• ৫৬৪০৩ টি সর্বমোট হাদিস আছেঃ
  • ৫৭৫৬ টি প্রশ্নোত্তর ও ফিকাহঃ

 

 

 

 


কুফর ও শিরক না করেও মানুষ কখন কাফের হয়?


যখন মুসলিম কোন কবিরা গোনহর ‘হারাম’ কাজকে অন্তরে ‘হালাল’ বিশ্বাস রেখে করে, তখন কাফের হয়ে যায়। ৩২

নবী (সঃ)-এর নবুয়ত-প্রাপ্তির আগে যারা মুশারিক অবস্থায় মারা গেছে, তাঁরা জাহান্নামে যাবে কেন? অথচ মহান আল্লাহ বলেছেন, “আমি রসূল না পাঠানো পর্যন্ত কাউকে শাস্তি দিই না। (বনী ইস্রাইলঃ ১৫)


তাঁরা তাদের শিরক ও কুফরীর কারণে জাহান্নামে যাবে। তাদের কাছে পূর্বে রসুল এসেছিলেন ইব্রাহীম (আঃ) ও তাঁর পরবর্তীতে আরও নবী তাদের প্রতি প্রেরিত হয়েছিলেন। কিন্তু তাঁরা পৌত্তলিকতা অবলম্বন করে। আর তাঁর ফলে তাদের শাস্তি হবে। ৩৩

কোন কাফের ‘মুসলিম’ হলে কুফরী অবস্থায় কৃত আমলের সওয়াব সে পাবে কি?


কাফের কোন নেক কাজের সওয়াবই আখেরাতে পাবে না। যেহেতু সে সওয়াব সে দুনিয়াতেই ভোগ করে নেয়। পক্ষান্তরে সে ইসলাম গ্রহণ করলে কুফরি অবস্থায় কৃত নেক আমলের সওয়াব আখেরাতে পাবে। মহানবী (সঃ) বলেছেন,
“বান্দা যখন ইসলাম গ্রহণ করে এবং তাঁর ইসলাম সুন্দর হয়, তখন আল্লাহ তাঁর পূর্বকৃত পুণ্যগুলিকেও লিপিবদ্ধ করেন।”৩৪

ভাল নিয়তে কোন খারাপ কাজ করলে কি তাঁর সওয়াব পাওয়া যাবে?


খারাপ কাজ ভাল নিয়তে করলে তা ভাল হয়ে যায় না, তথা তাঁর সওয়াব পাওয়া যায় না। কবরকে সামনে করে ভাল নিয়াতে আল্লাহ্‌র উদ্দেশ্যে নামাজ পড়লে কি সেটা ভাল কাজ বলে মনে করা যাবে? অবশ্যই না।৩৫ বরং ভাল কাজ ভাল নিয়তে করলেও অনেক সময় তা ভাল কাজ হয় না। যখন তা তরীকায় মুহাম্মাদী অনুযায়ী না করে নিজের অথবা অন্য কারো তারীকা অনুযায়ী করা হয়।

আল্লাহ্‌র রসূল (সঃ)-কে ‘হাবীবুল্লাহ’ বলা উচিত, নাকি ‘খালীলুল্লাহ’?


আল্লাহ্‌র রসূল (সঃ)-কে ‘খালীলুল্লাহ’ বলা উচিৎ। যেহেতু ‘হাবীবুল্লাহ’ থেকে ‘খালীলুল্লাহ’র মর্যাদা উচ্চতর। তিনি আরও বলেছেন,
“আমি পৃথিবীর কাউকে ‘খালীল’রূপে গ্রহণ করলে ইবনে আবী কুয়াফাহ (আবূ বকর )কে ‘খালীল’রূপে গ্রহণ করতাম। কিন্তু তোমাদের সাথী ‘খালীলুল্লাহ’।৩৬
পক্ষান্তরে তাঁর ‘হাবীবুল্লাহ’ হওয়ার কথা কোন সহীহ হাদীসে আসেনি।৩৭

মহান আল্লাহর সর্বপ্রথম সৃষ্টি কি?


মহান আল্লাহ্‌র প্রথম সৃষ্টি কলম। মহানবী (সঃ) বলেছেন, নিশ্চয় আল্লাহ প্রথম যে জিনিস সৃষ্টি করেন, তা হল কলম। তিনি তাঁকে বললেন, ‘লিখো’। সে বলল, ‘প্রভু! কি লিখব?’ তিনি বললেন, ‘কিয়ামত পর্যন্ত প্র্যত্যেক জিনিসের ভাগ্য লিখো।’

আল্লাহ্‌র রাসুল (সঃ) কি কিছু ভুলতেন? যা ভুলে যেতেন, তা কি আল্লাহ্‌র পক্ষ থেকে বিধান জারি করার জন্য নয়?


আল্লাহ্‌র রাসুল (সঃ) ভুলতেন, তাঁর নামাজ ভুল হতো, কুরআন পড়তে গিয়ে আয়াত ছুটে যেতো। আর এটা বিধান জারি করারা জন্য নয়। বরং মানব-মনের সাধারণ প্রকৃতির কারণেই তিনি ভুলতেন। তিনি বলেছেন,
“আমি তোমাদেরই মত একজন মানুষ। আমিও ভুলে যাই, যেমন তোমরা ভুলে যাও। সুতরাং আমি ভুলে গেলে তোমরা আমাকে মনে করিয়ে দিও।৩৯
অবশ্য সে ভুলের কারণেও বিধান জারি হতো এবং উম্মাতের শিক্ষা হতো। ৪০
 

মহান আল্লাহ তো সবই জানেন, তাহলে কিরামান-কাতেবীন দ্বারা লিখাবার যুক্তি কি?


