Donate Now
কীবোর্ড সিলেক্টরঃ ফনেটিক বিজয় ইউনিজয়   ইংরেজী
হাদিস প্রশ্নোত্তর/দু'আ/গ্রন্থ প্রশ্নোত্তর (বাংলা হাদিস) গুগল হুবুহু সার্চ
 
 
Donate Now!

প্রশ্ন করেছেনঃ জুবায়ার আহামদ খান | তারিখঃ 2014-01-20

প্রশ্ন নম্বরঃ
118

আমার এক হিন্দু বন্ধু জানতে চাই যে কেন আল্লাহ সবাই কেন মুসলিম বানালও না?

উত্তরঃ

বিসমিল্লাহ ওয়াস-সালাতু ওয়াস-সালামু আলা-রসূলিল্লাহ ওয়া আলা আলিহি ওয়া মান ওয়ালাহ্।

আল্লাহ চাইলে সবই করতে পারেন। তিনি ইচ্ছে করলে সবাইকে মুসলিম বানিয়ে দিতে পারতেন। কিন্তু ব্যাপারটা হচ্ছে মুসলিম হতে হয়। মুসলিম শব্দের মানে হল অনুগত/বাধ্য। আর এই অনুগত/বাধ্য হবার স্বাধীনতা মানুষকে আল্লাহ তা'আলা দান করেছেন। এখন সে ইচ্ছে করলে তার প্রভূর পথ অবলম্বন করবে তাঁর আনুগত্য করবে; অথবা তাঁর বিরুদ্ধাচরণ করে তাঁর সাথে বিদ্রোহের আচরণ করবে। মুসলিম ঘরে জন্মগ্রহণ করলেই কেউ অটোম্যাটিকালী [স্বয়ংক্রিয়ভাবে] মুসলিম হয়ে যায় না। তাকে ইসলাম গ্রহণ করতে হয়। হ্যাঁ,  মানুষের বড় হয়ে উঠার পরিবেশ তাঁর উপর প্রভাব ফেলে। তার শিক্ষা দীক্ষার ফলে সে শেষ পর্যন্ত আল্লাহর পথে ঠিক মত চলে অথবা বাঁকা পথে চলে। মানুষকে আল্লাহ তা'আলা তার পবিত্র মানবীয় প্রকৃতিতে [ফিতরাহ]  সৃষ্টি করেছেন, যা আল্লাহর অনুগত। এরপর তার পরিবেশের কারণে সে হয় ইয়াহুদী, খৃষ্টান বা অন্য কিছু হয়ে বড় হয়।  রসূলুল্লাহ (সঃ) বলেছেনঃ

كُلُّ مَوْلُودٍ يُولَدُ عَلَى الْفِطْرَةِ ، فَأَبَوَاهُ يُهَوِّدَانِهِ أَوْ يُنَصِّرَانِهِ أَوْ يُمَجِّسَانِهِ  "

"প্রত্যেক শিশু জন্মগ্রহণ করে তার সহজাত মানব প্রকৃতির উপর। এরপর তার পিতা-মাতা তাকে ইয়াহুদী বানায়, বা খৃষ্টান বানায় বা মাজুসী [অগ্নি উপাসক] বানায়।" [বুখারী ও মুসলিম]

দুনিয়াতে এভাবে চলতে যাওয়ার পরও আল্লাহ তা'আলা মানুষদেরকে পথ প্রদর্শন করেছেন। এখন যার ইচ্ছে সে সোজা পথে চলে তার প্রভূর কৃতজ্ঞ হবে; অথবা অস্বীকার করে অকৃতজ্ঞদের দলে ভিড়বে। আল্লাহ তা'আলা কুরআনে বলেছেনঃ

