• ৫৬৪০৩ টি সর্বমোট হাদিস আছেঃ
  • ৫৭৫৬ টি প্রশ্নোত্তর ও ফিকাহঃ

 

 

 

 


এক সফরে একাধিক উমরাহ করা যায় কি? প্রথমে মীকাত থেকে একবার এবং পরে আয়েশা মসজিদ থেকে ইহরাম বেঁধে বরাবর উমরাহ শুদ্ধ হবে কি?


একই সফরে বারবার উমরাহ; একবার মায়ের জন্য, দ্বিতীয়বার বাবার জন্য, তৃতীয়বার দাদীর জন্য এবং একইভাবে আর কারো জন্য (বা নিজের জন্য) তানঈম থেকে আসা যাওয়া করে আদায় করা বিধিসম্মত নয়। তাছাড়া মৃতের নামে হজ্জ করার চেয়ে দুআ করাই উত্তম। ৪১২ (ঐ ২/১৯৮, ২৬৬)

“ইবাদতে মৌলিক দুটি শর্ত পূরণ হওয়া জরুরী; ইখলাস ও মুহাম্মাদি তরীকা। (যারা এক সফরে বার বার উমরাহ করে)তারা কি সাহাবা থেকেও ভাল কাজে বেশী আগ্রহী? আল্লাহ্‌র কসম! না। তারা তাঁদের থেকে বেশী আগ্রহী নয়। আল্লাহ্‌র শরীয়তের ব্যপারে সাহাবা থেকে বেশী জ্ঞানী নয়। তারা একটি হাদিস পেশ করে প্রমাণ করুক যে, সাহাবাগন রমযান অথবা অরমযানে বরাবর উমরাহ করতেন। জেনে রাখুন, এ ব্যপারে কোন সহীহ অথবা যয়ীফ একটি হরফ ও নেই, যাতে প্রমাণ হয় যে, সাহাবাগন রমযান বা অন্য মাসে বরাবর উমরাহ করেছেন। অথবা কেউ উমরাহ থেকে হালাল হলে আবার তানঈম গিয়ে আর একটি উমরাহ করবে। এমনকি মক্কাবাসীদের ফাক্বীহ ইমাম আত্বা (রাহিমাহুল্লাহ)বলেছেন, ‘জানি না যে, যারা তানঈম গিয়ে উমরাহ করেছে, তারা গোনাহগার হবে, নাকি সওয়াব পাবে!’ অর্থাৎ, তাঁদের এ কাজে কষ্ট আছে, কোন সওয়াব নেই; আল্লাহ্‌র পানাহ। যেহেতু তারা শরীয়তের বহির্ভূত কাজ করে।” ৪১৩ (ইউঃ আল-লিক্বাউশ শাহরী ৪১/১)

আর বিদিত যে, সে যুগে সফর অতিশয় কষ্ট হওয়া সত্ত্বেও মহানবী (সঃ) তথা সাহাবাগন এক সফরে একাধিক উমরার সুযোগ গ্রহণ করেননি। তাহলে এ যুগে সফর সহজ হওয়া সত্ত্বেও সে সুযোগ গ্রহণ করার কি যুক্তি থাকতে পারে?

আমরা সঊদি আরবে অল্প বেতনে কাজ করি। হজ্জ করার মত টাকা জমাতে পারি না। ইসলামিক দাওয়াত সেন্টারের সহযোগিতায় আমরা হজ্জ করেছি। পরবর্তীতে নিজে হজ্জ করার মতো সামর্থ্য হয়েছে। এখন আমাদের হজ্জের ফরয আদায় হয়ে গেছে, নাকি দ্বিতীয়বার নিজের টাকায় হজ্জ করতে হবে?


হজ্জ করার জন্য কেউ অর্থ দিয়ে সাহায্য সহযোগিতা করলে তা গ্রহণ করা বৈধ এবং দানের টাকায় হজ্জ করলেও ফরয আদায় হয়ে যায়।

পিতা, শ্বশুর অথবা স্ত্রীর টাকায় হজ্জ করলে ফরয আদায় হবে কি?


পিতার পয়সায় হজ্জ করলে পুত্রের ফরয আদায় হয়ে যাবে। অনুরূপ অন্যের পয়সাতে হজ্জ করলেও তা শুদ্ধ হয়ে যাবে। ৪১৪ (ঐ ২/১৮৮)

আমার উপর হজ্জ ফরয নয়। কেউ আমার প্রতি ইহসানী করে হজ্জের খরচ দিতে এলে তা গ্রহণ করা কি জরুরী। তাঁর ফলে কি আমার উপর হজ্জ ফরয হয়ে যাবে?


