সহীহ শামায়েলে তিরমিযী ৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রবিউল আউয়াল মাসে এবং সোমবারে ইন্তেকাল করার ব্যাপারে কারো কোন মতভেদ নেই। কিন্তু তারিখ নিয়ে ঐতিহাসিকদের মাঝে মতবিরোধ রয়েছে। অধিকাংশের মতে সেদিন ছিল, ১২ (বার) রবিউল আউয়াল।


রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ওফাতের দিন আবু বকর (রাঃ) লোকদের ইমামতি করেন:

২৯৫. আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে শেষবারের মতো দর্শন করলাম, যখন মৃত্যু রোগে আক্রান্ত অবস্থায় সোমবার ফজরের নামাজের সময়; তখন তিনি পর্দা তুলে উম্মতের সালাতে অবস্থা দেখছিলেন। আমি তাঁর চেহারায় যেন আল-কুরআনের পৃষ্ঠা জ্বলজ্বল করতে দেখেছিলাম। লোকেরা আবু বকর (রাঃ) এর পেছনে সালাত আদায় করছিল। (লোকেরা সরে দাঁড়াতে চাইল) কিন্তু তিনি ইঙ্গিতে সকলকে স্থির থাকার নির্দেশ দিলেন এবং আবু বকর (রাঃ) ইমামতি করলেন। সেদিন শেষ বেলায় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকাল করেন।[1]

حَدَّثَنَا أَبُو عَمَّارٍ الْحُسَيْنُ بْنُ حُرَيْثٍ ، وَقُتَيْبَةُ بْنُ سَعِيدٍ ، وَغَيْرُ وَاحِدٍ ، قَالُوا : حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ ، عَنِ الزُّهْرِيِّ ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، قَالَ : " آخِرُ نَظْرَةٍ نَظَرْتُهَا إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , كَشْفُ السِّتَارَةِ يَوْمَ الاثْنَيْنِ ، فَنَظَرْتُ إِلَى وَجْهِهِ كَأَنَّهُ وَرَقَةُ مُصْحَفٍ , وَالنَّاسُ خَلْفَ أَبِي بَكْرٍ ، فَكَادَ النَّاسُ أَنْ يَضْطَربُوا ، فَأَشَارَ إِلَى النَّاسِ أَنِ اثْبُتُوا ، وَأَبُو بَكْرٍ يَؤُمُّهُمْ وَأَلْقَى السِّجْفَ ، وَتُوُفِّيَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مِنْ آخِرِ ذَلِكَ الْيَوْمِ " .

حدثنا أبو عمار الحسين بن حريث ، وقتيبة بن سعيد ، وغير واحد ، قالوا : حدثنا سفيان بن عيينة ، عن الزهري ، عن أنس بن مالك ، قال : " آخر نظرة نظرتها إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم , كشف الستارة يوم الاثنين ، فنظرت إلى وجهه كأنه ورقة مصحف , والناس خلف أبي بكر ، فكاد الناس أن يضطربوا ، فأشار إلى الناس أن اثبتوا ، وأبو بكر يؤمهم وألقى السجف ، وتوفي رسول الله صلى الله عليه وسلم من آخر ذلك اليوم " .


Anas Radiyallahu 'Anhu narrates: "The last glimpse I had of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam was at the time of his last illness on a Monday morning when he lifted the curtain of his house (to take a look at his ummah performing the salaah). At that time his mubaarak face was shining and clear as if it was a page of the Mus-haf (Qur-aan). At that time the people were
performing the (fajr) salaah behind Abubakr Radiyallahu 'Anhu. The people began moving back (in happiness after seeing him, thinking that he would come to join them. Before this too on an occasion when Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam became ill, Abubakr Radiyallahu 'Anhu led the salaah. When he was recovering he would come and join the congregational prayer). Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam made a sign to the people to
remain in their places. Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away on that day".

This is the last glimpse on the Monday, wherein Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam judged that the shar'ee system has been established, and the old friend Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu would fulfil his duty, and shoulder the responsibilities of the ummah. Accordingly, this is what took place and what the world witnessed, that the demise of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam was such an occurrence before which all the incidents that took place in the world are of no importance and as if nothing had occurred, and with it the fitnah of apostasy, and the facing of all worldly problems, but this pinnacle of steadfastness endured all its calamities, and with a will stronger than hard rock, overcame all hardships and difficulties. The truth is that Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu did justice to his responsibilities as a khalifah of Sayyidina Rasulullah Sallallabu 'Alayhi Wasallam. A pillar of Islaam like Sayyidina 'Umar Ridiyallahu 'Anhu, whose courage, strength and ability, friends and enemies alike had accepted, when requesting Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu to adopt leniency, receives a reply not to be weak-hearted.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ওফাতের সময় আয়েশা (রাঃ) এর কোলে ঠেস লাগিয়ে ছিলেন:

২৯৬. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ওফাতের সময় তিনি আমার সিনায় বা আমার কোলে ঠেস লাগিয়ে ছিলেন। অতঃপর তিনি প্রস্রাব করার জন্য একটি পাত্র আনতে বললেন এবং তাতে প্রস্রাব করলেন। এরপর তিনি ইন্তেকাল করেন।[1]

حَدَّثَنَا حُمَيْدُ بْنُ مَسْعَدَةَ الْبَصْرِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا سُلَيْمُ بْنُ أَخْضَرَ ، عَنِ ابْنِ عَوْنٍ ، عَنِ إِبْرَاهِيمَ ، عَنِ الأَسْوَدِ ، عَنْ عَائِشَةَ ، قَالَتْ : " كُنْتُ مُسْنِدَةً النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , إِلَى صَدْرِي أَوْ قَالَتْ : إِلَى حِجْرِي فَدَعَا بِطَسْتٍ لِيَبُولَ فِيهِ ، ثُمَّ بَالَ ، فَمَاتَ " .

حدثنا حميد بن مسعدة البصري ، قال : حدثنا سليم بن أخضر ، عن ابن عون ، عن إبراهيم ، عن الأسود ، عن عائشة ، قالت : " كنت مسندة النبي صلى الله عليه وسلم , إلى صدري أو قالت : إلى حجري فدعا بطست ليبول فيه ، ثم بال ، فمات " .


'Aayeshah Radiyallahu 'Anha relates that at the time of the death of Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam, she gave him support with her chest, or she said with her lap. He asked for a container to urinate in. He urinated therein. Thereafter he passed away.