মহান আল্লাহ বান্দার সকল আমল লিখে রাখছেন, কিয়ামতে তা বান্দার সামনে পেশ করবেন, তাঁর বিরুদ্ধে সাক্ষী মানা হবে, তাঁর আমল ওজন করা হবে, তাঁকে প্রশ্ন করা হবে ইত্যাদি, অথচ তিনি সব জানেন। যেহেতু বান্দাকে তিনি বুঝাতে চান যে, তিনি তাঁর প্রতি কোন অন্যায় করছেন না। বান্দা মিথ্যা বলে পার পেতে চাইলেও যাতে লেখা ও সাক্ষ্য অনুযায়ী সে বুঝতে পারে যে, তাঁর প্রতি অবিচার করা হচ্ছে না।

যারা কবীরা গুনাহ করে, অর্থাৎ ব্যাভিচার করে, খুন করে, মদ্যপান করে, মিথ্যা কথা বলে ইত্যাদি, তাঁরা কি কাফের? তাঁরা কি চিরকাল দোযখে বাস করবে?


কবিরা গোনাহর গোনাহগার যদি সেই গোনাহর কাজকে হালাল মনে না করে, তাহলে কাফের নয়। গোনাহর ফলে অবশ্যই ঈমানে দুর্বলতা আসবে। তাওহীদ থাকলে ও নিয়মিত নামাজ পড়লে এবং গোনাহ থেকে তওবা না করে মারা গেলে কিয়ামতে সে মহান আল্লাহ্‌র ইচ্ছাধীন থাকবে। তিনি ইচ্ছা করলে তাওহীদের গুনে তাঁকে ক্ষমা করে বেহেশত দেবেন। নচেৎ গোনাহ অনুযায়ী জাহান্নামে শাস্তি ভুগিয়ে একদিন না একদিন বেহেশতে দেবেন।
মহান আল্লাহ বলেন, “নিশ্চয় আল্লাহ তাঁর সাথে অংশী (শিরক) করার অপরাধ ক্ষমা করেন না। এ ছাড়া অন্যান্য অপরাধ যার জন্য ইচ্ছা ক্ষমা করে দেন। আর যে কেউ আল্লাহ্‌র সাথে অংশী স্থাপন (শিরক) করে, সে ভীষণভাবে পথভ্রষ্ট হয়। (নিসাঃ১১৬)
লক্ষণীয় যে, অবিবাহিত ব্যভিচারীর শাস্তি ১০০ বেত্রাঘাত ও কারাদণ্ড, মদ্যপায়ীর শাস্তি বেত্রাঘাত, চোরের শাস্তি হাত কাটা ইত্যাদি। তাঁরা কাফের হয়ে গেলে তাদেরকে হত্যা করা হতো। যেহেতু মুসলিম কাফের হয়ে গেলে তাঁর শাস্তি হল হত্যা। ৪১
 

‘আল্লাহ আকাশ-পৃথিবীর জ্যোতি’ কথার অর্থ কি?


‘আল্লাহ আকাশ-পৃথিবীর জ্যোতি।’ (নুরঃ ৩৫) এর অর্থ হল, মহান আল্লাহ আকাশ-পৃথিবীকে জ্যোতির্ময় ও আলোকিত করেন। সুতরাং আকাশে যত আলো আছে, পৃথিবিতে যত রকমের আলো আছে এবং কিয়ামতে সে আলো হবে, সব কিছু তারই আলো, তারই জ্যোতি।
অবশ্য তাঁর জ্যোতি দুই প্রকারঃ সৃষ্ট জ্যোতি। আর তা হল আকাশ-পৃথিবীর সে আলো আমরা দেখতে পাচ্ছি, যা সূর্য, চন্দ্র ও গ্রহ-নক্ষত্রের মাধ্যমে লাভ করে থাকি এবং যা বিদ্যুৎ ও অগ্নির মাধ্যমে দেখতে পাই, সবই তাঁর সৃষ্ট আলো।
আর দ্বিতীয় প্রকার জ্যোতি হল তাঁর গুণ। সে জ্যোতি সৃষ্ট নয়। তা তাঁর সাত্তিক গুণ। একদা নবী (সঃ)-কে জিজ্ঞাসা করা হল, “আপনি কি আপনার প্রতিপালককে দেখেছেন?” উত্তরে তিনি বললেন, “তাঁকে কিরূপে দেখা সম্ভব? যার পর্দা (অন্তরাল) হল নূর (জ্যোতি)। যে পর্দা উন্মোচিত হলে তাঁর আনন-দীপ্তি সমগ্র সৃষ্টিকুলকে দগ্ধীভূত করে ফেলবে।”৪২ অন্য এক বর্ণনায় তিনি বলেন, “আমি নূর দেখেছি।”

পেজ ন্যাভিগেশন

সর্বমোটঃ  52 টি বিষয় দেখান হচ্ছে।