Donate Now
কীবোর্ড সিলেক্টরঃ ফনেটিক বিজয় ইউনিজয়   ইংরেজী
হাদিস প্রশ্নোত্তর/দু'আ/গ্রন্থ প্রশ্নোত্তর (বাংলা হাদিস) গুগল হুবুহু সার্চ
 
 
Donate Now!
Google Play

Google App Google Play

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্রাহ

ভাই মাযহাব মানা ইসলামের দৃষ্টিতে কতটুকু জরুরী তা জানালে খুবই উপকৃত হব । আমি যতটুকু জানি মাযহাব মানা তেমন একটা জরুরী নয়, বরং কোরআন এবং হাদীস মানা খুবই জরুরী  । কিন্তু ভাই ইদানিং খুব বেশী  এই প্রশ্নটার সম্মুখিন হচ্ছি । কিন্তু রেফারেন্স শুদ্ধ উত্তর দিতে পারছিনা । যদি আপনি আমাকে একটু সাহায্য করেন খুবই উপকৃত হব । 

আল্রাহ আপনাকে উত্তম জা’যা দান করুন । 

উত্তরঃ

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
মাযহাব নিয়ে কথা বলতে হলে সর্বপ্রথম আমাদের জানা দরকার মাযহাব অর্থ কি, কিন্তু দুঃখের বিষয় দেখা যায় যারা মাযহাব নিয়ে বেশি কথা বলেন বা মানেন বলে দাবি করেন তাঁরা আসলে মাযহাব এর অর্থ জানেন না, বুঝেন না আর এই কারনেই বিভিন্ন বিভ্রান্তির তৈরি হয়।

মাযহাব অর্থ মত বা পথ অর্থাৎ ইসলামী শরীয়তের অধীনে দুনিয়াবী বা আমলি কোন বিষয়ে সরাসরি  যখন কোরআন এবং সহিহ হাদিস থেকে হুকুম পাওয়া যায় না তখন যারা ইসলামী শরীয়তের বিষয়ে জ্ঞানী তাদের শরণাপন্ন হতে হয় এবং তখন উনারা কোরআন এবং সহিহ হাদিসের আলোকে যে মাসআলা দিয়ে থাকেন সেটাই মূলত ঐ জ্ঞানী ব্যাক্তির/ইমামের মাজহাব। কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে উনি যে হুকুম বা মতামত দিয়েছেন সেটাই সঠিক বা সম্পূর্ণ বেঠিক কেননা হতে পারে ঐ জ্ঞানী ব্যাক্তির/ইমামের নিকট পুরোপুরি কোরআনের ব্যাখ্যা এবং সহিহ হাদিসের রেফারেন্স বা  ব্যাখ্যা পৌঁছে নাই।

এখন দেয়া যায় আমাদের দেশে মাজহাবের দোহায় দিয়ে কোরআনের হুকুম বা সহিহ হাদিসকে অস্বীকার করে থাকেন কিছু মানুষ এবং তাঁরা বলে যে অমুক বিষয়টি আমাদের মাজহাবে নেই, বা আমার ইমাম এভাবে বলেন নি তাই এই হাদিসকে আমি মেনে নিতে পারছি না ইত্যাদি। কিন্তু আল্লাহ্‌ এবং রাসুলের কথাকে কেউ কখনো মানবে আবার মানবে না এটা কোন ভাবেই হতে পারে না।

আমাদেরকে চলতে হবে কোরআন এবং সহিহ সুন্নাহের ভিত্তিতে, এবং এই ক্ষেত্রে দেখা যেতে পারে যে কোন ইমামের কোন বিষয়ে ব্যাখ্যা হয়ত সহিহ হাদিসের বিপরীত হতেই পারে কেননা হয়ত ঐ ইমাম ঐ হাদিসটি সম্পর্কে জানেন না, এখন আপনি যদি সেই হাদিসটির বিষয়ে জানেন যে তা সহিহ তখন সেখানে ইমামের সেই ব্যাখ্যাকে গ্রহন করা যাবে না এবং সহিহ হাদিসের উপর আমল করতে হবে এবং অবশ্যই আমাদেরকে সকল ইমামগনকে সমান ভাবে শ্রদ্ধা করতে হবে কিন্তু মাজহাবের নামে গোঁড়ামি করা চলবে না। কোন ইমামের বিরুদ্ধে কোন ধরনের আপত্তিকর কথা বলা চলবে না কোন ভাবেই কেননা তাঁরা সবাই মুজতাহিদ ছিলেন এবং সর্বোপরি সমস্ত ইমাম বলে গিয়েছেন যে যদি তাদের কথার বিপরীতে সহিহ হাদিস পাওয়া যায় তাহলে সহিহ হাদিসটিই হচ্ছে তাঁর পথ। অর্থাৎ ইমামগন সব সময় বলে গিয়েছেন কোরআন এবং সহিহ সুন্নাহ ফলো করার জন্য, তাদের নিজেদেরকে ফলো করতে বলেন নাই।

এখন আমরা একেক দলে নিজেরাই বিভক্ত হয়ে একেকটি মাযহাব তৈরি করে নিয়েছি এবং মাযহাবের নামে গোঁড়ামি শুরু করেছি কিন্তু কোন ইমাম বলেন নাই যে আমার কথাই সবচেয়ে সঠিক বা আমার নামে তোমরা মাযহাব তৈরি কর বরং এগুলি আমাদের সৃষ্টি।

মুসলিমদের জন্য একটাই মাযহাব আর সেটা হচ্ছে রাসুল (সাঃ) এর মাযহাব যার বিবরণ আল কুরআন এবং সহিহ হাদিস এবং এটাই ছিল যুগে যুগে যত ইমাম এসেছেন তাদের মাযহাব। আল্লাহ্‌ আমাদের সবাইকে বুঝার তাউফিক দান করুন, আর আমরা যেন গোঁড়ামি থেকে ফিরে এসে এক রাসুল (সাঃ) এর প্রতিষ্ঠিত মাযহাবের উপরে সবাই একতাবদ্ধ হয়ে থাকতে পারি তাঁর দু'আ করি। আল্লাহ্‌ কবুল করুন (আমিন)।

আর সব বিষয়ে একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন।

 
Type the characters you see in the picture below.