It is a pride for Sayyiditina 'Aayeshah Radiyallahu 'Anha that the last moments were spent with her. When Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away from this world and reached his Creator, his head was resting in the lap of Sayyiditina 'Aayeshah Radiyallahu 'Anha.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-ও মৃত্যুর যন্ত্রণা ভোগ করেছিলেন:

২৯৭. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মৃত্যুর কষ্ট দেখার পর অন্য কারো মৃত্যুর সময় কষ্ট হলে আমার হিংসা হয় না।

حَدَّثَنَا الْحَسَنُ بْنُ الصَّبَّاحِ الْبَزَّازُ ، قَالَ : حَدَّثَنَا مُبَشِّرُ بْنُ إِسْمَاعِيلَ ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ الْعَلاءِ ، عَنْ أَبِيهِ ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ ، عَنْ عَائِشَةَ ، قَالَتْ : " لا أَغْبِطُ أَحَدًا بَهَوْنِ مَوْتٍ بَعْدَ الَّذِي رَأَيْتُ مِنْ شِدَّةِ مَوْتِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ " .

حدثنا الحسن بن الصباح البزاز ، قال : حدثنا مبشر بن إسماعيل ، عن عبد الرحمن بن العلاء ، عن أبيه ، عن ابن عمر ، عن عائشة ، قالت : " لا أغبط أحدا بهون موت بعد الذي رأيت من شدة موت رسول الله صلى الله عليه وسلم " .


'Aayeshah Radiyallahu 'Anaha narrates: ''After witnessing the difficulties experienced by Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, I do not doubt that anyone does not experience difficulties at the time of death''.

এখানে মৃত্যুর পূর্বে রোগের কষ্ট বুঝানো হয়েছে। আয়েশা (রাঃ) এ কথা বলার উদ্দেশ্য, আমি মনে করতাম, রোগ ছাড়া হঠাৎ মৃত্যু সম্মান ও সৌভাগ্যের ব্যাপার। কিন্তু রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর রোগের কষ্ট দেখে অবগত হতে পেরেছি, এটা কোন সৌভাগ্যের ব্যাপার নয়। কারণ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর চেয়ে ভাগ্যবান আর কে হতে পারে? বরং রোগের কষ্ট দ্বারা গোনাহ মাফ হয় এবং মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। রোগের কারণে মৃত্যুর প্রস্তুতি গ্রহণের সুযোগ তৈরি হয়।


Intense illness is a means of decreasing the sins of one's evil deeds, and incresing in the blessing of that person, Intense illness being a reason for death makes one utter more istighfaar and prepare for death.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে তাঁর মৃত্যুর স্থানেই দাফন করা হয়:

২৯৮. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, যখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ইন্তিকাল হলো তখন তাঁর দাফন নিয়ে মতবিরোধ দেখা দিল। আবু বকর (রাঃ) বললেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হতে এ সম্পর্কে এমন কিছু শুনেছি, যা আমি আজও ভুলিনি। অতঃপর বলেন, আল্লাহ তা’আলা নবীদেরকে এমন স্থানেই মৃত্যু দেন, যেখানে দাফন করা তিনি পছন্দ করেন। অতএব রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে তাঁর মৃত্যুশয্যার স্থানেই দাফন করা হোক।[1]

حَدَّثَنَا أَبُو كُرَيْبٍ مُحَمَّدُ بْنُ الْعَلاءِ ، قَالَ : حَدَّثَنَا أَبُو مُعَاوِيَةَ ، عَنْ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ أَبِي بَكْرٍ وَهُوَ ابْنُ الْمُلَيْكِيِّ ، عَنِ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ ، عَنْ عَائِشَةَ ، قَالَتْ : لَمَّا قُبِضَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , اخْتَلَفُوا فِي دَفْنِهِ ، فَقَالَ أَبُو بَكْرٍ : سَمِعْتُ مِنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , شَيْئًا مَا نَسِيتُهُ ، قَالَ : " مَا قَبَضَ اللَّهُ نَبِيًّا إِلا فِي الْمَوْضِعِ الَّذِي يُحِبُّ أَنْ يُدْفَنَ فِيهِ " , ادْفِنُوهُ فِي مَوْضِعِ فِرَاشِهِ .

حدثنا أبو كريب محمد بن العلاء ، قال : حدثنا أبو معاوية ، عن عبد الرحمن بن أبي بكر وهو ابن المليكي ، عن ابن أبي مليكة ، عن عائشة ، قالت : لما قبض رسول الله صلى الله عليه وسلم , اختلفوا في دفنه ، فقال أبو بكر : سمعت من رسول الله صلى الله عليه وسلم , شيئا ما نسيته ، قال : " ما قبض الله نبيا إلا في الموضع الذي يحب أن يدفن فيه " , ادفنوه في موضع فراشه .


'Aayesh Radiyallahu 'Anha narrates: ''After the demise of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, a disagreement arose (between the Sahaabah) regarding the burial. Abubakr Radiyallahu 'Anhu thereupon said: 'I heard something from Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam which I did not forget (and remember very well). The death of the ambiyaa occurs in the very place where their burial is desired. Hence bury Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam at the place of his deathbed (where his death occurred)'''.

As after the death of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, it was destined that Abubakr Radiyallahu 'Anhu would take his place, therefore such masaa-il were a speciality only known by Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu. A few ahaadith are mentioned as an example:

1. No nabi's death occurs till that nabi becomes a muqtadi, (performs prayers behind) in salaah of among his ummah.

2. The ahaadith on the collecting of zakaah and its nisaab rate.

3. The portion between my grave and mimbar is a part from the gardens of jannah (paradise).

4. The ambiyaa do not have any heirs (No one inherits from a nabi).

5. When Allah Ta'aala gives a nabi any rizq (sustenance), that person is responsible for its administration, who is the khalifah of the nabi.

6. The one that becomes a khalifah or a king, and he carelessly chooses a deputy, the curse of Allah befalls him. By carelessness it is meant that he does not consider the facts.

7. The hadith on the punishment for adultery.

8. The hadith on consultations at the time of jihaad.

9. The basis of the deen is on Laa ilaaha iliallaah.

10. The khilaafah be among the Quraysh.

11. The virtues of the Ansaar and the advice to the khalifahs on caring for them.

12. The punishment of theft.

13. A just and humble king is the Shadow of Allah on earth.

14. The one who wishes to be safe from the hardships of jahannam and remain under the shadow of Allah, should not be harsh towards the Muslims, but treat them with love and care.

15. The nations that discards jihaad, general calamities and hardships befall them. (Tarikhul Khulafaa).

Besides these, there are many other narrations regarding the demise of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam and the administration thereafter.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ওফাতের পর আবু বকর (রাঃ) তাঁর কপালে চুম্বন করেন:

২৯৯. ইবনে আব্বাস ও আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ওফাতের পর আবু বকর (রাঃ) তাঁর কপালে চুম্বন করেন।[1]

حَدَّثَنَا حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ بَشَّارٍ ، وَعَبَّاسٌ الْعَنْبَرِيُّ ، وَسَوَّارُ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ ، وَغَيْرُ وَاحِدٍ , قَالُوا : حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ سَعِيدٍ ، عَنْ سُفْيَانَ الثَّوْرِيِّ ، عَنْ مُوسَى بْنِ أَبِي عَائِشَةَ ، عَنْ عُبَيْدِ اللَّهِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ ، عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ ، وَعَائِشَةَ ، أَنَّ أَبَا بَكْرٍ ، " قَبَّلَ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , بَعْدَ مَا مَاتَ " .

