ الْمَلاَئِكَةُ وَمَنْ أَبْطَأَ بِهِ عَمَلُهُ لَمْ يُسْرِعْ بِهِ نَسَبُهُ ‏"‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَكَذَا رَوَى غَيْرُ وَاحِدٍ عَنِ الأَعْمَشِ عَنْ أَبِي صَالِحٍ عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم مِثْلَ هَذَا الْحَدِيثِ وَرَوَى أَسْبَاطُ بْنُ مُحَمَّدٍ عَنِ الأَعْمَشِ قَالَ حُدِّثْتُ عَنْ أَبِي صَالِحٍ عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم ‏.‏ فَذَكَرَ بَعْضَ هَذَا الْحَدِيثِ ‏.‏

حدثنا محمود بن غيلان، حدثنا أبو أسامة، حدثنا الأعمش، عن أبي صالح، عن أبي هريرة، قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم ‏ "‏ من نفس عن أخيه كربة من كرب الدنيا نفس الله عنه كربة من كرب يوم القيامة ومن ستر مسلما ستره الله في الدنيا والآخرة ومن يسر على معسر يسر الله عليه في الدنيا والآخرة والله في عون العبد ما كان العبد في عون أخيه ومن سلك طريقا يلتمس فيه علما سهل الله له طريقا إلى الجنة وما قعد قوم في مسجد يتلون كتاب الله ويتدارسونه بينهم إلا نزلت عليهم السكينة وغشيتهم الرحمة وحفتهم الملائكة ومن أبطأ به عمله لم يسرع به نسبه ‏"‏ ‏.‏ قال أبو عيسى هكذا روى غير واحد عن الأعمش عن أبي صالح عن أبي هريرة عن النبي صلى الله عليه وسلم مثل هذا الحديث وروى أسباط بن محمد عن الأعمش قال حدثت عن أبي صالح عن أبي هريرة عن النبي صلى الله عليه وسلم ‏.‏ فذكر بعض هذا الحديث ‏.‏


Narrated Abu Hurairah:
that the Messenger of Allah (ﷺ) said: "Whoever alleviates a burden among the burdens of the world for his brother, Allah alleviates a burden among the burdens of the Day of Judgement for him. And whoever covers (the faults) of a Muslim, Allah covers him in the world and in the Hereafter. And whoever makes things easy for one in dire straits, Allah makes things easy for him in the world and the Hereafter. Allah is helping as long as the (His) Slave is helping his brother. And whoever takes a path to gain knowledge, Allah makes a path to Paradise easy for him. And no people sit in a Masjid reciting Allah's Book, studying it among themselves, except that tranquility descends upon them and they are enveloped in the mercy, and surrounded by the angels. And whoever is slow in his deeds, his lineage shall not speed him up."


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
বর্ণনাকারীঃ আবূ হুরায়রা (রাঃ)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
২৯৪৬

পরিচ্ছেদঃ কুরআন নাযিল হয়েছে সাত হরফে

২৯৪৬. উবায়েদ ইবন আসবাত ইবন মুহাম্মাদ কুরাশী (রহঃ) ...... আবদুল্লাহ্ ইবন আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি বললামঃ ইয়া রাসূলুল্লাহ্! কতদিনে আমি কুরআন পাঠ করব? তিনি বললেনঃ মাসে একবার খতম করবে। আমি বললামঃ আমি তো এর চেয়েও বেশী পড়তে সক্ষম।

তিনি বললেনঃ বিশদিনে একবার খতম করবে।

আমি বললামঃ আমি এর চেয়েও বেশি পড়তে সক্ষম।

তিনি বললেনঃ পনের দিনে একবার খতম করবে।

আমি বললামঃ আমি এর চেয়েও বেশি পড়তে সক্ষম।

তিনি বললেনঃ দশদিনে একবার খতম দিবে।

আমি বললামঃ আমি এর চেয়েও বেশি পড়তে সক্ষম।

তিনি বললেনঃ তবে পাঁচ দিনে একবার খতম দাও।

আমি বললামঃ আমি এর চেয়েও বেশি পড়তে সক্ষম।

কিন্তু তিনি আমাকে আর অবকাশ দিলেন না।

যঈফ, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ২৯৪৬ [আল মাদানী প্রকাশনী]