অপরের ইহসানী গ্রহণ করা জরুরী নয় এবং তাঁর ফলে হজ্জ ফরযও হয় না। তবে দাতা যদি বাপ বা ভাই হয়, তাহলে তা গ্রহণ করে হজ্জ করা উচিৎ। কারণ বাপ ভাই ইহসানী করে কিছু দেয় না। ৪১৫ (ইবনে উষাইমীন)

ফরয হওয়া সত্ত্বেও পিতা হজ্জ না করে মারা গেলে পুত্র বা ওয়ারেসের কি করা উচিত?


ফরয হওয়া সত্ত্বেও পিতা হজ্জ না করে মারা গেলে পুত্র বা ওয়ারেসের উচিৎ, নিজের হজ্জ আদায় করে তাঁর তরফ থেকে হজ্জ করা, অথবা পিতার ছেড়ে যাওয়া অর্থ থেকে কোন হাজীকে খরচ দিয়ে তাঁর তরফ থেকে হজ্জ করার দায়িত্ব দেওয়া। ৪১৬ (ঐ ২/১৯৪)যেমন ছেলে হজ্জ ফরয রেখে মারা গেলে তাঁর পিতা বা অভিভাবকের উচিৎ, তাঁর তরফ থেকে ফরয হজ্জ পালন করে দেওয়া। ৪১৭ (ঐ ২/১৯৫)

কোনটা বেশি উত্তম? নফল হজ্জ করা, নাকি সেই অর্থ জিহাদের খাতে দান করা?


নফল হজ্জ উমরাহ করতে অর্থ ব্যয় করার চেয়ে ঐ অর্থ জিহাদের খাতে ব্যয় করা অধিক উত্তম। ৪১৮(ঐ ২/১৯৫)

শিশুকে হজ্জ করালে, শিশু যদি এমন কাজ করে বসে যাতে ফিদয়্যাহ ওয়াজেব, তাহলে অভিভাবককে কি তা আদায় করতে হবে?


শিশুকে হজ্জ করালে, শিশু যদি এমন কাজ করে বসে যাতে ফিদয়্যাহ ওয়াজেব, তাহলে অভিভাবককে তাঁর তরফ থেকে তা আদায় করতে হবে। ৪১৯ (ফাতাওয়া ইসলামিয়্যাহ ২/১৮২)

অনেক হাজী আছে, যার পয়সার জোরে হজ্জ তো করে, কিন্তু পাপাচার বর্জন করতে পারে না। তাদের হজ্জের অবস্থা কি?


পাপকর্মে অটল থেকে হজ্জ করলে হজ্জ শুদ্ধ, তবে অসম্পূর্ণ। পাপ থেকে তওবা জরুরী। শিরক করা অবস্থায় হজ্জ করলে তো তা মকবূলই নয়। ৪২০ (মাজাল্লাতুল বুহূসিল ইসলামিয়্যাহ ১৪/ ১৪০)

নামায পড়ে না। কিন্তু অর্থশালী বলে হজ্জ করে ‘হাজী সাহেব’ হয়েছে। বেনামাযীর হজ্জ কি কবুল হবে?


কোন বেনামাযী হাজীর হজ্জ গৃহীত নয়। যেহেতু বানামাযী আসলে ‘মুসলিম’ থাকে না। রাসুলুল্লাহ (সঃ)বলেছেন, “মানুষ ও কুফরীর মধ্যে (পর্দা) হল, নামায ত্যাগ করা।” ৪২১ (মুসলিম)

তিনি আর বলেছেন, “যে চুক্তি আমাদের ও তাদের (কাফেরদের) মধ্যে বিদ্যমান, তা হচ্ছে নামায (পড়া)। অতএব যে নামায ত্যাগ করবে, সে নিশ্চয় কাফের হয়ে যাবে।” ৪২২ (তিরমিযী)

শাক্বীক ইবনে আব্দুল্লাহ তাবেঈ (রহিমাহুল্লাহ) বলেন, “মুহাম্মাদ (সঃ)এর সহচরবৃন্দ নামায ছাড়া অন্য কোন আমল ত্যাগ করাকে কুফরীমূলক কাজ বলে মনে করতেন না।” ৪২৩ (তিরমিযী)(ফাতাওয়া ইবনে উষাইমীন ২/৬৮৭)

আমার আব্বা মারা গেছেন। আমি তাঁর তরফ থেকে হজ্জ করলে তাঁর উপকার হবে কি? উল্লেখ্য যে, তিনি বেনামাযী ছিলেন। কেবল জুমআর নামায পড়তেন।


মৃত বেনামাযীর তরফ থেকে হজ্জ গৃহীত হবে না। যেহেতু সঠিক মতে বেনামাযী কাফের। ৪২৪ (ফাতাওয়া ইসলামিয়্যাহ ২/১৮৬)

পেজ ন্যাভিগেশন

সর্বমোটঃ  126 টি বিষয় দেখান হচ্ছে।