حدثنا حدثنا محمد بن بشار ، وعباس العنبري ، وسوار بن عبد الله ، وغير واحد , قالوا : حدثنا يحيى بن سعيد ، عن سفيان الثوري ، عن موسى بن أبي عائشة ، عن عبيد الله بن عبد الله ، عن ابن عباس ، وعائشة ، أن أبا بكر ، " قبل النبي صلى الله عليه وسلم , بعد ما مات " .


Ibn 'Abbaas Radiyallahu 'Anhu and 'Aayeshah Radiyallahu 'Anha report: "After the death of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, Abubakr Siddiqe Radiyallahu 'Anhu came and kissed the forehead of Rasuluilah Sallallahu 'Alayhi Wasallam".

This hadith is mentioned in brief. A more detailed one will be mentioned later. This kissing of Sayyidina Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam as mentioned by the commentators are for barakah. According to this humble servant it was a farewell kiss, as it was the final parting of a beloved friend.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

৩০০. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ওফাতের পর আবু বকর (রাঃ) তাঁর নিকট এসে তাঁর দুই চোখের মাঝখানে মুখ লাগিয়ে চুম্বন করেন এবং তাঁর বাহুতে দু’হাত রেখে বলেন, হায় নবী! হায় অন্তরঙ্গ বন্ধু! হায় বন্ধু![1]

حَدَّثَنَا حَدَّثَنَا نَصْرُ بْنُ عَلِيٍّ الْجَهْضَمِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا مَرْحُومُ بْنُ عَبْدِ الْعَزِيزِ الْعَطَّارُ ، عَنِ أَبِي عِمْرَانَ الْجَوْنِيِّ ، عَنْ يَزِيدَ بْنِ بَابَنُوسَ ، عَنْ عَائِشَةَ ، أَنَّ أَبَا بَكْرٍ " دَخَلَ عَلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , بَعْدَ وَفَاتِهِ فَوَضَعَ فَمَهُ بَيْنَ عَيْنَيْهِ وَوَضَعَ يَدَيْهِ عَلَى سَاعِدَيْهِ ، وَقَالَ : وَانَبِيَّاهُ ، وَاصَفِيَّاهُ ، وَاخَلِيلاهُ " .

حدثنا حدثنا نصر بن علي الجهضمي ، قال : حدثنا مرحوم بن عبد العزيز العطار ، عن أبي عمران الجوني ، عن يزيد بن بابنوس ، عن عائشة ، أن أبا بكر " دخل على النبي صلى الله عليه وسلم , بعد وفاته فوضع فمه بين عينيه ووضع يديه على ساعديه ، وقال : وانبياه ، واصفياه ، واخليلاه " .


'Aayeshah Radiyallahu 'Anha says that: "After the death of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, Abubakr Radiyallahu 'Anhu entered, kissed him on his lower forehead (between the eyes), and put his hands on the shoulders of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam and said:
'Waa nabiyyaah', He lifted his head bent and kissed the forehead again and said: waa khalilaah."'

আবু বকর (রাঃ) রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর কপালে দু’চোখের মাঝখানে চুম্বন করেছেন। সাহাবী উসমান ইবনে মাযউনের ইন্তেকালের পর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁকে চুম্বন করেছেন। এতে বুঝা যায়, মৃত ব্যক্তিকে চুম্বন করা জায়েয।


These words were not intended to draw attention, therefore there is no perplexity. A narration in Musnad Ahmad states that Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu came towards the mubaarak head of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, bent his head towards the noble face and kissed the forehead, and said: 'Waa nabiyyaah'. He lifted his head bent and kissed the forehead again and said: 'Waa khalilaah".


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মৃত্যুতে সাহাবীদের কাছে সবকিছু অন্ধকার মনে হচ্ছিল:

৩০১. আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যেদিন মদিনায় প্রবেশ করছিলেন, সেদিন সেখানকার প্রতিটি জিনিস আলোকোজ্জল হয়ে পড়েছিল। অতঃপর যেদিন তিনি ইন্তেকাল করেন, সেদিন আবার তথাকার প্রতিটি অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছিল। আমরা তাঁর দাফনকার্য শেষ করে কবরের মাটি থেকে হাত ঝাড়া না দেইত আমাদের অন্তরে পরিবর্তন অনুভব করলাম।[1]

حَدَّثَنَا بِشْرُ بْنُ هِلالٍ الصَّوَّافُ الْبَصْرِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا جَعْفَرُ بْنُ سُلَيْمَانَ ، عَنْ ثَابِتٍ ، عَنْ أَنَسٍ ، قَالَ : " لَمَّا كَانَ الْيَوْمُ الَّذِي دَخَلَ فِيهِ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْمَدِينَةَ أَضَاءَ مِنْهَا كُلُّ شَيْءٍ ، فَلَمَّا كَانَ الْيَوْمُ الَّذِي مَاتَ فِيهِ أَظْلَمَ مِنْهَا كُلُّ شَيْءٍ ، وَمَا نَفَضْنَا أَيْدِيَنَا مِنَ التُّرَابِ ، وَإِنَّا لَفِي دَفْنِهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , حَتَّى أَنْكَرْنَا قُلُوبَنَا " .

حدثنا بشر بن هلال الصواف البصري ، قال : حدثنا جعفر بن سليمان ، عن ثابت ، عن أنس ، قال : " لما كان اليوم الذي دخل فيه رسول الله صلى الله عليه وسلم المدينة أضاء منها كل شيء ، فلما كان اليوم الذي مات فيه أظلم منها كل شيء ، وما نفضنا أيدينا من التراب ، وإنا لفي دفنه صلى الله عليه وسلم , حتى أنكرنا قلوبنا " .


Anas Radiyallahu 'Anhu reports: "The day Nabi Sallallahu 'Alayhi Wasallam came to Madinah, everything in Madinah became illuminated. (When the anwaar increased, it could be felt. In the dark nights of Ramadaan many a time because of the intensity of the anwaaraat (illuminations), a
natural illumination, was felt). The day when Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away, 'everything of Madinah became dark. We had not yet dusted off the dust from our hands after the burial of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam when we began to feel the change in our hearts."