إِنَّا خَلَقْنَا الْإِنسَانَ مِن نُّطْفَةٍ أَمْشَاجٍ نَّبْتَلِيهِ فَجَعَلْنَاهُ سَمِيعًا بَصِيرً‌ا  إِنَّا هَدَيْنَاهُ السَّبِيلَ إِمَّا شَاكِرً‌ا وَإِمَّا كَفُورً‌ا
"নিঃসন্দেহে আমরা মানুষকে সৃষ্টি করেছি মিশ্র শুক্রবিন্দু থেকে, এভাবে যে, তাকে পরীক্ষা করব। অতঃপর তাকে করে দিয়েছি শ্রবণ ও দৃষ্টিশক্তিসম্পন্ন। আমরা তাকে পথ দেখিয়ে দিয়েছি। এখন সে হয় কৃতজ্ঞ হয়, না হয় অকৃতজ্ঞ হয়।" [৭৬ঃ ২-৩]

আল্লাহ যদি জোর করে সবাইকে মুসলিম বানিয়ে দিতেন তাহলে মানুষের এই ইচ্ছাশক্তির স্বাধীনতার কোন মানে হত না। আল্লাহ চাইলে সবাইকে একই মুসলিম উম্মতের অন্তর্ভূক্ত করে দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি পরীক্ষা করে দেখতে চান কে সত্য পথ অবলম্বন করে। তিনি বলেছেনঃ

وَأَنزَلْنَا إِلَيْكَ الْكِتَابَ بِالْحَقِّ مُصَدِّقًا لِّمَا بَيْنَ يَدَيْهِ مِنَ الْكِتَابِ وَمُهَيْمِنًا عَلَيْهِ فَاحْكُم بَيْنَهُم بِمَا أَنزَلَ اللّهُ وَلاَ تَتَّبِعْ أَهْوَاءهُمْ عَمَّا جَاءكَ مِنَ الْحَقِّ لِكُلٍّ جَعَلْنَا مِنكُمْ شِرْعَةً وَمِنْهَاجًا وَلَوْ شَاء اللّهُ لَجَعَلَكُمْ أُمَّةً وَاحِدَةً وَلَـكِن لِّيَبْلُوَكُمْ فِي مَآ آتَاكُم فَاسْتَبِقُوا الخَيْرَاتِ إِلَى الله مَرْجِعُكُمْ جَمِيعًا فَيُنَبِّئُكُم بِمَا كُنتُمْ فِيهِ تَخْتَلِفُونَ

"তারপর হে মুহাম্মাদ! তোমার প্রতি এ কিতাব নাযিল করেছি, যা সত্য নিয়ে এসেছে এবং আল কিতাবের মধ্য থেকে তার সামনে যা কিছু বর্তমান আছে তার সত্যতা প্রমাণকারী ও তার সংরক্ষক। কাজেই তুমি আল্লাহর নাযিল করা আইন অনুযায়ী লোকদের বিভিন্ন বিষয়ের ফায়সালা করো এবং যে সত্য তোমার কাছে এসেছে তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে তাদের খেয়াল-খুশির অনুসরণ করো না।--তোমাদের প্রত্যেকের জন্য একটি শরীয়াত ও একটি কর্মপদ্ধতি নির্ধারণ করে রেখেছি। আল্লাহ চাইলে তোমাদের সবাইকে একই উম্মতের অন্তর্ভুক্ত করতে পারতেন। কিন্তু তিনি তোমাদের যা দিয়েছেন তার মধ্যে তোমাদের পরীক্ষা করার জন্য এমনটি করেছেন। কাজেই সৎকাজে একে অপরের চাইতে অগ্রবর্তী হবার চেষ্টা করো। শেষ পর্যন্ত তোমাদের সবাইকে আল্লাহর দিকে ফিরে যেতে হবে। তারপর তিনি সেই প্রকৃত সত্যটি তোমাদের জানিয়ে দেবেন যে ব্যাপারে তোমরা মতবিরোধ করে আসছিলে।" [৫ঃ ৪৮]

 

উত্তর দিয়েছেনঃ আবূসামীহাহ সিরাজুল ইসলাম / 2014-01-23



Fatal error: Cannot redeclare EPCNTR_Go_Error() (previously declared in /home4/hadithbd/public_html/counter/counter.php:614) in /home4/hadithbd/public_html/counter/counter.php on line 637