Donate Now
কীবোর্ড সিলেক্টরঃ ফনেটিক বিজয় ইউনিজয়   ইংরেজী
হাদিস প্রশ্নোত্তর/দু'আ/গ্রন্থ প্রশ্নোত্তর (বাংলা হাদিস) গুগল হুবুহু সার্চ
 
 
Donate Now!
Google Play

Google App Google Play

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম,

কোন মহিলার যদি তালাক হওয়ার পর সেই মহিলা আগের স্বামীর কাছে যেতে চায় তাহলে কি সেই মহিলার হিল্লা বিবাহ করা জরুরি ,সে কি হিল্লা বিবাহ ছাড়া স্বামীর কাছে যেতে পারবে না?? 

উত্তরঃ

বিসমিল্লাহ ওয়াস-সালাতু ওয়াস-সালামু আলা রসূলিল্লাহ, ওয়া বা'দ।

ওয়া আলায়কুম আস-সালাম ওয়া-রহমাতুল্লাহ।

প্রথম কথা হচ্ছে তথাকথিত হিল্লা বিয়ে বলে যা আমাদের দেশে প্রচলিত আছে তা আমাদের দীনে [ইসলাম] নাই।

দ্বীতিয় কথা হচ্ছে, আল্লাহর শরীয়তে তালাকের একটা নিয়ম আছে। কোন স্বামী তার স্ত্রীকে তালাক দেয়া মানেই তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ বুঝায় না। আল্লাহ তা'আলার শরীয়তে তালাক দেয়ার পর ফিরিয়ে নেয়ার বিধান রয়েছে। আল্লাহ তা'আলা বলেছেনঃ

الطَّلاَقُ مَرَّتَانِ فَإِمْسَاكٌ بِمَعْرُوفٍ أَوْ تَسْرِيحٌ بِإِحْسَانٍ

"তালাক দু’বার। তারপর সোজাসুজি স্ত্রীকে রেখে দিবে অথবা ভালোভাবে বিদায় করে দেবে।" [আল-বাক্বারা, ২: ২২৯]

তালাক্ব দেবার পদ্ধতি হল কোন ব্যক্তি তার স্ত্রীকে তালাক্ব দিতে চাইলে তুহুর [ঋতুকালীন রক্তস্রাব শেষের পবিত্রতা] অবস্থায় এক তালাক্ব দিবে। সে সময়ে স্ত্রী তার স্বামীর ঘরেই ইদ্দত [অপেক্ষার সময়] পালন করবে। ইদ্দতকালীন সময়ে স্বামী যদি তার কাছে গমন করে তাহলে তার তালাক্ব শেষ হয়ে যাবে এবং তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে আবার একত্রে জীবন যাপন করতে পারবে। এরপর  স্বামী যদি আবারও তাকে তালাক্ব দেয় তবে তা ২য় তালাক্ব হিসেবে গণ্য হবে এবং তাও দিতে হবে তুহুর অবস্থায়। সে সময়েও স্ত্রী স্বামীর ঘরেই ইদ্দত পালন করবে। আর এই ইদ্দতকালীন সময়ে স্বামী যদি তাকে ফিরিয়ে নিতে চায় তাহলে পারবে।

এই এক বা দুই তালাক্বের পরে ইদ্দত কালীন সময়ে স্বামী যদি স্ত্রীকে ফিরিয়ে না নেয় তবে তাদের বিয়ে ভেঙ্গে যাবে। সে ক্ষেত্রে ইদ্দত অতিক্রান্ত হবার পর স্বামী যদি ঐ  স্ত্রীকে আবার ফিরিয়ে নিতে চায়, তবে তাকে পুনরায় দেন মোহর দিয়ে বিয়ে করতে হবে।

যদি স্বামী তার স্ত্রীকে ৩য় তালাক্ব দেয় তবে তাদের সম্পর্ক স্থায়ীভাবে বিচ্ছিন্ন হবে। তখন ইদ্দতকালীন সময়ে স্বামী আর স্ত্রীকে ফিরিয়ে নিতে পারবে না। এবং ইদ্দত শেষ হবার পরে আবার বিয়েও করতে পারবে না। তবে ঐ স্ত্রীর যদি অন্য কোন ব্যক্তির সাথে স্বেচ্ছায় বিয়ে হয় এবং ঐ ব্যক্তি কখনো মারা যান অথবা কখনো তাদের মধ্যে তালাক্ব হয়ে যায় তখন পূর্বের স্বামী চাইলে এবং স্ত্রী রাজী হলে তাদের মধ্যে পুনরায় বিয়ে হতে পারে।

আল্লাহ তা'আলা বলেছেনঃ

فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا تَحِلُّ لَهُ مِن بَعْدُ حَتَّىٰ تَنكِحَ زَوْجًا غَيْرَ‌هُ ۗ فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا جُنَاحَ عَلَيْهِمَا أَن يَتَرَ‌اجَعَا إِن ظَنَّا أَن يُقِيمَا حُدُودَ اللَّـهِ ۗ وَتِلْكَ حُدُودُ اللَّـهِ يُبَيِّنُهَا لِقَوْمٍ يَعْلَمُونَ

অতঃপর যদি (দু’বার তালাক দেবার পর স্বামী তার স্ত্রীকে তৃতীয় বার) তালাক দেয়, তাহলে ঐ স্ত্রী তার জন্য হালাল হবে না। তবে যদি দ্বিতীয় কোন ব্যক্তির সাথে তার বিয়ে হয় এবং সে তাকে তালাক দেয়, তাহলে এক্ষেত্রে প্রথম স্বামী এবং এই মহিলা যদি আল্লাহর সীমারেখার মধ্যে অবস্থান করতে পারবে বলে মনে করে তাহলে তাদের উভয়ের জন্য পরস্পরের দিকে ফিরে আসায় কোন ক্ষতি নেই।২৫৩ এগুলো আল্লাহর নির্ধারিত সীমারেখা। (এগুলো ভঙ্গ করার পরিণতি) যারা জানে তাদের হিদায়াতের জন্য এগুলো সুস্পষ্ট করে তুলে ধরেছেন। [আল-বাক্বারাহ, ২: ২৩০]

এটা হচ্ছে নিয়ম। কিন্তু আমাদের দেশে লোকেরা নিজেদের মধ্যে চুক্তি করে যে হিল্লা বিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করেছে তা আমাদের শরীয়তে জায়েজ় নেই। এ ধরণের কাজ মূলত আল্লাহর দীন নিয়ে খেল-তামাশা করার সমতূল্য।

 

 
Type the characters you see in the picture below.