এ বক্তব্যের অর্থ, এটা নয় যে, সাহাবীদের আমল ও আকীদার মাঝে পরিবর্তন হয়ে গেছে; বরং উদ্দেশ্য হলো, তারা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সান্নিধ্যে অন্তরে প্রশান্তি লাভ করতেন, সে বিশেষ অবস্থার পরিবর্তন অনুভব করেছেন।


This does not mean that a change took place in their deeds and beliefs, but they missed the bounties of his noble company and seeing his inspiring personality, and the anwaar that were always present could not be benefited from anymore. Nowadays too the disciples of the mashaaikh (spiritul guide) also feel the difference when in the shaykh's company and when not in his company. For this reason, in order to gain those anwaar, one is made to strive in dhikr and muraaqabah (rneditation-contemplation). Previously all this was not necessary. The visiting of the jamaal of the entire universe (i.e. Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi.Wasallam) was enough for countless manifestations. It created such a status of imaan and ihsaan in a man which cannot be attained through countless rnujaahadaat (striving and exerting in spiritual upliftment). After becoming a Sahaabi, the love of Allah and his Rasul Sallallahu 'Alayhi Wasallam became so overwhelming that one's own life and wealth ceased to have value. The lives of the Sahaabah Radiyallahu 'Anhum are testimony to this.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সোমবারের দিন ইন্তেকাল করেন:

৩০২. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সোমবারের দিন ইন্তেকাল করেন।[1]

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ حَاتِمٍ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَامِرُ بْنُ صَالِحٍ ، عَنْ هِشَامِ بْنِ عُرْوَةَ ، عَنْ أَبِيهِ ، عَنْ عَائِشَةَ ، قَالَتْ : " تُوُفِّيَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ الاثْنَيْنِ " .

حدثنا محمد بن حاتم ، قال : حدثنا عامر بن صالح ، عن هشام بن عروة ، عن أبيه ، عن عائشة ، قالت : " توفي رسول الله صلى الله عليه وسلم يوم الاثنين " .


'Aayeshah Radiyallahu 'Anha said: ''Rasulullah Sallalllahu 'Alayhi Wasallam passed away on a Monday''.

This has been mentioned prevously. The muhadditheen and historians are unanimous in that Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away on Monday.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

মঙ্গলবারের দিন রাতে তাঁকে দাফন করা হয়:

৩০৩. জা’ফর ইবনে মুহাম্মাদ (রহঃ) তাঁর পিতা থেকে বর্ণনা করেন যে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সোমবারে ইন্তেকাল করেন। সোমবার ও মঙ্গলবার দাফন-কাফনের প্রস্তুতিতেই চলে যায়। অতঃপর মঙ্গলবার দিবাগত রাতে তাঁকে দাফন করা হয়।

حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ أَبِي عُمَرَ ، قَالَ : حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ ، عَنْ جَعْفَرِ بْنِ مُحَمَّدٍ ، عَنْ أَبِيهِ ، قَالَ : " قُبِضَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ الاثْنَيْنِ فَمَكَثَ ذَلِكَ الْيَوْمَ وَلَيْلَةَ الثُّلاثَاءِ ، وَدُفِنَ مِنَ اللَّيْلِ "

حدثنا محمد بن أبي عمر ، قال : حدثنا سفيان بن عيينة ، عن جعفر بن محمد ، عن أبيه ، قال : " قبض رسول الله صلى الله عليه وسلم يوم الاثنين فمكث ذلك اليوم وليلة الثلاثاء ، ودفن من الليل "


It is narrated from Imaam Muhammad Al-Baaqir Radiyallahu 'Anhu that Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away on Monday. This day and the day of Tuesday was spent in preparation for the burial. Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam was buried on that night.

Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam was buried during the night of Tuesday and Wednesday, which could be called Tuesday or Wednesday too.'Hence this narration does not contradict the previous narration. Some of the 'ulama have said that after overcoming the question of the khilaafah, the tajheez and takfeen began on Tuesday and ended on the night of Wednesday (Tuesday night).


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মৃত্যু ও আবুবকর (রাঃ) এর বাইয়াত গ্রহণ:

৩০৪. সাহাবী সালিম ইবনে উবাইদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অসুস্থ অবস্থায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলছিলেন। জ্ঞান ফিরে এলে তিনি জিজ্ঞেস করলেন, সালাতের সময় হয়েছে কি? সাহাবীগণ বলেন, হ্যাঁ। তিনি বললেন, তোমরা বেলালকে আযান দিতে নির্দেশ দাও এবং আবু বকরকে ইমামতি করতে বলো। অতঃপর তিনি আবার অজ্ঞান হয়ে পড়েন। জ্ঞান ফিরে এলে তিনি বলেন, সালাতের সময় হয়েছে কি? সাহাবীগণ বলেন, হ্যাঁ। তিনি বললেন, তোমরা বেলালকে আযান দিতে বলো এবং আবু বকরকে ইমামতি করতে বলো। আয়েশা (রাঃ) বলেন, আমার পিতা কোমল হৃদয়ের লোক। যখন আপনার স্থানে দাঁড়াবেন, তখন কেঁদে ফেলবেন এবং ইমামতি করতে সক্ষম হবেন না। আপনি যদি তাঁকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে নির্দেশ দিতেন।

বর্ণনাকারী বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবার জ্ঞান হারান। জ্ঞান ফিরে এ তিনি বললেন, তোমরা বেলালকে আযান দিতে বলো এবং আবু বকরকে লোকদের সালাত পড়াতে বলো। পুনরায় আয়েশা (রাঃ) বলেন, আমার পিতা কোমল হৃদয়ের লোক। তিনি ঐ ইমামতের জায়গায় দাঁড়ালে কেদে ফেলবেন এবং ইমামতি করতে সক্ষম হবেন না। আপনি যদি তাকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে নির্দেশ দিতেন। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমরা তো ইউসুফ (আঃ) এর ঘটনার সাথে জড়িত মহিলাদের মতো। বর্ণনাকারী বলেন, বেলাল (রাঃ)-কে আযান দেয়ার নির্দেশ দেয়া হলে তিনি আযান দেন এবং আবু বকর (রাঃ)-কে নির্দেশ দেয়া হলে তিনি লোকদের সালাত পড়ান। অতঃপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কিছুটা সুস্থতাবোধ করে বলেন, দেখতো! আমার ভর নেয়ার মতো কোন লোক পাওয়া যায় কি না? তখন বর্ণনাকারী ও অপর এক লোক এলে তিনি তাদের উপর ভর করেন (এবং মসজিদে যান)। তাঁকে দেখে আবু বকর (রাঃ) পেছনে সরে আসতে উদ্যোগী হলে তিনি তাকে স্বস্থানে স্থির থাকতে ইশারা করেন। এ অবস্থায় আবু বকর (রাঃ) সালাত আদায় করান। অতঃপর সোমবার রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকাল করলে উমার (রাঃ) বললেন, আল্লাহর কসম! যে ব্যক্তিকে এ কথা বলতে শুনব যে, “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকাল করেছেন” আমি আমার তরবারি দিয়ে তাকে আঘাত করব। আর লোকদের এ ব্যাপারে কোন অভিজ্ঞতা ছিল না। কারণ, তারা ইতোপূর্বে কোন নবীর মৃত্যু দেখেনি। তাই তারা নীরব থাকেন।