হাদীসটি হাসান-সহীহ-গারীব। আবু বুরদা ... আবদুল্লাহ ইবন আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু-এর রিওয়ায়ত অনুসারে একে গারীব বলে গণ্য করা হয়। এই হাদীসটি আবদুল্লাহ্ ইবন আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে একাধিক সূত্রে বর্ণিত আছে। আবদুল্লাহ্ ইবন আমর রাদিয়াল্লাহু আনহু সূত্রে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে এও বর্ণিত আছে যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁকে বলেছিলেনঃ কুরআন চল্লিশ দিনে এক খতম করবে। ইসহাক ইবন ইব্রাহীম (রহঃ) বলেন, এই হাদীসটির কারণে আমরা পছন্দ করি না যে, চল্লিশ দিন অতিবাহিত হবে অথচ সে কুরআন শরীফ এক খতম করবে না।

কোন কোন আলিম নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত হাদীসের উপর ভিত্তি করে বলেন যে, তিন দিনের কমে কুরআন খতম করবে না। আর কোন কোন আলিম এর অনুমতি দিয়েছেন। উছমান ইবন আফফান রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত আছে যে, বিতরের শেষ রাকআতে পুরো কুরআন খতম করতেন। সাঈদ ইবন জুবায়র (রহঃ) থেকে বর্ণিত আছে যে, কা’বা শরীফে এক রাকআতে তিনি কুরআন করীমের এক খতম দিয়েছিলেন। আলিমগণের নিকট তারতীল অর্থাৎ ধীরে ধীরে স্পষ্ট করে কুরআন পাঠ করা অধিক পছন্দনীয়।

بَابُ مَا جَاءَ أُنْزِلَ الْقُرْآنُ عَلَى سَبْعَةِ أَحْرُفٍ

حَدَّثَنَا عُبَيْدُ بْنُ أَسْبَاطِ بْنِ مُحَمَّدٍ الْقُرَشِيُّ، حَدَّثَنَا أَبِي، عَنْ مُطَرِّفٍ، عَنْ أَبِي إِسْحَاقَ، عَنْ أَبِي بُرْدَةَ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو، قَالَ قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ فِي كَمْ أَقْرَأُ الْقُرْآنَ قَالَ ‏"‏ اخْتِمْهُ فِي شَهْرٍ ‏"‏ ‏.‏ قُلْتُ إِنِّي أُطِيقُ أَفْضَلَ مِنْ ذَلِكَ ‏.‏ قَالَ ‏"‏ اخْتِمْهُ فِي عِشْرِينَ ‏"‏ ‏.‏ قُلْتُ إِنِّي أُطِيقُ أَفْضَلَ مِنْ ذَلِكَ ‏.‏ قَالَ ‏"‏ اخْتِمْهُ فِي خَمْسَةَ عَشَرَ ‏"‏ ‏.‏ قُلْتُ إِنِّي أُطِيقُ أَفْضَلَ مِنْ ذَلِكَ ‏.‏ قَالَ ‏"‏ اخْتِمْهُ فِي عَشْرٍ ‏"‏ ‏.‏ قُلْتُ إِنِّي أُطِيقُ أَفْضَلَ مِنْ ذَلِكَ ‏.‏ قَالَ ‏"‏ اخْتِمْهُ فِي خَمْسٍ ‏"‏ ‏.‏ قُلْتُ إِنِّي أُطِيقُ أَفْضَلَ مِنْ ذَلِكَ ‏.‏ قَالَ فَمَا رَخَّصَ لِي ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ غَرِيبٌ مِنْ هَذَا الْوَجْهِ يُسْتَغْرَبُ مِنْ حَدِيثِ أَبِي بُرْدَةَ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو ‏.‏ وَقَدْ رُوِيَ هَذَا الْحَدِيثُ مِنْ غَيْرِ وَجْهٍ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو وَرُوِيَ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏"‏ لَمْ يَفْقَهْ مَنْ قَرَأَ الْقُرْآنَ فِي أَقَلَّ مِنْ ثَلاَثٍ ‏"‏ ‏.‏ وَرُوِيَ عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ لَهُ ‏"‏ اقْرَإِ الْقُرْآنَ فِي أَرْبَعِينَ ‏"‏ ‏.‏ قَالَ إِسْحَاقُ بْنُ إِبْرَاهِيمَ وَلاَ نُحِبُّ لِلرَّجُلِ أَنْ يَأْتِيَ عَلَيْهِ أَكْثَرُ مِنْ أَرْبَعِينَ يَوْمًا وَلَمْ يَقْرَإِ الْقُرْآنَ لِهَذَا الْحَدِيثِ ‏.‏ وَقَالَ بَعْضُ أَهْلِ الْعِلْمِ لاَ يُقْرَأُ الْقُرْآنُ فِي أَقَلَّ مِنْ ثَلاَثٍ لِلْحَدِيثِ الَّذِي رُوِيَ عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم وَرَخَّصَ فِيهِ بَعْضُ أَهْلِ الْعِلْمِ وَرُوِيَ عَنْ عُثْمَانَ بْنِ عَفَّانَ أَنَّهُ كَانَ يَقْرَأُ الْقُرْآنَ فِي رَكْعَةٍ يُوتِرُ بِهَا وَرُوِيَ عَنْ سَعِيدِ بْنِ جُبَيْرٍ أَنَّهُ قَرَأَ الْقُرْآنَ فِي رَكْعَةٍ فِي الْكَعْبَةِ وَالتَّرْتِيلُ فِي الْقِرَاءَةِ أَحَبُّ إِلَى أَهْلِ الْعِلْمِ ‏.‏

