• ৫৬৪০৩ টি সর্বমোট হাদিস আছেঃ
  • ৫৭৫৬ টি প্রশ্নোত্তর ও ফিকাহঃ

 

 

 

 


মীকাতে আসার আগে ইহরাম বাঁধা হলে কোন ক্ষতি হবে কি?


নির্দিষ্ট মীকাতের পূর্বেই ইহরাম বাঁধা চলে ৩৩০ (মানাসিকুল হাজ্জ, আলবানী ১২ পৃঃ)অবশ্য নির্দিষ্ট মীকাত হতেই ইহরাম বাঁধাই উত্তম।

ভুলবশতঃ গাড়ী চালক মীকাত অতিক্রম করে বহুদূর চলে গেলে সেখান থেকে ইহরাম বেঁধে উমরাহ হবে কি?


ভুলবশতঃ মীকাত অতিক্রম করে বহুদূর চলে গেলেও মীকাতে ফিরে এসে ইহরাম বাঁধা ওয়াজেব। যেখান থেকে ইহরাম বাঁধলে দম লাগবে। ৩৩১ (ইবনে উষাইমীন)

হজ্জ ও উমরার নিয়ত না থাকলে মক্কা প্রবেশের সময় ইহরাম বাঁধতে হবে কি?


মক্কায় পৌঁছে পরবর্তীতে হজ্জ উমরার নিয়ত হলে কথা থেকে ইহরাম বাঁধতে হবে?

উত্তরঃ হজ্জ ও উমরার নিয়ত না থাকলে মক্কা প্রবেশের জন্য ইহরাম বাঁধতে হবে না। কিন্তু মক্কায় কোন আত্মীয় বা বন্ধুর বাড়ী বা ব্যবসার জন্য আসার পর উমরাহ করার ইচ্ছা হলে হারাম সীমার বাইরে বের হয়ে ইহরাম বেঁধে এসে উমরাহ করবে। হজ্জ করার ইচ্ছা হলে ঐ বাসস্থান থেকেই হজ্জের ইহরাম বাঁধবে ৩৩২ (ফাতাওয়া মুহাম্মাহ ২২ পৃঃ)মিনায় থাকলে মিনা থেকেই হজ্জের ইহরাম বাঁধবে। ৩৩৩ (ঐ ২৬পৃঃ)

ইচ্ছা ছিল আগে আত্মীয়ের বাড়ীতে বেড়াব। অতঃপর সময়মত উমরাহ বা হজ্জ করব। এই জন্য ইহরাম না বেঁধে মক্কায় এসেছি। এখন উপায় কি?


পূর্ব থেকেই  হজ্জ বা উমরার নিয়তে বিনা ইহরামে মীকাতে সিমা অতিক্রম করে সিমার ভিতরে কোন শহরে আত্মীয়ের বাড়ীতে থেকে সেখানে থেকেই ইহরাম বা হজ্জ করলে দম লাগবে। নচেৎ মীকাতে ফিরে গিয়ে ইহরাম বেঁধে আসবে। অবশ্য মীকাতে অতিক্রম করার সময় হজ্জ বা উমরার নিয়ত না থাকলে এবং পরে আত্মীয় বাড়ীতে ঐ নিয়ত হলে এ বাড়ী থেকেই ইহরাম বাঁধতে পারে। ৩৩৪(মাজাল্লাতুল বুহূসিল ইসলামিয়্যাহ ১৯/ ১৬৯)

সঙ্গে পারমিট না থাকার কারণে পুলিশ মক্কা প্রবেশ করতে না দিলে অথবা কোন অসুস্থতার কারণে ইহরাম বেঁধে উমরাহ বা হজ্জ করতে না পারলে করণীয় কি?