কতিপয় সাহাবী বলেন, হে সালেম, তুমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সাথীকে ডেকে আন। অতএব আমি আবু বকর (রাঃ) এর নিকট এলাম। তখন তিনি মসজিদে ছিলেন। আমি দিশেহারা হয়ে কান্নারত অবস্থায় আবু বকর (রাঃ) এর নিকট উপস্থিত হলাম। তিনি আমাকে দেখেই বললেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কি ইন্তেকাল করেছেন? আমি বললাম উমার (রাঃ) বলেছেন, যাকে এ কথা বলতে শুনবো যে, “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকাল করেছেন” আমি আমার এ তরবারী দ্বারা তাকে আঘাত করব। আবু বকর (রাঃ) আমাকে বললেন, চলো। অতএব আমি তাঁর সাথে চললাম এবং তিনিও আসলেন। ইতোমধ্যে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে দেখার জন্য লোকজন এসে সমবেত হয়েছে। তিনি বলেন, হে লোক সকল, আমার জন্য রাস্তা করে দাও। তিনি এসে তাঁর প্রতি ঝুঁকে পড়েন এবং কপালে চুম্বন করে এ আয়াত পড়েন,

إِنَّكَ مَيِّتٌ وَإِنَّهُمْ مَيِّتُونَ

অর্থাৎ নিশ্চয় আপনি মরণশীল এবং তারাও (আপনার শত্রুরা) মরণশীল।[1]

অতঃপর লোকেরা জিজ্ঞেস করল, হে রাসূলের সাহাবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কি ইন্তেকাল করেছেন? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তখন সবাই বিশ্বাস করলেন, তিনি সত্য কথাই বলেছেন। তারা আবার জিজ্ঞেস করেন, হে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সাথী! আমরা কি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জানাযা পড়ব? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তারা জিজ্ঞেস করেন, তা কী নিয়মে? তিনি বললেন, একদল লোক প্রবেশ করবে, তারা তাকবীর বলবে, দুআ করবে এবং দরূদ পাঠ করবে। তারা বের হয়ে এলে আরেক দল প্রবেশ করে একই নিয়েম তাকবীর, দু’আ ও দরূদ পড়ে বের হয়ে আসবে। এ নিয়মে জামা'আত ছাড়া সকলে আলাদা আলাদা জানাযার সালাত আদায় করবে। তারা আবার জিজ্ঞেস করেন, হে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সঙ্গী! রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে কি দাফন করা হবে? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তারা জিজ্ঞেস করেন, কোথায়? তিনি বললেন, যে স্থানে তাঁর ইন্তেকাল হয়েছে সেখানেই। আল্লাহ তাঁর পছন্দের স্থানেই তাঁর জান কবয করেছেন। তখন সকলের বিশ্বাস হলো, তিনি সত্য কথাই বলেছেন। তারপর তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে গোসল দেয়ার জন্য তাঁর পরিবারবর্গ ও আত্মীয়-স্বজনকে আদেশ করেন।

অতঃপর মুহাজিররা (খেলাফত প্রশ্নে) পরামর্শের জন্য মিলিত হন। মুহাজিররা আবু বকর (রাঃ)-কে বললেন, আমাদেরকে নিয়ে আনসার ভাইদের কাছে চলুন এবং এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আমাদের সাথে তাদেরকেও অন্তর্ভুক্ত করব। আনসারগণ বললেন, আমাদের মধ্য হতে একজন আমীর এবং আপনাদের (মুহাজিরদের) মধ্য থেকে একজন আমীর হোক। তখন উমার (রাঃ) বললেন, এমন কে আছে, যে এই ঘটনার তৃতীয়জন (যে ঘটনাটির ব্যাপারে আল্লাহ তা’আলা বলেন)-

ثَانِيَ اثْنَيْنِ إِذْ هُمَا فِي الْغَارِ إِذْ يَقُولُ لِصَاحِبِهِ لا تَحْزَنْ إِنَّ اللَّهَ مَعَنَا

“দু’জনের একজন যখন তারা ছিল গুহার মধ্যে, যখন সে তাঁর সাথীকে বলল, বিচলিত হয়ো না; নিশ্চয় আল্লাহ আমাদের সাথে আছেন।[2]

কারা ছিলেন সে দু’জন? বর্ণনাকারী বলেন, তারপর উমার (রাঃ) তাঁর হাত প্রসারিত করে দিয়ে আবু বকর (রাঃ)-এর হাতে বাইয়াত গ্রহণ করেন। তারপর লোকেরাও তাঁর হাতে বাইয়াত গ্রহণ করেন।[3]

