হাদিসটি ইমেইলে পাঠাতে অনুগ্রহ করে নিচের ফর্মটি পুরন করুন
security code
১০৫

পরিচ্ছেদঃ

তিনি তিন আঙ্গুলি দিয়ে আহার করতেন:

১০৫. কা’ব ইবনে মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিন অঙ্গুলি দিয়ে আহার করতেন এবং তা চুষে নিতেন।[1]

حَدَّثَنَا هَارُونُ بْنُ إِسْحَاقَ الْهَمْدَانِيُّ ، قَالَ : حَدَّثَنَا عَبْدَةُ بْنُ سُلَيْمَانَ ، عَنْ هِشَامِ بْنِ عُرْوَةَ ، عَنِ ابْنٍ لِكَعْبِ بْنِ مَالِكٍ ، عَنْ أَبِيهِ ، قَالَ : كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ " يَأْكُلُ بِأَصَابِعِهِ , الثَّلاثِ وَيَلْعَقُهُنَّ " .


Ka'b bin Maalik Radiyallahu 'Anhu says: "It was the noble habit of Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallamn to use three fingers whilst eating and-he also licked them".

সাধারণত আহারের সময় রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তিনটি আঙ্গুল ব্যবহার করতেন এবং খাওয়ার পর সেগুলো চেটে খেতেন। আঙ্গুল তিনটি হলো বৃদ্ধা, তর্জনী ও মধ্যমা।

কা’ব ইবনে উজরা (রাঃ) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বৃদ্ধা, তর্জনী ও মধ্যমা এ আঙ্গুলত্রয় দ্বারা পানাহার করতে দেখেছি। আরো দেখেছি যে, তিনি হাত ধৌত করার আগে তিন আঙ্গুল চেটে খেয়েছেন। প্রথমে মধ্যমা অতঃপর তর্জনী অতঃপর বৃদ্ধাঙ্গুল চেটেছেন।

উল্লেখ্য যে, নবী (সাঃ) এর সময় খেজুর, রুটি, গোশত অথবা তরকারীই ছিল প্রধান খাদ্য। এসব খাদ্য গ্রহণের সময় সব আঙ্গুল ব্যবহার করার প্রয়োজন হয় না। বিধায় নবী (সাঃ) তিন আঙ্গুল দ্বারা খেতেন। কিন্তু ভাত খাওয়ার সময় পাঁচ আঙ্গুলই ব্যবহার করতে হয়। বিধায় সব আঙ্গুলই চেটে খাওয়া উচিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, যখন তোমাদের মধ্যে কেউ আহার কর, তখন যেন আহার শেষে আঙ্গুলগুলো চেটে খায়। কারণ সে জানে না খাবারের কোন অংশে বরকত রয়েছে।[সহীহ ইবনে হিব্বান, হা/৫২৫৩; সিলসিলা সহীহাহ, হা/১৪০৪; সহীহ তারগীব ওয়াত खाद्रशैव, হা/২১৬১]


 It has been mentioned in some narrations that he first licked the middle finger, then the shahaadah finger, then the thumb. It was the noble habit of the master to use these three fingers. The 'ulama have mentioned many benefits in this method (sequence). The first is that the licking of the fingers will run in a manner where it goes to the right. The Sha-haadah finger will be on the right of the middle finger. The second is that the middle finger is long, therefore it will be more contaminated. For this reason it is oppropriate to begin with this finger. Khattaabi says: 'Some foolish people do not like to lick the fingers, and think it disgraceful, but they do not reason that the food that is on the finger is the same that they have been eating, there is nothing new on it'. Ibn Hajar says: 'If someone thinks of his own deed as disgraceful, it could be discussed. But to think of any act of Sayyidina Rasulullah Sallallahu 'Alayhi Wasallasm as disgraceful, could be dangerous and may even lead to kufr (disbelief). -Jam'ul Wasaa-il. In reality these things have alot to do with habit. If one has a habit of something, it does not matter, and one will not even take notice of it. This is why if one naturally feels these deeds to be disgraceful, then too one should try to form a habit of it, (and should remind one's self that it is sunnah of Sayyidina Rasulullah (Sallallahu 'Alayhi Wasallam)). Once when this humble servant went to Hijaaz (Saudi Arabia), a few who had not been to India asked me surprisingly and with great astonishment, that we hear that there is a fruit in India known as the Mangoe. We hear such disgusting things about it that it surprises us. It is put to the mouth and sucked, it is removed then put to the mouth and sucked again, It is again removed looked at, and sucked again. They were describing it with such disgust that it seemed they were about to vomit. An Indian will not feel anything disgusting about it. There are many such examples. One takes a spoonfull of custard and puts it into the mouth, then puts the same spoon which has some saliva on it, into the plate again, eating from it a second and third time. There are countless other instances where a person is used to a certain way and manner and does not feel the least disgusted about it.


হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)
পুনঃনিরীক্ষণঃ
সহীহ শামায়েলে তিরমিযী
২৪. রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এর পানাহারের নিয়ম পদ্ধতি (باب ما جاء في أكل رسول الله ﷺ)