ইহরাম বাধার পর কোন কারনবশতঃ হজ্জ (বা উমরাহ) সারতে না পারলে যথাস্থানে একটি কুরবানি করে মাথার কেশ মুণ্ডন বা কর্তন করে হালাল হয়ে বাড়ী ফিরবে। অবশ্য ইহরামের সময় শর্ত লাগিয়ে থাকলে তাঁর উপর কিছু ওয়াজেব নয়। ৩৩৫ (মাজাল্লাতুল বুহূসিল ইসলামিয়্যাহ ১৪/ ১৩৮)

তামাত্তু হজ্জের নিয়তে উমরাহর ইহরাম বেঁধে উমরাহ সেরে হজ্জের ইহরাম বাঁধার পূর্বে উমরাহ যদি কোন কারনবশতঃ বাড়ী ফিরতে হয় বা হজ্জ করা না হয়, তাহলে করণীয় কী?


তামাত্তু হজ্জের নিয়তে উমরাহর ইহরাম বেঁধে উমরাহ সেরে হজ্জের ইহরাম বাঁধার পূর্বে যদি কোন কারণবশতঃ বাড়ী ফিরতে হয় বা হজ্জ করা না হয়, তাহলে তাঁর উপরও কিছু ওয়াজেব হবে না। ৩৩৬ (ফাতাওয়া ইসলামিয়্যাহ ২/২১০)

উমরার ইহরাম বেঁধে কেউ অকারণে উমরাহ না করে ফিরে গিয়ে জেনে শুনে ইহরাম খুলে ফেললে তাকে কি করতে হবে?


উমরার ইহরাম বেঁধে কেউ অকারণে উমরাহ না করে ফিরে গিয়ে জেনে শুনে ইহরাম খুলে ফেললে ১টি কুরবানি করবে, অথবা তিন দিন রোযা পালন করবে অথবা ছয়টি মিসকিন (নিঃস্ব)কে মাথা পিছু অর্ধ সা’ (সাওয়া এক কিলো) করে খাদ্য (চাল)সাদকাহ করবে। (আর এই খাদ্য বা গোশত হারাম শরীফের মিসকীনদের মাঝে বণ্ঠন করতে হবে।) স্ত্রী সহবাস করলে দম লাগবে এবং মক্কা ফিরে এসে উমরাহ অবশ্যই পুরা করতে হবে। ৩৩৭ (ফাতাওয়া ইবনে উষাইমীন ২/৩০০)

তামাত্তুর উমরাহ করার পর মদীনার যিয়ারতে গেলে অথবা কোন প্রয়োজনে মীকাতে বাইরে গেলে পুনরায় হজ্জের জন্য আসার সময় মীকাত থেকে ইহরাম বাঁধতে হবে কী?


তামাত্তুর উমরাহ করার পর মদ্বীনার যিয়ারতে গেলে অথবা কোন প্রয়োজনে মীকাতে বাইরে গেলে পুনরায় হজ্জের জন্য আসার সময় মীকাত থেকে ইহরাম বাঁধা জরুরী। (মতান্তরে জরুরী নয়।) এই ইহরামে আর একটি উমরাহও করতে পারা যায়।

তিন প্রকার হজ্জের নিয়তে কি পরিবর্তন করা যায়?


ক্বিরান বা তামাত্তু হজ্জের নিয়ত করে ইহরাম বেঁধে পুনরায় ইফরাদের নিয়ত হয় না। যেমন হজ্জের মাসে উমরাহ সেরে মদ্বীনা বা কোন (স্বগৃহ ছাড়া)সফরে গেলে হজ্জের সময় ফিরে এসে ইফরাদ হয় না। অবশ্য ক্বিরানের নিয়ত করে তামাত্তুর নিয়ত করা যায়। ৩৩৮ (ফাতাওয়া মুহিম্মাহ ৩৬ পৃঃ)

আমি ইহরাম বেঁধে মীকাত পার হয়ে গেছি। তখন এক পরিচিত আমাকে মোবাইলে বললেন, আপনি আমার নামে বদল হজ্জ করুন, কিন্তু নিজের নামে নিয়ত করে অন্যের নামে পরিবর্তন করা যায় কি?


নিজের নামে হজ্জ বা উমরার নিয়ত করে ইহরাম বেঁধে মীকাত পার হয়ে পরে অন্যের নামে পরিবর্তন করা যায় না।৩৩৯ (ফাতাওয়া ইবনে উষাইমীন ২/৬৭৬)

পেজ ন্যাভিগেশন

সর্বমোটঃ  126 টি বিষয় দেখান হচ্ছে।