حَدَّثَنَا نَصْرُ بْنُ عَلِيٍّ الْجَهْضَمِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ دَاوُدَ ، قَالَ : حَدَّثَنَا سَلَمَةُ بْنُ نُبَيْطٍ ، عَنْ نُعَيْمِ بْنِ أَبِي هِنْدَ ، عَنْ نُبَيْطِ بْنِ شَرِيطٍ ، عَنْ سَالِمِ بْنِ عُبَيْدٍ ، وَكَانَتْ لَهُ صُحْبَةٌ ، قَالَ : أُغْمِيَ عَلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , فِي مَرَضِهِ فَأَفَاقَ ، فَقَالَ : " حَضَرَتِ الصَّلاةُ " ؟ فَقَالُوا : نَعَمْ . فَقَالَ : " مُرُوا بِلالا فَلْيُؤَذِّنْ ، وَمُرُوا أَبَا بَكْرٍ أَنْ يُصَلِّيَ لِلنَّاسِ " أَوْ قَالَ : بِالنَّاسِ ، قَالَ : ثُمَّ أُغْمِيَ عَلَيْهِ ، فَأَفَاقَ ، فَقَالَ : " حَضَرَتِ الصَّلاةُ ؟ " فَقَالُوا : نَعَمْ . فَقَالَ : " مُرُوا بِلالا فَلْيُؤَذِّنْ ، وَمُرُوا أَبَا بَكْرٍ فَلْيُصَلِّ بِالنَّاسِ " ، فَقَالَتْ عَائِشَةُ : إِنَّ أَبِي رَجُلٌ أَسِيفٌ ، إِذَا قَامَ ذَلِكَ الْمَقَامَ بَكَى فَلا يَسْتَطِيعُ ، فَلَوْ أَمَرْتَ غَيْرَهُ ، قَالَ : ثُمَّ أُغْمِيَ عَلَيْهِ فَأَفَاقَ فَقَالَ : " مُرُوا بِلالا فَلْيُؤَذِّنْ ، وَمُرُوا أَبَا بَكْرٍ فَلْيُصَلِّ بِالنَّاسِ ، فَإِنَّكُنَّ صَوَاحِبُ أَوْ صَوَاحِبَاتُ يُوسُفَ " ، قَالَ : فَأُمِرَ بِلالٌ فَأَذَّنَ ، وَأُمِرَ أَبُو بَكْرٍ فَصَلَّى بِالنَّاسِ ، ثُمَّ إِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , وَجَدَ خِفَّةً ، فَقَالَ : " انْظُرُوا لِي مَنْ أَتَّكِئُ عَلَيْهِ " ، فَجَاءَتْ بَرِيرَةُ , وَرَجُلٌ آخَرُ ، فَاتَّكَأَ عَلَيْهِمَا فَلَمَّا رَآهُ أَبُو بَكْرٍ ذَهَبَ لِينْكُصَ فَأَوْمَأَ إِلَيْهِ أَنْ يَثْبُتَ مَكَانَهُ ، حَتَّى قَضَى أَبُو بَكْرٍ صَلاتَهُ ، ثُمَّ إِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قُبِضَ ، فَقَالَ عُمَرُ : وَاللَّهِ لا أَسْمَعُ أَحَدًا يَذْكُرُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , قُبِضَ إِلا ضَرَبْتُهُ بِسَيْفِي هَذَا ، قَالَ : وَكَانَ النَّاسُ أُمِّيِّينَ لَمْ يَكُنْ فِيهِمْ نَبِيٌّ قَبْلَهُ ، فَأَمْسَكَ النَّاسُ ، فَقَالُوا : يَا سَالِمُ ، انْطَلِقْ إِلَى صَاحِبِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَادْعُهُ ، فَأَتَيْتُ أَبَا بَكْرٍ وَهُوَ فِي الْمَسْجِدِ فَأَتَيْتُهُ أَبْكِي دَهِشًا ، فَلَمَّا رَآنِي ، قَالَ : أَقُبِضَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ؟ قُلْتُ : إِنَّ عُمَرَ , يَقُولُ : لا أَسْمَعُ أَحَدًا يَذْكُرُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قُبِضَ إِلا ضَرَبْتُهُ بِسَيْفِي هَذَا ، فَقَالَ لِي : انْطَلِقْ ، فَانْطَلَقْتُ مَعَهُ ، فَجَاءَ هُوَ وَالنَّاسُ قَدْ دَخَلُوا عَلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , فَقَالَ : يَا أَيُّهَا النَّاسُ ، أَفْرِجُوا لِي ، فَأَفْرَجُوا لَهُ فَجَاءَ حَتَّى أَكَبَّ عَلَيْهِ وَمَسَّهُ ، فَقَالَ : إِنَّكَ مَيِّتٌ وَإِنَّهُمْ مَيِّتُونَ سورة الزمر آية 30 , ثُمَّ قَالُوا : يَا صَاحِبَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ، أَقُبِضَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ؟ قَالَ : نَعَمْ ، فَعَلِمُوا أَنْ قَدْ صَدَقَ ، قَالُوا : يَا صَاحِبَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ، أَيُصَلَّى عَلَى رَسُولِ اللَّهِ ؟ قَالَ : نَعَمْ ، قَالُوا : وَكَيْفَ ؟ قَالَ : يَدْخُلُ قَوْمٌ فَيُكَبِّرُونَ وَيُصَلُّونَ , وَيَدْعُونَ ، ثُمَّ يَخْرُجُونَ ، ثُمَّ يَدْخُلُ قَوْمٌ فَيُكَبِّرُونَ وَيُصَلُّونَ وَيَدْعُونَ ، ثُمَّ يَخْرُجُونَ ، حَتَّى يَدْخُلَ النَّاسُ ، قَالُوا : يَا صَاحِبَ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ، أَيُدْفَنُ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ؟ قَالَ : نَعَمْ ، قَالُوا : أَيْنَ ؟ قَالَ : فِي الْمكَانِ الَّذِي قَبَضَ اللَّهُ فِيهِ رُوحَهُ ، فَإِنَّ اللَّهَ لَمْ يَقْبِضْ رُوحَهُ إِلا فِي مَكَانٍ طَيِّبٍ . فَعَلِمُوا أَنْ قَدْ صَدَقَ ، ثُمَّ أَمَرَهُمْ أَنْ يَغْسِلَهُ بَنُو أَبِيهِ , وَاجْتَمَعَ الْمُهَاجِرُونَ يَتَشَاوَرُونَ ، فَقَالُوا : انْطَلِقْ بِنَا إِلَى إِخْوَانِنَا مِنَ الأَنْصَارِ نُدْخِلُهُمْ مَعَنَا فِي هَذَا الأَمْرِ ، فَقَالَتِ الأَنْصَارُ : مِنَّا أَمِيرٌ وَمِنْكُمْ أَمِيرٌ ، فَقَالَ عُمَرُ بْنُ الْخَطَّابِ : مَنْ لَهُ مثل هَذِهِ الثَّلاثِ ثَانِيَ اثْنَيْنِ إِذْ هُمَا فِي الْغَارِ إِذْ يَقُولُ لِصَاحِبِهِ لا تَحْزَنْ إِنَّ اللَّهَ مَعَنَا سورة التوبة آية 40 مَنْ هُمَا ؟ قَالَ : ثُمَّ بَسَطَ يَدَهُ فَبَايَعَهُ وَبَايَعَهُ النَّاسُ بَيْعَةً حَسَنَةً جَمِيلَةً .

