• ৫৬৭১৯ টি সর্বমোট হাদিস আছেঃ
  • ৫৭৫৬ টি প্রশ্নোত্তর ও ফিকাহঃ

 

 

 

 


মাস'আলা / মাসায়েল - প্রশ্নোত্তর

(৫১৯) তওয়াফে এফাযার পূর্বে হজ্জের সাঈ করা কি জায়েয?

হাজী সাহেব যদি ইফরাদ বা কেরাণকারী হয়, তবে তার জন্য তওয়াফে এফাযার পূর্বে হজ্জের সাঈ করা জায়েয আছে। তওয়াফে কুদুমের পর পরই উহা আদায় করে নিবে। যেমনটি নবী (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এবং তাঁর ছাহাবীদের মধ্যে যারা কুরবানী সাথে নিয়ে এসেছিলেন তারা করেছিলেন।

কিন্তু তামাত্তুকারী হলে তাকে দু’বার সাঈ করতে হবে। প্রথমবার মক্কায় আগমণ করে ওমরার জন্য। প্রথমে তওয়াফ করবে, তারপর সাঈ করে চুল খাট করে হালাল হয়ে যাবে। আর দ্বিতীয়বার সাঈ করবে (আরাফাত দিবসের পর) হজ্জের জন্য। উত্তম হচ্ছে তওয়াফে এফাযা আদায় করার পর এই সাঈ করা। কেননা সাঈ তওয়াফের পরের কাজ। অবশ্য যদি তওয়াফের পূর্বে সাঈ করে ফেলে তবে বিশুদ্ধ মতে কোন অসুবিধা হবে না। কেননা নবী (ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)কে জিজ্ঞেস করা হয়েছেঃ আমি তো তওয়াফের পূর্বে সাঈ করে ফেলেছি। জবাবে তিনি বলেছেন, “কোন অসুবিধা নেই।”

হাজী সাহেব ঈদের দিন তথা দশই জিলহজ্জ পাঁচটি কাজ ধারাবাহিকভাবে সম্পাদন করবেঃ

১) জামরা আক্বাবায় কঙ্কর নিক্ষেপ করা

২) তারপর কুরবানী

৩) তারপর মাথা মুন্ডন অথবা চুল ছোট করা।

৪) অতঃপর কা’বা ঘরের তওয়াফ করা

৫) সবশেষে ছাফা-মারওয়া সাঈ করা।

অবশ্য ইফরাদকারী ও ক্বেরাণকারী যদি তওয়াফে কুদূমের সাথে সাঈ করে নিয়ে থাকে, তবে পুনরায় তাকে সাঈ করতে হবে না। উত্তম হচ্ছে উল্লেখিত কাজগুলো ধারাবাহিকভাবে আদায় করা। কিন্তু যদি আগ-পিছ হয়ে যায় বা করে ফেলে- বিশেষ করে প্রয়োজন দেখা দিলে তবে কোন অসুবিধা নেই। এটা বান্দাদের প্রতি আল্লাহ্‌র করুণার একটি বড় প্রমাণ।