حدثنا عبيد بن أسباط بن محمد القرشي، حدثنا أبي، عن مطرف، عن أبي إسحاق، عن أبي بردة، عن عبد الله بن عمرو، قال قلت يا رسول الله في كم أقرأ القرآن قال ‏"‏ اختمه في شهر ‏"‏ ‏.‏ قلت إني أطيق أفضل من ذلك ‏.‏ قال ‏"‏ اختمه في عشرين ‏"‏ ‏.‏ قلت إني أطيق أفضل من ذلك ‏.‏ قال ‏"‏ اختمه في خمسة عشر ‏"‏ ‏.‏ قلت إني أطيق أفضل من ذلك ‏.‏ قال ‏"‏ اختمه في عشر ‏"‏ ‏.‏ قلت إني أطيق أفضل من ذلك ‏.‏ قال ‏"‏ اختمه في خمس ‏"‏ ‏.‏ قلت إني أطيق أفضل من ذلك ‏.‏ قال فما رخص لي ‏.‏ قال أبو عيسى هذا حديث حسن صحيح غريب من هذا الوجه يستغرب من حديث أبي بردة عن عبد الله بن عمرو ‏.‏ وقد روي هذا الحديث من غير وجه عن عبد الله بن عمرو وروي عن عبد الله بن عمرو عن النبي صلى الله عليه وسلم قال ‏"‏ لم يفقه من قرأ القرآن في أقل من ثلاث ‏"‏ ‏.‏ وروي عن عبد الله بن عمرو أن النبي صلى الله عليه وسلم قال له ‏"‏ اقرإ القرآن في أربعين ‏"‏ ‏.‏ قال إسحاق بن إبراهيم ولا نحب للرجل أن يأتي عليه أكثر من أربعين يوما ولم يقرإ القرآن لهذا الحديث ‏.‏ وقال بعض أهل العلم لا يقرأ القرآن في أقل من ثلاث للحديث الذي روي عن النبي صلى الله عليه وسلم ورخص فيه بعض أهل العلم وروي عن عثمان بن عفان أنه كان يقرأ القرآن في ركعة يوتر بها وروي عن سعيد بن جبير أنه قرأ القرآن في ركعة في الكعبة والترتيل في القراءة أحب إلى أهل العلم ‏.‏


Narrated 'Abdullah bin 'Amr :
"I said: 'O Messenger of Allah! In how much time may I recite the Qur'an?' He said: 'Complete it in one month.' I said: 'I am able to do more than that.' He said: 'Then complete it in twenty (days).' I said: 'I am able to do more than that.' He said: 'Then finish it in fifteen (days).' I said: 'I am able to do more than that.' He said: 'Finish it in ten (days).' I said: 'I am able to do more than that.' He said: 'Finish it in five (days).' I said: 'I am able to do more than that.'" He ('Abdullah bin 'Amr) said: "But he did not permit me."


হাদিসের মানঃ যঈফ (Dai'f)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সুনান আত তিরমিজী (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)
৪৯/ কিরাআত (كتاب القراءات عن رسول الله ﷺ) 49/ Chapters on Recitation
দেখানো হচ্ছেঃ থেকে ২০ পর্যন্ত, সর্বমোট ২৩ টি রেকর্ডের মধ্য থেকে পাতা নাম্বারঃ 1 2 পরের পাতা »