حدثنا نصر بن علي الجهضمي ، قال : حدثنا عبد الله بن داود ، قال : حدثنا سلمة بن نبيط ، عن نعيم بن أبي هند ، عن نبيط بن شريط ، عن سالم بن عبيد ، وكانت له صحبة ، قال : أغمي على رسول الله صلى الله عليه وسلم , في مرضه فأفاق ، فقال : " حضرت الصلاة " ؟ فقالوا : نعم . فقال : " مروا بلالا فليؤذن ، ومروا أبا بكر أن يصلي للناس " أو قال : بالناس ، قال : ثم أغمي عليه ، فأفاق ، فقال : " حضرت الصلاة ؟ " فقالوا : نعم . فقال : " مروا بلالا فليؤذن ، ومروا أبا بكر فليصل بالناس " ، فقالت عائشة : إن أبي رجل أسيف ، إذا قام ذلك المقام بكى فلا يستطيع ، فلو أمرت غيره ، قال : ثم أغمي عليه فأفاق فقال : " مروا بلالا فليؤذن ، ومروا أبا بكر فليصل بالناس ، فإنكن صواحب أو صواحبات يوسف " ، قال : فأمر بلال فأذن ، وأمر أبو بكر فصلى بالناس ، ثم إن رسول الله صلى الله عليه وسلم , وجد خفة ، فقال : " انظروا لي من أتكئ عليه " ، فجاءت بريرة , ورجل آخر ، فاتكأ عليهما فلما رآه أبو بكر ذهب لينكص فأومأ إليه أن يثبت مكانه ، حتى قضى أبو بكر صلاته ، ثم إن رسول الله صلى الله عليه وسلم قبض ، فقال عمر : والله لا أسمع أحدا يذكر أن رسول الله صلى الله عليه وسلم , قبض إلا ضربته بسيفي هذا ، قال : وكان الناس أميين لم يكن فيهم نبي قبله ، فأمسك الناس ، فقالوا : يا سالم ، انطلق إلى صاحب رسول الله صلى الله عليه وسلم فادعه ، فأتيت أبا بكر وهو في المسجد فأتيته أبكي دهشا ، فلما رآني ، قال : أقبض رسول الله صلى الله عليه وسلم ؟ قلت : إن عمر , يقول : لا أسمع أحدا يذكر أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قبض إلا ضربته بسيفي هذا ، فقال لي : انطلق ، فانطلقت معه ، فجاء هو والناس قد دخلوا على رسول الله صلى الله عليه وسلم , فقال : يا أيها الناس ، أفرجوا لي ، فأفرجوا له فجاء حتى أكب عليه ومسه ، فقال : إنك ميت وإنهم ميتون سورة الزمر آية 30 , ثم قالوا : يا صاحب رسول الله صلى الله عليه وسلم ، أقبض رسول الله صلى الله عليه وسلم ؟ قال : نعم ، فعلموا أن قد صدق ، قالوا : يا صاحب رسول الله صلى الله عليه وسلم ، أيصلى على رسول الله ؟ قال : نعم ، قالوا : وكيف ؟ قال : يدخل قوم فيكبرون ويصلون , ويدعون ، ثم يخرجون ، ثم يدخل قوم فيكبرون ويصلون ويدعون ، ثم يخرجون ، حتى يدخل الناس ، قالوا : يا صاحب رسول الله صلى الله عليه وسلم ، أيدفن رسول الله صلى الله عليه وسلم ؟ قال : نعم ، قالوا : أين ؟ قال : في المكان الذي قبض الله فيه روحه ، فإن الله لم يقبض روحه إلا في مكان طيب . فعلموا أن قد صدق ، ثم أمرهم أن يغسله بنو أبيه , واجتمع المهاجرون يتشاورون ، فقالوا : انطلق بنا إلى إخواننا من الأنصار ندخلهم معنا في هذا الأمر ، فقالت الأنصار : منا أمير ومنكم أمير ، فقال عمر بن الخطاب : من له مثل هذه الثلاث ثاني اثنين إذ هما في الغار إذ يقول لصاحبه لا تحزن إن الله معنا سورة التوبة آية 40 من هما ؟ قال : ثم بسط يده فبايعه وبايعه الناس بيعة حسنة جميلة .


Saalim bin 'Ubayd Radiyallahu 'Anhu, a sahaabi narrates: "Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam became unconscious (many times) during his (last) illness. When he became conscious he would ask: 'Is it already time for salaah?' When they replied yes, he would say: 'Instruct Bilaal to call out the adhaan, and instruct Abubakr to lead the salaah'. This happened a few times.(He said this because he was too ill to go to the masjid. Sayyidinia Abubakr Radiyallahu 'Anhu was naturally soft-natured. Many a time he would weep easily. Sayyiditina 'Aayesha Radiallallahu 'Anha knew her fathers relationship with Sayyidina Rasulullah Sallallhu 'Alayhi Wasallam and that he would not be able to withstand the absence of Sayyidina Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallain. Therefore 'Aayeshah Radiyallahu 'Anha made a request. 'My father has a soft heart. If he is going to stand on your place and lead the salaah, he will begin to weep, and will not be able to lead the salaah. Therefore, request someone else to lead the salaah'. In this manner after 'Aayeshah Radiyallahu 'Anha had made several requests;- Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam replied: 'Do you wish to become of those women in the incident of Yusuf ('Alayhis Salaam). Instruct Abubakr to lead the salaah'.

Once during the illness, Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam felt a bit well during the time of salaah. He asked if there was anyone who could support him till the masjid, Barirah and another person offered themselves, held him by his mubaarak hands and took him to the masjid. Abubakr Radiyallahu 'Anhu sensing the arrival of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam, thought of moving back. Rasulullah Sallallah 'Alayhi Wasallam signaled him to remain there. Abubakr Radiyallahu 'Anhu completed the salaah. After that Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam passed away. (He passed away on a Monday).

It is apparent what difficulties and hardships the Sahaabah Radiyallahu 'Anhum experienced at this time, also bearing in mind the mischief of the munaafiqeen-hypocrites and enemies. The upkeep and safeguarding of the garden that Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam nurtured for twenty three years. Together with all this the passing away of the blessed and noble
personality of Sayyidina Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam, who was so beloved, for whom the Sahaabah Radiyallahu 'Anhum had sacrificed their homes, family and relatives. On this morning it seemed that he was recovering, actually he was sustaining it and not recovering. After the death of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam the news spread quickly, but
many people could not believe it. Therefore, 'Umar (a respected and strong hearted person with all the virtues, courage, tolerance etc. could not bear it, and in this state unsheathed his sword and stood up and) began saying, "I swear by Allah that Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam has not passed away. The person saying Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam had passed
away. I will severe that person's head with my sword". He (Saalim) said, the people were ummis (unlettered-they did read or write), nor was there a nabi among them before this, therefore all those present kept silent. They (the Sahaabah) said to Saalim go to the companion of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam and call him.

I went to Abubakr (Radiyallahu 'Anhu) in the state of shock and tears were flowing from my eyes. At that time he was in the rnasjid. Upon seeing my state asked: 'Did Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam ) pass away? I conveyed the news to him and also said to him that 'Umar had said, if he heard anyone saying
Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam) has died, he would cut off that person's head with that sword of his. Abubakr said, "Let's go". I went with him. He reached the house while the people were gathering around Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam). He said: 'O people, make way for me'. The people made way for him. He gave a deep look at the mubaarak face of Rasulullah
Sallallahu 'Alayhi Wasallam and kissed his forehead, then recited this aayah:
'Lo! thou will die, and lo! they will die;'-Surah Zumur, 30.

