Donate Now
কীবোর্ড সিলেক্টরঃ ফনেটিক বিজয় ইউনিজয়   ইংরেজী
হাদিস প্রশ্নোত্তর/দু'আ/গ্রন্থ প্রশ্নোত্তর (বাংলা হাদিস) গুগল হুবুহু সার্চ
 
 
Donate Now!

প্রশ্ন করেছেনঃ MD.ABUL KALAM DEWAN | তারিখঃ 2014-01-26

প্রশ্ন নম্বরঃ
152

Assalamualaikum wr/wb.solater somoy bishes korey zohur solater sesh somoy &Asor solater surur somoyta sonporke shahi doliadir vittite janie badito korben.kenona bastobe dekchi ekdoler motey asorer somoy suru hoy ektu bilonbe ete kore ikmote zohur waktomoto adaihoeyzai onnomote kaja hoey zai ba asor er waktosuruhoeyzai.

 amader rosul( pbuh)ke duniar sokol sristir rohomat hisabe Allah swt.preron korechen.tai bola jai prithibir sokol maush rosuler(pbuh)Ummot.ei ummot 73 doley bibokto hobar ze ingit die giechen ta ki sudu amra jonmogotovabe musolmandabikori;kitu shikka&oshikkhar karoney amader maje je bibinno motadorshi achi taderkey bujano hoechey naki islamsoho onno sokol dormey bisshasiderkey ekti dol hisabe boechen?ektu bujie bolben ki.Allah swt amader shothik janar&manar taufiq dan korun.Ameen.

উত্তরঃ

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
সালাতের সময়ের ব্যাপারে জানতে নিচের হাদিসটি দেখুনঃ

৫২৭। সুওয়ায়দ ইবনু নাসর (রহঃ) জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন: সুর্য ঢলে পড়ার পর জিব্রাইল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নাবী ﷺ-এর নিকট এসে বললেনঃ হে মুহাম্মদ ﷺ! আপনি দাঁড়ান, সুর্য মাথার উপর থেকে ঢলে পড়লে যোহরের সালাত আদায় করুন। তারপর অপেক্ষা করলেন। যখন মানুষের ছায়া তার সমান হল, তখন আসরের জন্য তাঁর নিকট এসে বললেনঃ হে মুহাম্মদ ﷺ! উঠুন এবং আসরের সালাত আদায় করুন। আবার অপেক্ষা করলেন। যখন সুর্য অস্তমিত হল তখন এসে বললেন, হে মুহাম্মদ ﷺ! উঠুন এবং মাগরিবের সালাত আদায় করুন। নাবী ﷺদাঁড়ালেন এবং সুর্য ডোবার সাথে সাথেই মাগরিবের সালাত আদায় করলেন।

পুনরায় অপেক্ষা করলেন এবং আকাশের শফক অদৃশ্য হয়ে গেলে তিনি এসে বললেনঃ উঠুন এবং ইশার সালাত আদায় করুন। তিনি দাঁড়িয়ে ইশার সালাত আদায় করলেন। যখন স্পষ্টরূপে প্রভাত হল, আবার এসে বললেনঃ হে মুহাম্মদ ﷺ! উঠুন এবং ফজরের সালাত আদায় করুন। তিনি ফজরের সালাত আদায় করলেন। পরদিন ছায়া মানুষের বরাবর হলে আবার এসে বললেনঃ হে মুহাম্মদ ﷺ! আপনি উঠুন এবং সালাত আদায় করুন। তিনি যোহরের সালাত আদায় করলেন। কোনো মানুষের ছায়া যখন দ্বিগুন হল জিব্রাইল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আবার আসলেন এবং বললেনঃ হে মুহাম্মদ ﷺ! উঠুন এবং সালাত আদায় করুন। তিনি আসরের সালাত আদায় করলেন। সূর্যাস্তের পর পূর্ব দিনের ন্যায় মাগরিবের জন্য আবার আসলেন এবং বললেন, উঠে সালাত আদায় করুন। তিনি মাগরিবের সালাত আদায় করলেন। রাতের এক-তৃতীয়াংশ চলে গেলে ইশার জন্য আবার এসে বললেনঃ উঠুন এবং সালাত আদায় করুন। তিনি ঈশা আদায় করলেন। প্রভাত স্পষ্ট হওয়ার পর ফজরের সালাতের জন্য আবার আসলেন এবং বললেন, উঠুন, সালাত আদায় করুন এবং তিনি ফজরের সালাত আদায় করলেন। অতঃপর বললেন, এই দুইদিনের সময়ের মধ্যবর্তী সময়ই সালাতের সময়। হাদিসঃ সুনানে নাসাঈ, ৫২৭।

এছাড়া আরও অনেক হাদিস আছে সালাতের সময়ের ব্যাপারে, আরও দেখতে ক্লিক করুন এখানে।

আর আপনার প্রশ্নের দ্বিতীয় অংশে বলতে চাইঃ রাসুল (সাঃ) প্রেরিত হয়েছিলেন সমগ্র মানুষের জন্য কিন্তু তারাই তাঁর উম্মত বলে বিবেচিত হবে শুধুমাত্র যারা ইসলাম গ্রহন করেছে এবং করবে। যারা ইসলাম গ্রহন করে নাই বা করবে না তাঁরা রাসুল (সাঃ) এর উম্মত বলে বিবেচিত হবে না। আর ৭৩ দল হবে মুসলিমদের ভিতর থেকেই এবং এর মধ্যে ৭২ দল জাহান্নামে যাবে আর শুধুমাত্র একটি দল যাবে জান্নাতে। আর সেই দল হল যে ব্যাক্তি সেই পথে চলবে যে পথের উপর রাসুল (সাঃ) এবং সাহাবাগন প্রতিষ্ঠিত ছিলেন। অর্থাৎ শুধুমাত্র তারাই যারা আল-কোরআন এবং রাসুল (সাঃ) এর সহিহ সুন্নাতের অনুসরণ করে চলবে।

আল্লাহই ভালো জানেন।
 

উত্তর দিয়েছেনঃ এ্যাডমিন , বাংলা হাদিস / 2014-01-27



Fatal error: Cannot redeclare EPCNTR_Go_Error() (previously declared in /home4/hadithbd/public_html/counter/counter.php:614) in /home4/hadithbd/public_html/counter/counter.php on line 637