Then they (Sahaabah Radiyallahu 'Anhum) asked: 'O Companion (Abubakr Radiyallahu 'Anhu) of Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam) has Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam) really passed away?' He replied: 'Yes'. Now they accepted. (After that they asked him other questions, because in every question there was a peculiarity.) They said: 'O Companion of Rasulullah
(Sallallahu 'Alayhi Wasallam), should janaazah salaah be performed for Rasulullah?' He replied: 'Yes'. They said: 'And how?' He said: 'A group at a time enter the room and perform the janazah salaah individually without jamaa'ah, and return. In this manner all will perform this salaah'.
They (the Sahaabah) asked. 'O Companion of Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam) shall Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam be buried?' He replied: 'Yes' They inquired: 'Where?' He replied: 'At the spot where Allah had taken his ruh. Verily'Allah Ta'aala has not taken his ruh but at a venerated place'. They (Sahaabah) knew he said the truth (and became satisfied with all the
answers). Thereafter he instructed the family of his (Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam's) father to carry out the tajheez and takfeen.

The Muhaajireen got together and discussed the matter. They said: 'Lets go to our brothers from among the Ansaar and include them in this matter.The Ansaar said: 'we shall have an amir, and the Muhaajireen, shall have an amir (Upon that Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu narrated the saying of Sayyidina Rasulullah Sallallhu 'Alayhi Wasallam that the amirs are from the
Quraysh) 'Umar ibnul Khattaab Radiyallahu 'Anhu said: 'Who is that person who in one instance possesses these three virtues Whom Allah Ta'aala has mentioned Qur-aan thus:''... (1) the second of two; when they two were in the cave, (2) when he said unto his comrade: Grieve not. (3) Lo! Allah is with us...''-Surah Taubah 40.

Also other virtues. These three should also be such that they are of the highest order: (l.) To have unity and a close relationship with Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam and have assisted him when he was alone. (2.) Allah Ta'aala addresses him as the Companion of Sayyidina Rasululah Sallallahu 'Alayhi Wasallam'. (3) Be in the company of Allah, as Sayyidina Rasulullah
Sallallahu 'Alayhi Wasallam has said to him that 'Allah is with us'. At that time both Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam and Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu were there, regarding which Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam said: 'Allah is with us.' Sayyidina'Umar Radiyallahu 'Anhu said: 'You say, who are these two persons that are mentioned
in the aayah. How great are these two personalities?'.-i.e. Who can be a greater personality than Sayyidina Rasulullah Sallallahu Alayhi Wasallam and Sayyidina Abubakr Radiyallahu 'Anhu? Besides this they discussed other matters too, which have been mentioned in the narrations. In one hadith it is stated Sayyidina 'Umar Radiyallahu 'Anhu said: 'O Ansaar, do you know that Rasulullah Sallallahu'Alayhi Wasallam instructed Abubakr to stand on his musallaa (place of
prayer)? During the time of his illness he instructed Abubakr to lead the prayers? Who amongst you has the heart to remove such a person from the imaamah, whom Rasululllah Sallallahu 'Alayhi Wasallam appointed as an Imaam'. The Ansaar said: 'We seek refuge in Allah. We cannot by pass Abubakr'
Thereafter 'Umar Radiyallahu 'Anhu offered him his hand and made bay'ah (allegiance). All the people (present at Saqifah whole heartedly and with eagerness) also made bay'ah on the hands of Abubakr Radiyallahu 'Anhu.

This is the initial bay'ah that took place among the gathering of the Ansaar. Thereafter a general bay'ah was held in the Masjidun Nabawi, at the beginning of which 'Umar Radiyallahu 'Anhu delivered a khutbah in which he mentioned the virtues of Abubakr Radiyallahu 'Anhu and elaborated on other matters. Abubakr Radiyallahu 'Anhu then delivered a lengthy khutbah in which he said this too that, 'I swear an oath by Allah that I never coveted the post of khilaafah. Nor was I induced to do so in private or public, nor did I make du'aa for it. I feared that if I did not accept it, greater calamities would appear among the umrnah. I have no rest in it, and what has been thrown on me, is a burden which is beyond my control. Things can only run smoothly with the help of Allah'.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)

পরিচ্ছেদঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মৃত্যুতে ফাতিমা (রাঃ) এর ক্ৰন্দন:

৩০৫. আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মৃত্যুর কষ্ট ভোগ করছিলেন, তখন ফাতেমা (রাঃ) বললেন, হায়! আমার আব্বার কতই না কষ্ট হচ্ছে! রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আজকের পর তোমার পিতার আর কোন কষ্ট থাকবে না। তোমার পিতার নিকট মৃত্যু নামক এমন এক বিষয় উপস্থিত হয়েছে, যা থেকে কিয়ামত পর্যন্ত কেউ রেহাই পাবে না।[1]

حَدَّثَنَا نَصْرُ بْنُ عَلِيٍّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ الزُّبَيْرِ ، شَيْخٌ بَاهِلِيٌّ قَدِيمٌ بَصْرِيٌّ قَالَ : حَدَّثَنَا ثَابِتٌ الْبُنَانِيُّ ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، قَالَ : لَمَّا وَجَدَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ , مِنْ كُرَبِ الْمَوْتِ مَا وَجَدَ ، قَالَتْ فَاطِمَةُ : وَاكَرْبَاهُ ، فَقَالَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : " لا كَرْبَ عَلَى أَبِيكِ بَعْدَ الْيَوْمِ ، إِنَّهُ قَدْ حَضَرَ مِنْ أَبِيكِ مَا لَيْسَ بِتَارِكٍ مِنْهُ أَحَدًا الْمُوافَاةُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ " .

حدثنا نصر بن علي ، قال : حدثنا عبد الله بن الزبير ، شيخ باهلي قديم بصري قال : حدثنا ثابت البناني ، عن أنس بن مالك ، قال : لما وجد رسول الله صلى الله عليه وسلم , من كرب الموت ما وجد ، قالت فاطمة : واكرباه ، فقال النبي صلى الله عليه وسلم : " لا كرب على أبيك بعد اليوم ، إنه قد حضر من أبيك ما ليس بتارك منه أحدا الموافاة يوم القيامة " .


Anas Radiyallahu 'Ahu reports that when Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallam was experiencing severe illness, Faatimah Radiyallahu 'Anha said: "Haai, the sickness of my father". Nabi Sallallahu 'Alayhi Wasallam thereupon said: "After this day your father will not experience
any difficulties. Verily that inevitable thing has descended on your father today-i.e. death-which
till the day of qiyaamah will not be averted by anyone".

The word 'Haai' is used to express distress and sorrow. Here she meant to express sorrow.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
৫৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর ওফাত (باب ما جاء فى وفاة رسول الله ﷺ) 54. The Death Of Sayyidina Rasoolullah (pbuh)
দেখানো হচ্ছেঃ থেকে ১১ পর্যন্ত, সর্বমোট ১১ টি রেকর্ডের মধ্য থেকে